আজ ১লা আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৫ই জুন, ২০২১ ইং

ড্রেজারে বালু উত্তোলনের কুফল : ব্রহ্মপুত্রে পানি আসতে না আসতেই ব্যাপক ভাঙন

রৌমারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি : ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলনের ফলে ব্রহ্মপুত্রে পানি আসতে না আসতেই ব্যাপক ভাঙন শুরু হয়েছে।

ইতোমধ্যেই রৌমারী উপজেলার ধনারচর এলাকা থেকে শতাধিক ঘরবাড়ি সরিয়ে নিয়েছেন এলাকাবাসী। হুমকির মুখে পড়েছে ৫টি স্কুল, ঈদগাহ মাঠসহ কয়েকটি প্রতিষ্ঠান। উপজেলার অন্যতম বৃহৎ কর্তিমারী বাজার, ডিসি সড়ক ব্রহ্মপুত্র নদ থেকে মাত্র ৫’শ মিটার দুরে অবস্থান করছে। বর্ষা মৌসুম আসতে না আসতেই ব্রহ্মপুত্রের এ রুদ্র রূপ আগে কখনও দেখেনি মানুষ।

আজ বুধবার দুপুরের দিকে গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন ভাঙন এলাকা পরিদর্শণ করেছেন। এ সময় তিনি আশ্বাস দিয়েছেন নদী শাসনের। এ সময় স্থানীয় হাজার হাজার মানুষ প্রতিমন্ত্রীকে ঘিরে  বলেন, ‘এবাম আশ্বাস তো আগেও হুনছি, কাম তো হয় না। ড্রেজার দিয়া মাডি কাডনের জন্যি আইজকা আমাগো এ দশা। সাম্বাদিকরা আইছিলো, ড্রেজারে মাডি কাটন নিয়া মেলা লেহালেহি করছে। তহন ব্যবস্থা নিলি আইজকা এমুনডা হইতো না।’

ভাঙনের কবলে পড়া খাদেম আলী জানান, সুরুজ্জামাল নামের একজন নেতা প্রতিমন্ত্রীর বড় ভাই পরিচয়ে দীর্ঘ দিন ধরে যাদুরচর খেয়া ঘাটের ওই স্থান থেকে ১০/১২টি ড্রেজার দিয়ে গত ৬ মাস ধরে বালু উত্তোলন করে আসছেন। এ নিয়ে এলাকাবাসী বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ দিয়েও সুরাহা হয়নি। এরপরও সুরাজ্জামাল দোর্দান্ড প্রতাপের সাথে বালু উত্তোল করেছেন।

বীর মুক্তিযোদ্ধা সোহরাব আলী, আবু সামা, গিয়াস উদ্দিন, আব্দুল খালেকসহ অনেকে জানান, পত্রপত্রিকায় লেখালেখি হওয়ার পর রৌমারীর ইউএনও সাহেব ড্রেজারগুলোর পাইপ কেটে দিয়েছিলেন। পরবর্তীতে আবারও তারা পাইপ বসিয়ে বালু উত্তোল করেছেন। তারা বলেন, পানি আসতে না আসতেই যে ভাঙন শুরু হয়েছে তাতে মনে হয় এবার আর রক্ষা নেই। এভাবে ভাংতে থাকলে ডিসি সড়ক, কর্তিমারী বাজার, ৮/১০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, ৩টি ঈদগাহ মাঠ, ২টি কবরস্থানসহ অনেক সরকারী বেসরকারী প্রতিষ্ঠান ব্রহ্মপুত্রে বিলীন হয়ে যাবে।

ভাঙন নিয়ে কথা বললে রৌমারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আল ইমরান বলেন, পানি উন্নয়ন বোর্ডের সাথে আমার কথা হয়েছে,  দু’একদিন পর তারা এলাকা সফর করে ব্যবস্থা নেবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...