আজ ২৮শে ভাদ্র, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১২ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ ইং

বল্লমঝাড় ইউপি চেয়ারম্যান ঝন্টুর বিরুদ্ধে ব্যাপক অনিয়ম দুর্নীতির অভিযোগ

মোনায়েম মন্ডল  (বিশেষ প্রতিনিধি ) : গাইবান্ধা সদর উপজেলার বল্লমঝাড় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাহেদুল ইসলাম ঝন্টুর বিরুদ্ধে লক্ষ লক্ষ টাকা আত্মসাত সহ  ব্যাপক অনিয়ম দুর্নীতি ও  স্বেচ্ছাচারিতার চাঞ্চল্যকর অভিযোগ পাওয়া গেছে।

অভিযোগে জানা যায়, উক্ত ইউপি চেয়ারম্যান জাহেদুল ইসলাম ঝন্টু নির্বাচনে জয়লাভের পর থেকে গ্রাম্য শালিশে রহস্যজনক কারণে পক্ষ পাতিত্ব, ভিজিএফ, ভিজিডি কার্ডের তালিকা তৈরিতে অর্থ হাতিয়ে নেয়া ও চাল/গম বিতরণের সময় ওজনে কম দেয়া, কৌশলে উক্ত ভিজিএফ ভিজিডি’র বস্তা খালি করে নিয়ে ওই বস্তা বিক্রির টাকা পকেটস্থ করা, বিভিন্ন প্রকল্পের কাজ নিম্ন মানের করে সেই অর্থ আত্মসাৎ করা, যত্ন প্রকল্পের তালিকা তৈরিতে দূর্নীতি, জনগণের চিকিৎসা সুবিধার জন্য সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান কর্তৃক কেনা এ্যাম্বুলেন্সটি জনগণকে ব্যবহার করতে না দিয়ে ওই এ্যাম্বুলেন্সটি ভাড়া দিয়ে ভাড়ার টাকা আত্মসাৎ করার তথ্য পত্রিকায় প্রকাশিত হলে সেই এ্যাম্বুলেন্সটি এনে ইউনিয়ন পরিষদের সামনে ফেলে রেখে অযত্নে নষ্ট করার চাঞ্চল্যকর অভিযোগ রয়েছে।

এসব অনিয়ম দুর্নীতি করার জন্য তার ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামে সহযোগী হিসেবে নিজস্ব বাহিনী গড়ে তুলেছেন। এই বাহিনীর ভয়ে এলাকার কোন মানুষ প্রতিবাদ করার সাহস পায় না। কেউ প্রতিবাদ করলেই এই বাহিনীর সদস্যরা প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে আক্রমণ করে থাকে। এর মধ্যে ধানঘড়া এলাকার পলাশ নামের সন্ত্রাসী কম্পিউটার অপারেটর উল্লেখযোগ্য। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক নির্ভরশীল একটি সূত্র জানায়, উক্ত চেয়ারম্যান অনেক সময় বিশেষ বিশেষ কাজ এই কম্পিউটার অপারেটরকে দিয়ে করে নেন।

এদিকে চলতি বছরের সেপ্টেম্বর মাসে উক্ত চেয়ারম্যান জাহেদুল ইসলাম ঝন্টু আত্নসাতের উদ্দেশ্যে ইউনিয়ন পরিষদ ভবনের পিছনের একটি ইউক্লিপ্টাস গাছ কর্তন করলে গাইবান্ধা সদর উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) এসে হাতেনাতে আটক করে। এই গাছ আটকের প্রায় দুই মাস গত হলেও রহস্যজনক কারণে অদ্যাবধি তার বিরুদ্ধে কোনো সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি। এ ব্যাপারে বল্লমঝাড় ভূমি অফিসের তহশীলদার আতিকুর রহমান এক প্রশ্নের উত্তরে জানান, আমি গাছ কর্তন করার তথ্য আমার উর্দ্ধতন কতৃপক্ষের কাছে জানানোর দরকার ছিল- জানিয়ছি, আমার দায়িত্ব শেষ। চলতি ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরে এলজিএসপি-৩ প্রকল্পের এর অধীনে বল্লমঝাড় ইউনিয়ন পরিষদ সংলগ্ন বল্লমঝাড় বাজারে দুইটি শেট নির্মানের জন্য ১০ লক্ষ ৩২ হাজার ৮’শ ৬৯ টাকা বরাদ্দ করা হয়। এই প্রকল্পের প্রকল্প  চেয়ারম্যান বানানো হয়েছে ৯ নং ওয়ার্ড সদস্য মোঃ নছিবর রহমানকে। এই প্রকল্পে ইট, বালু, রড, সিমেন্ট সহ যে সব উপকরণ ব্যবহার করা হয়, তা সম্পূর্ণ নিম্নমানের এবং যান্ত্রিক পরীক্ষা নিরীক্ষা করলেই থলের বিড়ালের ন্যায় বেড়িয়ে আসবে বলে হাটুরেসহ এলাকার সচেতন জনগণ তাদের মতামতে জানান।
শুধু তাই নয়- এই শেড নির্মান প্রকল্পের সিডিউল মোতাবেক চালের ছাউনিতে মেহগনি বা শিশুকাঠ ব্যবহার করার কথা থাকলেও তা না করে ইউক্লিপ্টাস গাছের কাঠ ব্যবহার করা হয়েছে। বর্তমান বাজার দর মোতাবেক মেহগনি বা শিশুকাঠ দেড় হাজার থেকে দুই হাজার টাকা সিএফটি এবং ইউক্লিপ্টাস গাছ এক’শ ৩০ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ৩’শ/৪’শ  টাকা সিএফটি দরে কেনাবেচা হচ্ছে। ফলে এই প্রকল্পের ছাউনীর কাঠেই লক্ষ লক্ষ টাকা আত্মসাত  করা হয়েছে। এ ব্যাপারে প্রকল্প চেয়ারম্যান নছিবর রহমান জানান, প্রকল্পটি চেয়ারম্যান সাহেব  নিজেই বাস্তবায়ন করছে, যেহেতু চেয়ারম্যান সাহেব প্রকল্প চেয়ারম্যান হতে পারে না তাই আমাকে শুধু প্রকল্প চেয়ারম্যান বানানো হয়েছে, আমি এ কাজের ব্যাপারে কিছু জানিনা।
গতকাল ১৭ অক্টোবর বৃহস্পতিবার গাইবান্ধা সদর উপজেলা প্রকৌশল অফিসে উক্ত প্রকল্পের দায়িত্বে নিয়োজিত সংশ্লিষ্ট প্রকৌশলী মোঃ মোশাররফ হোসেন এর মতামত জানতে গেলে তাকে না পাওয়ায় তার মতামত জানা সম্ভব হয়নি। এ বিষয়ে সম্প্রতি চেয়ারম্যান জাহেদুল ইসলাম ঝন্টুর কাছে জানতে চাইলে তিনি কোনো প্রশ্নের উত্তর দিতে অপারগতা প্রকাশ করেন। শুধু তাই নয়, গত ১১ অক্টোবর/২০১৯ ইং তারিখে উক্ত শেড উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি আমাদের প্রতিনিধিকে প্রকাশ্য শত শত লোকের সামনে হুমকি প্রদান করেন। (চলবে)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...