আজ ২রা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৮ই অক্টোবর, ২০২১ ইং

তেঁতুলিয়ায় কাঞ্চন বাঁশ দিয়ে নতুনভাবে তৈরি হচ্ছে সৌখিন আসবাবপত্র বেকার যুবকদের ব্যাপক কর্মসংস্থানের সুযোগ

তেঁতুলিয়া (পঞ্চগড়) প্রতিনিধি ঃ তেঁতুলিয়ায় বিশেষ জাতের পাহাড়ী কাঞ্চন বাঁশ দিয়ে তৈরি হচ্ছে ঘরের সৌখিন আসবাবপত্র। বাঁশ শিল্পের মাধ্যমে বেকার যুবকদের ব্যাপক
কর্মসংস্থানের সুযোগ। অতিসম্প্রতি তেঁতুলিয়া উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) হারিয়ে
যাওয়া বাঁশ শিল্পকে নতুনভাবে জাগ্রত করার জন্য উদ্যোগ গ্রহণ করেন।

ইতোমধ্যে উপজেলার ৩০ জন বেকার যুবককে নীলফামারী বাঁশ গবেষণা ইনিষ্টিটিউটের সহযোগিতায় বাঁশ দিয়ে হস্তশিল্পের উপর প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করেন। প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত যুবকদের দ্বারা তিনি নিজ বাসায় ব্যবহারের জন্য কাঞ্চণ বাঁশ দিয়ে বাহারী ডিজাইনের খাঁট, টেবিল, ডাইনিং টেবিল, চেয়ারসহ বেশ কিছু দৃষ্টিনন্দন পণ্য তৈরি করে নিয়েছেন। জানা যায় তেঁতুলিয়া উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় দেশীয় বাঁশ বনের পাশাপাশি নতুন জাতের বম্বাই বা কাঞ্চন বাঁশ বনের কথা ইতোমধ্যে প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার সংবাদকর্মীদের মাধ্যমে প্রচারিত হয়। ফলে দেশের নানা প্রাপ্ত থেকে দেশী-বিদেশী পর্যটকরা এই বাঁশ বন দেখার জন্য ছুটে আসে এবং অনেকে চারাগাছ সংগ্রহ করে নিয়ে যান। দেশীয় বাঁশের তুলনায় কাঞ্চন বাঁশের বৈশিষ্ট কিছুটা আলাদা। বাঁশটি ২০-২২ ইঞ্চি প্রস্থ এবং ১০০ ফিট পর্যন্ত দৈর্ঘ্য হয়ে থাকে। দেখতে অনেকটা সুপারির গাছের মত মোটা। ভারতের লোকজনের কাছে বম্বাই বাঁশ নামে
পরিচিত হলেও তেঁতুলিয়া অঞ্চলে স্থানীয়ভাবে কাঞ্চন বাঁশ নামে পরিচিত। বাগান মালিকরা জানান-বাঁশ বাগানের বয়স যত বেশি হবে বাগানের আয়তন তত বেশি হবে। এ বাঁশের ব্যবহার এখন দিন দিন কমে যাচ্ছে। অনেকেই বাগান নষ্ট করে চা বাগানের করেছে। এখানে বম্বাই বাঁশ প্রচুর পাওয়া গেলেও অন্যান্য বাঁশের মত তেমন কোন ব্যবহার নেই। তাই এই এলাকায় এ বাঁশের চাহিদাও অনেকটা কম। দেশের গ্রাম-বাংলার আনাচে কানাছে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে নানা
প্রজাতির বাঁশ বন।

সরকারী কিংবা বেসরকারিভাবে পৃষ্ঠপোষকতা পেলে বাঁশ শিল্পের মাধ্যমে এ অঞ্চলের অর্থনৈতিক ভাগ্যের চাকা বদলে যাবে।

উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) মোঃ মাসুদুল হক এই প্রতিবেদকে বলেন, কাঞ্চন বাঁশের তৈরিকৃত সৌখিন আসবাবপত্র ২০ থেকে ২৫ বছর স্থায়ী করা সম্ভব। এজন্য দরকার স্বল্পমূল্যে কিছু রাসানিক সংমিশ্রণ।

পরিবেশ বান্ধব বাঁশের তৈরি ওইসব সৌখিন জিনিসপত্র ঘরের ঐতিহ্য প্রদর্শনের খুব অল্প সংখ্যক বিত্তশালী পরিবারের লোকেরা ব্যবহার করেন। এই বাঁশ শিল্পকে নতুন উদ্যোমে জাগ্রত করার জন্য সরকারি/বেসরকারিভাবে পৃষ্ঠপোষকতা প্রয়োজন। তবে স্থানীয় বাজারে চাহিদা পুরণ করে দেশে-
বিদেশে বিপনণ করা সম্ভব হবে। পাশাপাশি বেকার যুবকদের ব্যাপক কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...