আজ ২০শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৪ঠা জুলাই, ২০২০ ইং

মানবতার ফেরিওয়ালা ইয়াসমিন খাতুন

গাইবান্ধা প্রতিনিধি:  মরণব্যাধী করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সারা দেশেরন্যায় গাইবান্ধা জেলা যখন লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। ফলে নিম্ন আয়ের মানুষগুলো খেয়ে না খেয়ে দিন পার করছে।

একদিকে যেমন পেটের ক্ষুধা অন্যদিকে মরণব্যাধী করোনা ভাইরাসের আক্রমণ সবমিলিয়ে জনজীবন বিষন্ন হয়ে পড়েছে। দেশ এবং দেশের মানুষের কঠিন পরিস্থিতিতে নিজের জীবনের দিকে না তাকিয়ে জনগণের কল্যাণে এগিয়ে এসেছে গাইবান্ধা জেলার সাদুল্লাপুর উপজেলার ধাপের হাট এলাকার স্বাস্থ্য সহকারী ইয়াসমিন খাতুন।

স্বাস্থ্য সহকারী ইয়াসমিন করোনা প্রতিরোধে এলাকার মানুষের আতঙ্ক নিরসনে, সামাজিক সচেতন বৃদ্ধি ও হতদরিদ্র, কর্মহীন পরিবারের মাঝে নিজ অর্থায়নে খাদ্য সহয়তা প্রদান সহ বহুমুখী কাজের মাধ্যমে ইতিমধ্যে সুনাম অর্জন করেছে।

জানা যায় দেশে করোনার প্রাদুর্ভাবের পর হতে করোনা সংক্রমণ রোধে অজো পাড়া গায় এলাকার অসচেতন ব্যক্তিদের সচেতন করতে নিরলস ভাবে কাজ করে চলেছেন আবার সরকারী ত্রাণ যখন এক শ্রেণির লোক হরিলুটে ব্যস্ত ঠিক তখনি নিজের অর্থায়নে চাল, ডাল, আটা, আলু, সাবান ইত্যাদি বিতরনে ব্যস্ত সময় পার করছেন এই মহিসী নারী।

এই মহষী নারীর কাজ থেকে জানা যায়,তার থাকার মত বাসত বাড়ী ভিটা ছাড়া কিছু নেই এমনকি থাকার মত ঘর নেই তাই সে ভাড়া বাসায় থাকেন।মানুষের দূঃখ দুর্দশা দেখে নিজের কাছে কিছু না থাকলে পরিচিত আপনজনদের কাছ থেকে ধার দেনা করে হলেও মানুষের পাশ্বে দাড়িঁয়েছেন।এই ভাবে সে অনেক ধার দেনার মধ্যে পড়ে রয়েছেন।
শুধু তাই নয়, নিজ উদ্যোগে করোনা প্রতিরোধে সাদুল্লাপুরের ধাপেরহাট ইউনিয়নের ইসলামপুর গ্রামে গত কয়েক দিনে ঢাকা ফেরত ১০ জনের নমুনা সংগ্রহ করেছে ৬ সদস্যের একটি মেডিকেল টিম। নমুনা সংগ্রহ করে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করতে সহায়তা করেন। পাশাপাশি ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলা থেকে আগত লোকজনকে হোমকোয়ারেন্টানে রাখার ব্যবস্থা করেন।

এবিষয়ে ইয়াসমিনকে জিঙ্গাসা করলে বলেন- আমি নিজ উদ্যোগে করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে সংগ্রাম করে চলেছি, অবশ্য অনেক বাঁধার সম্মুখীন হয়েছি আবার অনেকের চোখে শত্রু কিন্তু আমার লক্ষ্য এই অঞ্চলের মানুষ গুলোকে ভাল রাখা, তাই পিছনে না তাকিয়ে সর্বস্ব দিয়ে কাজ করে যাচ্ছি।তিনি প্রশাসনসহ বিত্তবানদের এগিয়ে আসার আহবান করেন।

ধাপেরহাটের সুধীজন সাংবাদিক আমিনুল ইসলাম জানান – সাদুল্লাপুর উপজেলার সকল ইউনিয়নের মধ্যে সর্বোচ্চ সন্দেহভাজন ব্যক্তিদের নমুনা সংগ্রহ করে দুজনের শরীরে করোনা শনাক্ত করে এলাকাবাসীকে সর্বোচ্চ নিরাপত্তা দিয়েছেন সেই জন্য স্বাস্থ্য সহকারী ইয়াসমিন খাতুনকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। সেই সাথে দেশের এই ক্রান্তীলগ্নে নিজ উদ্যোগে নিজ অর্থায়নে খাদ্য সামগ্রী বিতরন ও দিন রাত পরিশ্রম করে করোনা প্রতিরোধে যে বিশেষ ভূমিকা রেখেছেন তার জন্য আমরা ধাপেরহাটবাসী শুধু নয় উপজেলাবাসীর কাছে অবিস্বরনীয় হয়ে থাকবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...