আজ ২০শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৪ঠা জুলাই, ২০২০ ইং

কুড়িগ্রামের মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক আব্দুল হাফিজ মিয়ার ২৪ তম মৃত্যু বার্ষিকী

নিজস্ব প্রতিবেদক এ টি এম মমতাজুল করিম : কুড়িগ্রামের মুক্তিযুদ্ধের  অন্যতম সংগঠক আব্দুল হাফিজ মিয়ার ২৪ তম মৃত্যু বার্ষিকী আজ।

মানুষ মরণশীল এটা ধ্রুবসত্য । কেউ চিরদিন বেঁচে থাকে না, মানুষ বেঁচে থাকে তাঁর কর্মে বা অমর কীর্তি সমূহের মাধ্যমে। তেমনি একজন অমর ব্যক্তিত্ব কুড়িগ্রাম জেলার আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা মরহুম আব্দুল হাফিজ বাচ্চা মিয়া। তিনি জেলার একজন বিশিষ্ট সমাজকর্মী ও রাজনীতিক হিসেবে তৎকালীন কুড়িগ্রাম মহকুমায় যে আত্নত্যাগ করেছেন তা সত্যি প্রশংসার দাবী রাখে। 

মরহুম আব্দুল হাফিজ বাচ্চা মিয়া ১৯১৬ ইংরেজী (বাংলা ১৩২৩ সালে ২১শে জৈষ্ঠ) সালে কুড়িগ্রাম জেলার উলিপুর থানায় রাজবল্লভ গ্রামে এক উচ্চ সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহন করেন। তার পিতা মরহুম করিম উল্লাহ কবিরাজ তৎকালে একজন জোদ্দার ছিলেন। তাঁর আপন বড়ভাই মরহুম আব্দুর রহমান মোখতার ১৯৬২ সালে প্রাদেশিক পরিষদের সদস্য  নির্বাচিত হয়েছিলেন। সে সময় মোখতার সাহেবের কুড়িগ্রাম মহকুমায় যথেষ্ট প্রভাব ছিল। তিনি
কুড়গ্রামের সার্বিক উন্নয়ন ও সাধারন জনগনের কল্যাণে আমৃত্যু কাজ করে গেছেন। মরহুম বাচ্চা মিয়া ১৯২৪ উলিপুর মহারানী স্বর্নময়ী হাই স্কুলে দশম শ্রেনীতে অধ্যয়নকালে অনুশীলন পার্টির সদস্য পদ লাভের মাধ্যমে রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন। ১৯৩৯ সালে দেশের বিশিষ্ট রাজনীতিক হোসেন শহীদ সোহরাওয়াদীর উলিপুরে জনসভা উপলক্ষে আগমনকালে সভার শান্তি শৃংখলা রক্ষায় তিনি অগ্রনী ভুমিকা রাখেন। তিনি ১৯৪৯ সালে আওয়ামী মুসলিম লীগের কুড়িগ্রাম মহকুমা কমিটির আহবায়ক ও পরবর্তীতে গঠিত আওয়ামী লীগের বৃহত্তর রংপুর অঞ্চলের অন্যতম সংগঠক হিসেবে দায়িত্বপালন করেন। তখন থেকেই আওয়ামী লীগ নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের সঙ্গে তাঁর  সুসম্পর্ক গড়ে উঠে এবং বঙ্গবন্ধুও তাকেও খুবই ভালবাসতেন এবং হাফিজ ভাই বলে ডাকতেন।

তিনি ১৯৫২-এর মহান ভাষা আন্দোলন, ১৯৬৯ এর গণঅভূন্থানে অংশগ্রহন করেন এবং ১৯৭১-এর মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক ছিলেন। মুক্তিযুদ্ধে তার নেতৃত্বে রৌমারির দইখাওয়া মুক্তিযোদ্ধা ক্যাম্প স্থাপিত হয়। মরহুম বাচ্চা মিয়া ১৯৭৪ ইং সালে আওয়ামী লীগের উলিপুর থানা শাখার সভাপতি, ১৯৭৬ সালে কুড়িগ্রাম মহুকুমা শাখার সভাপতি ও রংপুর জেলা শাখার সহ সভাপতি ছিলেন। তার অক্লান্ত পরিশ্রমের ফলে কুড়িগ্রাম এলাকা আওয়ামী লীগের অন্যতম ঘাটি হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করে। ফলে ১৯৭৩ সালে বাবু কানাই লাল, ১৯৯১ সালে আমজাদ হোসেন তালুকদার জাতীয় সংসদ সদস্য হতে পেরেছিলেন। ১৯৯৬ সালে ৬ষ্ঠ জাতীয় সংসদে তাঁর ধর্মকণ্যা মিসেস শাহনাজ সরদার সংরক্ষিত আসনের সদস্য
হন। বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে তিনি মহান মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক হিসেবে কাজ করার কারণে পাকিস্থানী হানাদার বাহিনী ও রাজাকাররা তাঁকে মেরে ফেলার সিদ্ধান্ত নিলে তিনি এলাকা ছেড়ে ভারতে গিয়ে আশ্রয় নেন। পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী তাকে না পেয়ে তার গ্রামের বাড়িতে অগ্নিসংযোগ করে লক্ষাধিক
টাকার সম্পদের ক্ষতিসাধন করে। এ কারনে পরবর্তীতে তার পরিবারে চরম দূর্ভোগ নেমে আসে। কিন্তু এর পরেও তিনি আওয়ামী লীগের আন্দোলন থেকে কখনও পিছপা হননি। তিনি নিজের পরিবারের চেয়ে সাধারন মানুষের ভাল মন্দের প্রতি বিশেষ নজর রাখতেন।

তিনি ১৯৭৪ সালে যশোরের এতিম মেয়ে অসহায় শাহনাজ সরদারকে ধর্ম কণ্যা হিসেবে গ্রহন করেন এবং রাজনীতিতে প্রতিষ্ঠার সুযোগ করে দেন। তিনি তাকে উলিপুর থানা আওয়ামী লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা পদে দায়িত্বভার প্রদান করেন এবং পরবর্তীতে শাহনাজ সরদার কুড়িগ্রাম জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী পদে অধিষ্ঠিত হন। তিনি আমৃত্যু শাহনাজ সরদারকে নিজের মেয়ের মতই দেখাশুনা করেছেন। মরহুম বাচ্চা মিয়া রাজনীতির পাশাপাশি বিভিন্ন সামাজিক কর্মকান্ডের সঙ্গে জড়িত ছিলেন। তিনি  উলিপুর বাজার দারুল হুদা জামে মসজিদ, গুনাইগাছ হাইস্কুল, উলিপুর মহারানী স্বর্নময়ী হাই স্কুল সহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা কমিটিতে ছিলেন। উলিপুর বিভিন্ন স্কুল কলেজ, মসজিদ মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠায় তাঁর অবদান অনস্বীকার্য।

তিনি ১৯৬৫-৬৭ সালে রাম দাস ধনিরাম প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকতা করেন। ১৯৭১ সালে মুজিব নগর সরকারের কাষ্টমস ইন্সপেক্টর হিসেবে কাজ করেন। কিন্তু রাজনৈতিক কারনে তিনি দীর্ঘদিন চাকুরীতে থাকতে পারেন নাই।

১৯৭৩ সালে তিনি জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হন। কিèতু স্থানীয় একটি মহলের বিশেষ অনুরোধে তিনি প্রতিদ্বন্দিতা থেকে সরে দাঁড়ালে পরবর্তীতে বাবু কানাইলাল সরকার নির্বাচনে জয়ী হন।

এভাবে তিনি নিজের স্বার্থ ত্যাগ করে অন্যের পথকে সুগম করে দিয়েছেন। অথচ নিজের জন্য কিছুই করেননি। রাজনৈতিক কারনে তিনি কারা বরন ও জেল জুলুম নির্যাতন সহ্য করেছেন। আওয়ামী লীগে তার সবচেয়ে ঘনিষ্ট রাজনৈতিক বন্ধু ছিলেন সাবেক রাষ্ট্রপতি মরহুম জিল্লুর রহমান, সাবেক প্রধানমন্ত্রী মিজান চৌধুরী, সাবেক স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী মহিউদ্দিন আহমেদ, সাবেক মন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক প্রমুখ।

২৭শে জুন ১৯৯৫ ইং সালে মৃত্যু বরন করেন এই বরেন্য সংগঠক ও রাজনীতিবিদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...