আজ ২৬শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৯ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ ইং

নানা অনিয়ম দূর্নিতির অভিযোগ সুন্দরগঞ্জের বাড়ইকান্দি সরঃ প্রাঃ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে

বিশেষ প্রতিনিধি: গাইবান্ধা জেলার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার দক্ষিন শ্রীপুর বাড়ইকান্দি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে স্কুল ফাঁকিসহ ব্যাপক অনিয়ম, দূর্নীতি, স্বেচ্ছাচারিতার চাঞ্চল্যকর অভিযোগ উঠেছে।।

অভিযোগে জানা যায়, উক্ত বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ কামরুজ্জামান সরকার এর বাড়ি বিদ্যালয় চত্বর থেকে মাত্র এক কিলোমিটার দুরে অবস্থিত হলেও তিনি ২০ কিলোমিটার দুরে গাইবান্ধা শহরে বসবাস করেন।

সপ্তাহে ২/৩ দিন বিদ্যালয়ে উপস্থিত হলেও

 এই ২০ কিলোমিটার পাড়ি দিয়ে বিদ্যালয়ে যাতায়াত করার কারনে বেলা ১১/১২ টার আগে একদিনও উপস্থিত হতে পারেন না।

এই প্রধান শিক্ষক এলাকায় প্রভাবশালী হওয়ায় তার বিরুদ্ধে কেউ ভয়ে মুখ খুলতে সাহস পায় না। ফলে বিদ্যালয়ে শিক্ষার মান দিন দিন ভেঙ্গে পড়ছে। শুধু তাই নয়, লেখাপড়ার মান না থাকায় এবং প্রধান শিক্ষকের নিজস্ব বাড়িটি তার বিদ্যালয়ের ক্যাচম্যান্ট এলাকার মধ্যে হওয়া সত্বেও নিজের ছেলেকে নিজ বিদ্যালয়ে ভর্তি না করে গাইবান্ধা শহরের নামি-দামি বিদ্যালয়ে ভর্তি করিয়েছে।

এদিকে উক্ত প্রধান শিক্ষকের দুর্নীতির দোসর শ্রীপুর ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ড সদস্য আসাদুজ্জামান আলমকে কৌশলে ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি বানিয়ে বিনা মিটিং এ স্লিপ প্রকল্পসহ বিভিন্ন ভাবে আগত সকল প্রকল্পের কাজ প্রধান শিক্ষক ও ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি একে অপরের সহযোগিতায় নিম্নমানের উপকরণ ব্যাবহার করে সিংহভাগ অর্থ আর্তসাৎ করে আসছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

সুত্র জানায়, উক্ত প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে একের পর এক অভিযোগ থাকলেও সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত জাতীয় শোক দিবস ২০২০ খ্রিঃ সামাজিক দুরুত্ব বজায় রেখে পতাকা উত্তোলন ও বিভিন্ন কার্যক্রম পালনের নির্দেশ থাকলেও প্রধান শিক্ষকের অবহেলা ও উদাসীনতার কারণে দিবসটি পালন করা হয়নি। এমনকি ম্যানেজিং কমিটিকে অবহিত করা বা প্রতিষ্ঠান খোলা রাখা কোনটিই করা হয়নি। এছাড়া বিগত দুই বছরে প্রধান শিক্ষক কর্তৃক নির্বাহী কমিটি নিয়ে কোন আলোচনা বা মিটিং করা হয়নি। এব্যাপারে বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির ৮ জন সদস্যসহ কমপক্ষে ২৮ জন এলাকাবাসী ও অভিভাবক গত ৩১ আগষ্ট/২০২০ ইং গাইবান্ধা জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা, সুন্দরগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তাসহ বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ দাখিল করেছেন।

তারা অভিযোগে আরো জানান, সাম্প্রতিক সময়ে বিদ্যালয়ের উন্নয়ন মূলক কাজের বরাদ্দকৃত অর্থ প্রধান শিক্ষক নিজের খেয়াল খুশি মত ইটসহ নিম্নমানের উপকরণ ক্রয় করে নিম্নমানের কাজ করে সিংহভাগ অর্থ আত্মসাত করেন।

এ ব্যাপারে গত ৫ সেপ্টেম্বর/২০২০ ইং তারিখে সরেজমিনে গেলে উপরে উল্লেখিত অভিযোগ গুলো সম্পর্কে এলাকাবাসী তাদের মতামতে সুনির্দিষ্ট ভাবে জানান। এ সময় এলাকাবাসীর অনেকেই জানান, সরকারী বরাদ্দকৃত পুষ্টিকর বিস্কুট বিদ্যালয়ে না রেখে নিজ বাড়ি থেকে বিতরণ করে থাকেন এবং শিক্ষার্থীদের নির্ধারিত পরিমানের চেয়ে অনেক কম বিতরণের অভিযোগ রয়েছে।

উপস্থিত এলাকাবাসীরা আরো জানান, এই পুষ্টিকর বিস্কুট প্রধান শিক্ষক তার বাড়িতে রেখে গরু মোটাতাজা করার জন্য গরুকে খাওয়ানোর অভিযোগ উঠেছে। এ বিষয় নিয়ে প্রধান শিক্ষকের সাথে স্থানীয় জনৈক আতাউর রহমান নামের এক ব্যক্তি কথা বলার জন্য গেলে তাকে প্রধান শিক্ষক জীবন নাশের হুমকি দেয়া হয় বলে জানান। পরে সংশ্লিষ্ট দপ্তর সমুহে অভিযোগ দেয়ার কারণে তার বিরুদ্ধে মামলা করারও হুমকি দিয়েছে বলে আতাউর রহমান অভিযোগ করেন।

এ ব্যাপারে ৬ সেপ্টেম্বর/২০২০ ইং সকাল ৮টা ৫৪ মিনিটে প্রধান শিক্ষক মোঃ কামরুজ্জামান সরকারের ব্যবহৃত ০১৭১৮-৯৩৫৬৮৪ নম্বর মোবাইল ফোনে কথা বলার জন্য কল দিলে তিনি সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে পরে কথা বলতে চেয়ে তড়িঘড়ি করে মোবাইল কেটে দেন। বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি স্থানীয় ৯নং ওয়ার্ড সদস্য আসাদুজ্জামান আলমের সাথে মোবাইলে কথা হয়। তিনি জানান, এটা পারিবারিক সত্রুতা। স্থানীয় এক ছেলের সাথে মনোমালিন্য হয়েছিল, এখান থেকেই এর সুত্রপাত। শ্রীপুর ক্লাস্টারের দায়িত্বে নিয়োজিত এটিইও রিপন হোসেন জানান, এ ব্যাপারে একটা অভিযোগ টিইও বরাবর এসেছে। দ্রুত তদন্ত অনুষ্ঠিত হবে। তদন্তে অভিযোগ প্রমানিত হলে অবস্যই ব্যাবস্থা নেয়া হবে।

সরকারী বরাদ্দকৃত বিস্কুট প্রধান শিক্ষক বিদ্যালয়ে না রেখে নিজ বাড়িতে রাখার বিষয়ে এক পশ্নের উত্তরে তিনি জানান, বিদ্যালয়ের বিল্ডিং না থাকার ক্ষেত্রে নিরাপত্তার স্বার্থে অনেক সময় এটা করা হয়, কিন্তু উক্ত বিদ্যালয়ের নিজস্ব বিল্ডিং রয়েছে। ওনার তো নিজ বাড়িতে রাখার কথা নয়, যাইহোক যেহেতু অভিযোগ এসেছে….!

সুন্দরগঞ্জ উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা হারুন অর রশিদ এর মতামত জানার জন্য তার ব্যবহৃত ০১৭১৮-৯৩৪৩১২ নম্বর মোবাইল ফোনে ৯টা ৪৩ মিনিটে কল দিলে তার মোবাইল ফোন বন্ধ থাকায় তার মতামত জানা সম্ভব হয়নি।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...