আজ ৬ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২২শে অক্টোবর, ২০২০ ইং

৪ পুলিশ হত্যা মামলা  আসামী জামাত নেতা আবুল কাশেম মন্ডলকে নলডাঙ্গা ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ পদে নিয়োগ দেয়া নিয়ে স্থানীয় দুইপক্ষের মধ্যে চরম উত্তেজনা

গাইবান্ধা প্রতিনিধি: গাইবান্ধায় ৪ পুলিশ হত্যা মামলাসহ ৭টি নাশকতা মামলার অন্যতম আসামী জামাত নেতা আবুল কাশেম মন্ডলকে নলডাঙ্গা ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ পদে নিয়োগ দেয়া নিয়ে স্থানীয় দুইপক্ষের মধ্যে চরম উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। অন্যদিকে পুলিশ হত্যা ও নাশকতা সহ বহু মামলার বিষয়টি পাশ কাটিয়ে কলেজের স্বার্থেই আবুল কাশেম মন্ডলকে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়েছে বলে দাবী একটি পক্ষের।

সাদুল্যাপুর উপজেলার নলডাঙ্গা ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ অবসরে যাওয়ায় পদটি শূণ্য হয়। শূণ্যপদে কলেজ পরিচালনা কমিটির সভাপতি তরিকুল ইসলাম নয়ন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল নিয়োগবিধি লংঘন করে এবং স্থানীয় সংসদ সদস্যের কথা অমান্য করার পাশাপাশি কলেজের শিক্ষকদের মধ্যে জ্যৈষ্ঠতার দিক থেকে ১৫ তম স্থানে থাকা ৪ পুলিশ সদস্যকে হত্যা মামলা সহ ৭টি নাশকতা মামলার অন্যতম আসামী জামাত নেতা আবুল কাশেম মন্ডলকে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ হিসেবে নিয়োগ দিয়েছেন। এ ঘটনায় এলাকার সাধারণ মানুষ ও সচেতন মহলে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। এক পর্যায়ে জামাত নেতা আবুল কাশেম মন্ডলের পক্ষে এবং বিপক্ষে দুইটি দল এলাকায় সক্রিয় হয়ে একে অপরের বিপক্ষে অবস্থান নেয়ায় সংঘর্ষের আশংকা দেখা দেয়। সরেজমিনে কলেজ ক্যাম্পাসে গিয়ে দেখা যায় স্বাধীনতার স্বপক্ষের শক্তিকে প্রতিহত করার জন্য এই জামাত নেতা আবুল কাশেমের ভাড়া করা লোকজন করোনা উপেক্ষা করেই পিকনিকের নামে দেশীয় লাঠি সোঠা নিয়ে মাঠে অবস্থান নিয়েছে। পরিস্থিতি মোকাবেলায় যেকোন ধরণের সংঘর্ষ এড়াতে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

স্থানীয় আওয়ামীলীগ সভাপতির সাথে কথা বললে তিনি জানান নলডাঙ্গা বামনডাঙ্গা এলাকা এমনিতেই জামাত অধ্যুষিত এবং ২০১৪ সালে বামনডাঙ্গায় যে চার পুলিশ সদস্যকে হত্যা করা হয়েছিল সেই হত্যা মামলার এজাহার ভুক্ত আসামীকেকেন এবং কি ভাবে এই কলেজের অধ্যক্ষের দায়িত্বদেয়া হয়। তিনি আরো জানান যতক্ষন পর্যন্ত এই অধ্যক্ষকে দায়িত্বথেকে অব্যাহতি দেয়া হবে না ততক্ষন পর্যন্ত আমরা আন্দোলন চালিয়ে যাব।

অভিযুক্ত ভারপ্রাপ্ত অধক্ষ্য আবুল কাশেমের সাথে কথা বললে তিনি চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়ে বলেন তিনি কোন কালেই জামাতের রাজনিতীর সাথে জড়িত ছিলেন না তাকে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য একটি পক্ষ এমন করছে।

নলডাঙ্গা ডিগ্রী কলেজ পরিচালনা কমিটির সভাপতি তরিকুল ইসলাম নয়নের সাথে কথা বললে তিনি একই তালে সুর মিলিয়ে বলেন শিক্ষকদের মধ্যে যোগ্য ব্যক্তি না থাকায় তাঁকে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। পাশাপাশি আক্ষেপের সুরে বলেন যাকে আজ যারা জামাত বলছেন তারাই কিন্তু এই আবুল কাশেমের সাথে ব্যবসা সহ নানা রকম সুবিধা নিচ্ছে।

এত কিছুর পরও যদি চার পুলিশ হত্যা মামলার আসামী এবং জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল নিয়োগবিধি লংঘন করে কলেজ কমিটি এমন হঠকারি সিদ্ধান্তে অটল থাকে তবে স্বাধীনতার বিপক্ষের শক্তিকে মাথা চাড়া দেবার সুযোগ করে দেয়া হবে তেমনি এই ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান টি মুখ থুবরে পড়বে বলে শংকা প্রকাশ করছে এলাকা বাসী।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...