আজ ২২শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৫ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ ইং

সরকারি আদেশ ছাড়াই রংপুরে প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলো খুলেছে!

রংপুর প্রতিনিধি : কমোলমতি শিশুদের স্কুল খুলেছে রংপুরে। শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি না থাকলেও নির্ধারিত সময়ে বিভাগের আট জেলার ১৯ হাজার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৫৯ হাজার শিক্ষক উপস্থিত ছিলেন। এতে শিক্ষা অধিদপ্তর বা মন্ত্রনালয়ের কোন লিখিত আদেশ না থাকায় করোনাকালিন দূর্যোগে শঙ্কায় পরেছেন অভিভাবকসহ সচেতন মহল।

রংপুররের পীরগাছা উপজেলার আরাজী দেবু সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, নেক মামুদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, নগরির গুপ্তপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, আদর্শপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ আরো অনেক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ও প্রধান শিক্ষক নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানিয়েছেন, হঠাৎ করে সোমবার রাতে মুঠফোনে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস থেকে জানানো হয় মঙ্গলবার সকাল সোয়া ৯টায় নিজ নিজ স্কুলে উপস্থিত হতে। শারীরিকভাবে অসুস্থ থাকলেও যথা সময়ে হাজির হতে হবে।

নগরির শালবনের বাসিন্দা এক শিক্ষক জানিয়েছেন, দু’দিন আগে করোনায়া আক্রান্ত হয়ে তার শ্বশুর মারা গেছেন। মঙ্গলবার সকাল থেকে তার গায়ে জ্বও দেখা দিয়েছে। তার অসুস্থতার খবর সংশ্লিষ্ট স্কুলের প্রধান শিক্ষকককে জানালেও কোন লাভ হয়নি। অসুস্থ শরীর নিয়ে তাকে যথা সময়ে স্কুলে উপস্থিত হতে হয়েছে। ফিরতে হয়েছে দুপুর ২ টায়। স্কুলে কোন কাজ না থাকলেও এলাকার অনেক মানুষ ও শিক্ষার্থীদেও অভিভাক দেখতে এসেছিলেন তাদের। এতে ছিলোনা কোন স্বাস্থ্যবিধি। বিভাগীয় শিক্ষা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মুজাহিদুল ইসলাম জানিয়েছেন, শিক্ষা সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে সোমবার দুপুরে প্রাথমিক ও গন শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের সচিব আসিবুল ইসলামের সাথে জোম মিটিংএ অংশ নেন দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের শিক্ষা কর্মকর্তারা।

এসময় তিনি মৌখিকভাবে নির্দেশ দেন শিক্ষকদের স্কুলে উপস্থিত হতে। দীর্ঘ দিনের দাপ্তরিক কাজ সম্পন্ন করে স্কুলগুলোকে পরিস্কার পরিচ্ছন্নতার মধ্যদিয়ে পাঠদান উপযোগী করতে। এসংক্রান্ত কোন লিখিত আদেশ পাওয়া যায়নি বলেও তিনি জানান।

রংপুর জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার শাহাজাহান সিদ্দিক জানিয়েছেন, জোম মিটিংএ তিনিও যুক্ত হয়েছিলেন, সচিবের নির্দেশ ও ভিাগীয় উপ-পরিচালকের সাথে কথা বলে জেলার আট উপজেলা ও সিটি করপোরেশ এলাকার ৩ হাজার ৪০ টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৯ হাজার শিক্ষককে স্কুলে যাবার পরামর্শ দেন। এই দূর্যোগে কতদিন শিক্ষকরা স্কুলে যাবেন তার সঠিক জবাব দিতে পারেননি এই শিক্ষা অফিসার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...