আজ ৩রা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৮ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ ইং

জাতিসংঘকে আফগানিস্তান নিয়ে নিশ্চয়তা দিলেন ইমরান খান

 

ডেক্স নিউজ : আফগানিস্তান নিয়ে জাতিসংঘকে নিশ্চয়তা দিয়েছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। আফগানিস্তানে জাতিসংঘের মানবিক কর্মকাণ্ডে অব্যাহতভাবে সমর্থন দেবে পাকিস্তান, জাতিসংঘের মহাপরিচালক অ্যান্তনিও গুতেরাঁকে এ বিষয়ে নিশ্চয়তা দিয়েছেন ইমরান। অন্যদিকে তালেবান নেতাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে শনিবার কাবুল পৌঁছেছেন পাকিস্তানের গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআইয়ের মহপরিচালক লেফটেন্যান্ট জেনারেল ফয়েজ হামিদ। তিনি আফগানিস্তানের সেনাবাহিনীকে পুনর্গঠনে তালেবানকে সহায়তা করবেন বলে জানানো হয়েছে। এসব নিয়ে জাতিসংঘ মহাসচিবের সঙ্গে টেলিফোনে কথা হয়েছে ইমরান খানের। এই সংলাপের বিষয়ে বিবৃতি প্রকাশ করেছে পাকিস্তান। তাতে বলা হয়েছে, জাতিসংঘকে আফগানিস্তানে মানবিক মিশনে মসৃণভাবে কর্মকা- চালাতে পূর্ণাঙ্গ সহযোগিতার কথা পুনরায় নিশ্চিত করেছেন ইমরান। এ খবর দিয়েছে অনলাইন ডন।

এতে আরো বলা হয়েছে, আফগানিস্তানে তালেবান শাসন নিয়ে বিশ্বজুড়ে উদ্বেগ রয়েছে। উদ্বেগ আছে দেশটিতে মানবিক সহায়তা পৌঁছে দেয়ার ক্ষেত্রে নিরাপদ পরিবেশ নিয়ে। গত ১৫ই আগস্ট আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখল করে তালেবানরা। এর আগেই বিশ্বের বেশির ভাগ ত্রাণ সংস্থা তাদের কর্মকা- গুটিয়ে নেয় দেশটি থেকে। ফলে আফগানিস্তানে বড় ধরণের মানুবিক সঙ্কট আসন্ন। বেশির ভাগ বড় দাতার সহায়তা স্থগিত করা এবং বিশ্বব্যাংক, আন্তর্জাতিক অর্থ তহবিলের পেমেন্ট স্থগিত করে রাখার ফলে আফগানিস্তানে অর্থনৈতিক টালমাটাল অনতিক্রম্য হয়ে পড়েছে। যদি তাই ঘটে, তাহলে মানবিক সঙ্কট তীব্র হয়ে উঠতে পারে।

কিছু কিছু দেশ এরই মধ্যে আফগানিস্তানে মানবিক সহায়তার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। তারা আরো প্রতিশ্রুতি দিয়েছে যে, এসব মানবিক ত্রাণ দেয়া হবে ত্রাণ বিতরণকারী সংস্থাগুলোর মাধ্যমে। ফলে এসব ত্রাণ জনগণের কাছে পৌঁছে দেয়ার জন্য পরিবেশকে নিরাপদ করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আগেভাগেই বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মাধ্যমে আফগানিস্তানে শিপমেন্ট পাঠিয়ে সহায়তা করেছে পাকিস্তান। বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচির একই রকম আয়োজনও কাজ করছে। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান আফগানিস্তানে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের জড়িত হওয়ার ওপর গুরুত্ব দিয়েছেন। অগ্রাধিকার দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন মানবিক চাহিদা পূরণের এবং অর্থনীতিকে স্থিতিশীল রাখার। তিনি বলেছেন, এসব পদক্ষেপ শুধু নিরাপত্তাই নিশ্চিত করবে এমন নয়। একই সঙ্গে আফগানিস্তান থেকে অন্য দেশে গণহারে মানুষের দেশ ছাড়া বন্ধ হবে। এতে শরণার্থী সঙ্কট সমাধান হবে।

এখন পর্যন্ত খুব কম আফগানই দেশ ছেড়ে অন্য দেশে শরণার্থী হিসেবে আশ্রয় নিয়েছেন। কিন্তু তাদের ঢল নামার এক আতঙ্ক এখনও বিরাজ করছে। গত সপ্তাহে শরণার্থী বিষয়ক জাতিসংঘের সংস্থা বলেছে, বছরের শেষ নাগাদ অন্য দেশে ৫ লাখ আফগান পালিয়ে গিয়ে আশ্রয় নিতে পারেন।

এ অবস্থায় জাতিসংঘ মহাসচিবের সঙ্গে টেলিফোন সংলাপে আফগানিস্তানে গত ৪০ বছর ধরে নানা রকম যুদ্ধের ইতি টানার একটি সুযোগ এসেছে বলে মত তুলে ধরেন। বলেন, এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে আফগানিস্তানে টেকসই শান্তি, নিরাপত্তা এবং সমৃদ্ধি অর্জন সম্ভব হতে পারে।

ওদিকে আফগানিস্তান সফরে রয়েছেন আইএসআই প্রধান। তিনি সেখানে তালেবান নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করবেন। তাদের কাছে পাকিস্তান এবং আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের উদ্বেগ তুলে ধরবেন। তবে তার এই সফর গোপনে হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু কাবুলের একটি হোটেলে রাষ্ট্রদূত মানসুর আহমেদ খান ও অন্য কর্মকর্তাদের সঙ্গে চা পানের সময় তাকে দেখা গেছে। এ খবর প্রকাশ হওয়ার পরই বিষয়টি প্রকাশিত হয়ে পড়েছে। তাদের ওই চা পানের একটি ছবি ধারণ করেছেন সাংবাদিকরা। তা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। গত সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ’র পরিচালক উইলিয়াম বার্নসও কাবুল সফর করেন। তিনি সাক্ষাত করেছেন তালেবান নেতা আবদুল গণি বারাদারের সঙ্গে।

এ সময় পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কুরেশি বলেছেন, তালেবানরা এমন এক বাস্তবতায় চলে এসেছে যে, কাবুল এবং পাকিস্তানের হাতে আর কোনো বিকল্প নেই। তাদেরকে একসঙ্গে কাজ করতেই হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...