আজ ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৪ই জুন, ২০২১ ইং

পাসপোর্ট করতে এসে রোহিঙ্গা নারী আটক

 শরীয়তপুর আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে পাসপোর্ট করতে এসে এক রোহিঙ্গা নারী আটক হয়েছে। রোহিঙ্গা নারীর সাথে আসা নকল স্বামী পালিয়ে গেছে। এঘটনায় পালং মডেল থানায় মামলা হয়েছে।

গতকাল ৬ নভেম্বর বুধবার বেলা ১২টার দিকে শরীয়তপুর আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে এ ঘটনা ঘটেছে। পাসর্পোট ফরম জমা দেয়ার সময় কাউন্টার থেকে ঐ রোহিঙ্গা নারীকে আটক করা হয়। রোহিঙ্গা নারী আটকের উপস্থিতি টের পেয়ে সাজানো নকল স্বামী বাংলাদেশের নাগরিক বাবুল ফকির ঘটনাস্থল থেকে দ্রুত পালিয়ে যায়।
আটককৃত রোহিঙ্গা নারীর ছদ্যনাম ছিল শাহিদা আক্তার। জানাগেছে ঐ নারী মিয়ানমারে সুখতারা নামে পরিচিত ছিল । জাজিরা উপজেলার পালেরচর ইউনিয়নের মহন ফকিরের কান্দি গ্রামের বাবুল ফকিরের স্ত্রী পরিচয়ে পাসপোর্ট করতে আসে। গোয়েন্দা সংস্থা ডিজিএফআই ও এনএসআই আটককৃত রোহিঙ্গা নারীকে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে পাসপোর্ট কর্তৃপক্ষ পালং মডেল থানায় সোপর্দ করেছেন।

শরীয়তপুর আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস সূত্রে জানাযায় ৬ নভেম্বর বুধবার বেলা ১১টার দিকে নকল স্বামী বাবুল ফকির ও তার স্ত্রী পরিচয়ে শাহিদা আক্তার দুটি পাসপোর্টের পরিপূর্ণ ফরম পুরন করে জমা দেয়ার জন্য লাইনে দাঁড়ায়। প্রথমে শাহিদার স্বামী পরিচয়ে বাবুল ফকির ফরম জমা করে। পরবর্তীতে শাহিদা ফরম জমা দেয়। ফরম জমা নেয়ার দায়িত্বে থাকা কর্তব্যরত সহকারী হিসাব রক্ষক শাহিদার তথ্য গ্রহণ কালে স্বামী ও গ্রামের নাম ছাড়া বাংলায় আর কিছু বলতে পারে না পারায়, তাৎক্ষণিকভাবে ঘটনাস্হল হতে শাহিদা নামের ঐ রোহিঙ্গা নারীকে আটক করা হয়। এ সময় শাহিদার সাজানো নকল স্বামী বাবুল ফকির ঘটনাস্হল থেকে পালিয়ে যায়। শাহিদা নামে পূরণকৃত পাসপোর্ট ফরম থেকে জানাযায়, সে শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলার পালের চর ইউনিয়ন পরিষদ থেকে জন্ম সনদ ও পরিচয়পত্র নিয়েছেন। পালের চর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মতিউর রহমান নিবন্ধক হিসেবে শাহিদার জন্ম সনদ ও পরিচয়পত্রের নিচে নিবন্ধকের নাম সীল মোহরসহ স্বাক্ষর করেছেন। পাসপোর্ট ফরম ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সত্যায়ন করেছেন পূর্বনাওডোবা আইডিয়াল কিন্ডার গার্টেন এন্ড হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক ফাহাদ হোসেন সৌম্য।

আটকৃত রোহিঙ্গা নারী জানায়, বাবুল ফকিরের সাথে তার চট্টগ্রামে দেখা হয়। বাবুল ফকির ওই নারীকে মালয়েশিয়া পাঠানোর কথা বলে শরীয়তপুর নিয়ে আসে। সকল কাগজ পত্র বাবুল ফকির প্রস্তুত করে এবং তার স্ত্রী পরিচয়ে পাসপোর্ট করার জন্য পাসপোর্ট অফিসে নিয়ে আসে।

শরীয়তপুর আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের উপ-পরিচালক শেখ মাহাবুর রহমান বলেন, এক নারী পাসপোর্ট করার জন্য অফিসে এসে ফরম জমা করে। তার আচরণ ও গতিবিধি সন্দেহজনক ছিল। সে শেখানো কয়েকটি বাংলা ভাষা ছাড়া আর কিছুই বলতে পারেনি। সন্দেহ হওয়ায় তাকে আটক করা হয়। এ সময় তার সাথে থাকা স্বামী পরিচয়ের এক ব্যক্তি পালিয়ে যায়। ওই নারী রোহিঙ্গা নাগরিক বলে স্বীকার করে। আটক কৃত নারীকে পালং মডেল থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে। এ বিষয়ে প্রচলিত আইনে মামলার প্রস্তুতি চলছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...