আজ ৭ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২১শে জুন, ২০২১ ইং

দুইমাস পর কবর থেকে কলেজ ছাত্রী সালমার লাশ উত্তোলন

কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে ধর্ষণ ও হত্যার অভিযোগ এনে দাফনের প্রায় দুইমাস পরে কবর থেকে সালমা (১৯) নামক এক কলেজ ছাত্রীর লাশ উত্তোলন করেছে পুলিশ। আজ বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাজীবুল ইসলাম খানের উপস্থিতিতে পান্টি ইউনিয়নের বাগবাড়ীয়া ওয়াশী যৌথ কবরস্থান থেকে লাশ উত্তোলন করা হয়। সালমা পান্টি ডিগ্রী কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রী ও বাগবাড়ীয়া গ্রামের মোঃ সবদার জোয়াদ্দারের কন্যা ছিলেন। এবিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাজীবুল ইসলাম খান জানান, বিজ্ঞ আদালতের নির্দেশ অনুসারে লাশ উত্তোলন করেছে পুলিশ। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এস আই কামরুল হাসান জানান,বাদির আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বিজ্ঞ আদালতের নির্দেশ অনুসারে পুর্ণ তদন্তের জন্য লাশ উত্তোলন করা হয়েছে। জানা যায়, মামলার বাদি পক্ষের ততকালীন সুরত হাল রিপোর্ট মনপুত না হওয়ায় কুষ্টিয়ার বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলী ২য় আদালতে লাশ পূর্ন সুরত হাল ময়না তদন্তের জন্য আবেদনের প্রেক্ষিতে লাশ উত্তল করা হয়। লাশ উত্তোলন শেষে এলাকাবাসী সালমা হত্যার সুষ্ঠ বিচার ও হত্যাকারিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করেন। লিখিত এজাহার সুত্রে জানা যায়, পান্টি ডিগ্রী কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র মোঃ শাকিল (২১) সালমার সাথে প্রেমের অভিনয় করে নানাভাবে উত্যক্ত করিতে থাকে।এক পর্যায়ে ভাল সমন্ধ আসায় সামাজিকভাবে সালমাকে অন্যত্র বিয়ে দেওয়া হয়। সালমা স্বামী ঘরে সংসার করতে থাকিলে শাকিল নানাভাবে হুমকি দেয় এবং স্বামীকে ছেড়ে আসার কথা বলে। সালমা শাকিলের কথায় কান না দেওয়ায় তার স্বামীর নিকট বিভ্রান্তমূলক কথা বার্তা বলে এবং এক পর্যায়ে সালমার সংসারে সংঘাত দেখা দেয়। এরপর গত ২৯/০৮/১৯ ইং তারিখে সালমা এইচ এস সি পরীক্ষার রেজাল সীট তোলার জন্য কলেজে গেলে শাকিল তার পিছু নেয় এবং স্বামীকে তালাক দিয়া শাকিল কে বিয়ের জন্য চাপ দেয়।এরইমাঝে শাকিলের বাড়াবাড়ীতে স্বামীর সহিত স্বাভাবিক সম্পর্ক না থাকার সংশয়ে সালমা স্বামীকে তালাকের নোটিশ পাঠায়। এরপর গত ০৯/০৯/১৯ ইং তারিখে সকালে সালমাকে বাড়ীতে না পাওয়া গেলে খোঁজাখুঁজির এক পর্যায়ে সকাল সাড়ে ৯ টার সময় সালমাকে মৃত অবস্থায় শাকিলের বসত ঘরে আড়ার সহিত ওড়নার পেঁচানো ঝুলন্ত অবস্থায় পাওয়া যায়। এঘটনায় সালমার বাবা জোয়াদ্দার বাদি হয়ে শাকিল সহ মোট সাত জনের বিরুদ্ধে কুমারখালী থানায় একটি মামলা দায়ের করে।মামলা নং ১০, তাং ১২/০৯/১৯।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...