আজ ১লা আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৫ই জুন, ২০২১ ইং

গোপালগঞ্জ থেকে হারিয়ে যাচ্ছে শান বাধানো পুকুরঘাট

শান বাধানো পুকুরঘাট, এক সময় রাজা মহারাজা কিংবা গ্রামীণ মোড়লদের বাড়ির সামনে দেখা যেত। এটি তাদের ঐতিহ্যের ধারকও ছিল। গ্রাম কিংবা শহর দুটোতেই এটি ছিল গৌরবের নির্দশন। কিন্তু এখন তা অতীত কাহিনী। যে গুলোও আছে সংস্কারের অভাবে সে গুলো নষ্ট হয়ে গেছে। পুকুর পাড়ে বসবাসকারীরা ময়লা আবর্জনা ও গোয়াল ঘরের গোবর ফেলায় পানি ব্যবহারের অনুপোযোগী হয়ে পড়েছে। তাছাড়া মানুষের বসতি স্থাপনে হারিয়ে যাচ্ছে সে সব পুকুর। শহর ও মফস্বল থেকে অনেক আগেই হারিয়ে গেছে সেই ঐতিহ্য।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, শান বাধানো পুকুরঘাটে পঞ্চায়েত প্রধান কিংবা মোড়লরা তাদের বিচার কার্য সম্পন্ন করতেন। শীতের মৌসুমে গ্রামীণ সমাজে চায়ের আড্ডা দেখা যেত পুকুর ঘাটে। নানা গল্পের ফুলঝুড়িও চলতো সেখানে। বাড়ির খাবারের অন্যতম স্বাদ ছিল পুকুরের তাজা মাছ। কিন্তু আজ ফিশারির মাছই সবার ভরসা। তাও আবার ফরমালিনে সজ্জিত।সমাজের পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে মফস্বলে কমে গেছে পুকুর। খুঁজে পাওয়া দায় শান বাধানো ঘাট। এখন আর পুকুর ঘাটে রোদ পোহাতে দেখা যায় না। সে সব মুহূর্তগুলো আজ চার দেওয়ালের মাঝেই বন্দি। কারণ মানুষের বসবাস আর ব্যবসায়িক চিন্তা ধারায় হারিয়ে যাচ্ছে ঐতিহ্যবাহী পুকুর ও শান বাধানো ঘাট। তবে এখনো কিছু কিছু জায়গায় দেখা মিলে সে সব পুকুরঘাটের। যেমন পুরনো জমিদার বাড়ি, গ্রামের ধর্ণাঢ্য ব্যক্তি কিংবা ঐতিহ্যবাহী বাড়ির সামনে।

অনেক পুরাতন বাড়ির সামনে এখনো অনেক শান বাধানো ঘাট দেখা যায়। এলাকার লোকজন গোসলসহ বিভিন্ন কাজে পুকুরের পানি ব্যবহার করতো। আগে অনেকগুলো পুকুর ছিল, এখন কমে গেছে। আর আনেক পুকুরঘাটের মসজিদটিতে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়ানো হতো। পথচারীদেরও নামাজ পড়তে সুবিধা হতো। সকালে মসজিদের মক্তবের শিশু কিশোররা আরবী শিক্ষা গ্রহণ করতো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...