আজ ১৩ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৭শে মে, ২০২২ ইং

করোনায় সংবাদকর্মির আবেগের মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক (লিটন মাহমুদ): দেশের এমন দূর্যোগে গণমাধ্যমের একজন সাধারণ কর্মি হিসেবে প্রতিনিয়ত ছোটাছুটি করতে হয় আমাকে। একি অবস্থা প্রতিটি হাউজে কাজ করা সংবাদ কর্মিদেরও। জাতীর এই দুঃসময়ে সবাইকে নিরাপদ রাখতে ও সঠিক সংবাদটি তুলে ধরতে ঝুঁকি নিয়ে কাজ করে যাচ্ছি আমরা গণমাধ্যমের শ্রমিকরা। প্রায় সব সেক্টরই কম বেশি প্রণোদনাসহ সাহায্য সহযোগিতা পেলেও এখন পর্যন্ত গণমাধ্যম বা এর সাথে জড়িত কর্মিরা কোন কিছুই পায়নি। সরি, ও হ্যা আমরা পেয়েছি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ধন্যবাদ। আর আমার মনে এতেই আমরা সন্তুষ্ট সবাই। গতকাল (৭ই এপ্রিল) নিম্ন আদালতে সংবাদ সংগ্রহ শেষে যখন বাড়ি ফিরছিলাম সে সময় কয়েকবার হাঁচি দিলাম (অবশ্যই সকলের আড়ালে জনশূন্য স্থানে)। বাসায় ফিরতে ফিরতে ভাবছিলাম এই ঘাতক ভাইরাসের ছোবল থেকে আমি কি আমার পরিবারকে নিরাপদ রাখতে পারবো? এমন ভাবনা থেকে বাড়িতে পৌঁছে আলাদা একটি ঘর বেছে নিলাম। সেটি লকডাউন করলাম যাতে সন্তনরা ও পরিবারে কেউ আমার কাছে আসতে না পারে। এভাবে নিজই নিজেকে বন্দি করলাম। আর মনে মনে প্রতিজ্ঞা করলাম যতদিন আমি বাইরে সংবাদ সংগ্রহের জন্য বের হবো তত দিন এভাবেই পরিবার পরিজন থেকে বিচ্ছিন্ন থাকবো। তবে দুই ঘন্টা পর বুঝতে পারলাম কত কঠিন সিদ্ধান্ত আমি নিয়েছি। আমার আপনজনরা সবাই পাশের ঘরে থাকলেও কারো কাছেই যেতে পারছিনা। প্রান খুলে কথা বলতে পারছিনা তাদের সাথে। বেশি কষ্ট হচ্ছে ছোট্ট মামণিটার জন্য। বাসায় থাকলে বাবার কাছে তার কত আবদার, কত বায়না, কত অভিযোগ। আজ সে আমাকে ঠিক মতো একটু দেখতেও পারছেনা। তাই বার বার বাবার কাছে ছুটে আসতে চাইছে আমার নিষ্পাপ মেয়েটি। দূর থেকে বাবাকে একবার দেখবে মায়ের কাছে বার বার আকুতি জানাচ্ছে। এরই মধ্যে দরজা খুলে দিলে দূর থেকে আমাকে একবার দেখে গেছে। তারপরও ওর ছোট্ট মনটি হয়তো মানতে চাইছেনা কোন দূরত্ব। কিছুতেই পেরে না ওঠে বার বার ভিডিও কল দিচ্ছে। আর আমাকে প্রশ্ন করছে বাবা আমি কি অপরাধ করেছি? তুমি আমার সাথে রাগ করেছো কেন? আমার কাছে আসছো না কেন? এরকম হাজারো প্রশ্ন? আমি তার কথার কি উত্তর দিব বুঝে উঠতে পারছিনা। সব কিছু ওলটপালট লাগছে। আবার কিছুক্ষণ পর কল দিয়ে বলছে রাতে আমি তোমার সাথে ঘুমাতে চাই বাবা। মেয়ের এমন আকুতি আমার বুকের ভিতর দুমড়ে মুচড়ে যাচ্ছে। একজন পিতা হয়েও আমি কত অসহায় বোধ করছি তা একজন বাবা আর সন্তানরাই হয়তো বুঝবেন। তবে এর চেয়ে বেশি কষ্ট পাই যখন দেখি প্রতিনিয়ত করা আমাদের এসব ত্যাগ কোন কাজই আসছে না। কারণ খামখেয়ালিপনা আর উদাসিনতা। সব সতর্কতা উপেক্ষা করে ইচ্ছে মতো হাটে, ঘাটে ও রাস্তায় ঘুরে বেড়াচ্ছে আমাদের সমাজের কিছু মানুষ। তাদের কাছে আমার প্রশ্ন, আর কত মানুষ ৯ ঘন্টা ধরে রাস্তায় মৃত অবস্থায় পারে থাকলে আপনারা সচেতন হবেন, সতর্ক হবেন? আর কত বাবা তার মেয়ে কাছ থেকে দূরে থাকলে আপনারা সাবধান হবেন? আর কত মানুষ পরিবারের লোকজন ছাড়া দাফন- কাফন ও মাটি দিলে আপনারা বুঝবেন? দেশটা মৃত্যু উপত্যকা পরিণত হলে কি আপনাদের বোধ উদয় হবে? এখনও সময় আছে নিজেকে ও আপনার পরিবারকে রক্ষা করতে ঘরে থাকুন। নিজে নিরাপদ থাকুন আশপাশের সবাইকে নিরাপদ রাখুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...