আজ ২৯শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১২ই জুন, ২০২১ ইং

লিবিয়ায় গুলিতে আহত সাজিদের পরিবারে উদ্বেগ-উৎকন্ঠা

ফরিদপুর প্রতিনিধি: গত ২৮ মে লিবিয়ায় গুলিতে মারাত্মকভাবে আহত যুবক সাজিদ বিলুয়ার বাড়ী ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলার কালামৃধা ইউনিয়নের দোলকুন্দি গ্রামে। গুলিতে সে মারাত্বক ভাবে আহত হয়।

এ খবর তাদের বাড়িতে আসার পর থেকে পরিবার ও আশপাশের প্রতিবেশিরা উদ্বেগ-উৎকন্ঠায় দিন কাটাচ্ছে। বর্তমানে সাজিদ লিবিয়ার বেনগাজী শহরে একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে বলে জানা গেছে। সাজিদ বিলুয়ার বাবা বেলায়েত বিলুয়া, মা সাগরী বেগম ছেলে আহত হওয়ার খবরে ভেঙ্গে পড়েছেন। সেই সাথে সাজিদের আহত হওয়ার খবরে দিশেহারা হয়ে পড়েছে পুরো পরিবার। লিবিয়ায় মানব পাচারকারীদদের গুলিতে নিহত ২৬ বাংলাদেশি ছাড়াও বেশ কয়েকজনের মধ্যে সাজিদ গুলিতে গুরুতর আহত হন। সাজিদের পরিবার আহতদের চিকিৎসার পাশাপাশি সরকারী সহযোগীতা এবং দালাল চক্রের উপযুক্ত বিচার দাবী করছেন। সাজিদের পরিবারের সদস্যরা জানান, দালালের কথা মতো ধারদেনা ও দাদনের মাধ্যমে সাড়ে চার লাখ টাকা জোগার করে গত ডিসেম্বর মাসে ছেলেকে পাঠিয়েছিলেন বিদেশে।

লিবিয়া থেকে দালালরা ফোন করে ১০ লাখ টাকা দাবি করার পর লিবিয়ার একটি শহরে তাকে আটকে রেখে নির্যাতন শুরু করে। সময়ের সাথে টাকার অংকও বাড়ে এবং অত্যাচারের মাত্রা বেড়ে যায়। এক পর্যায়ে মিজদা শহরের একটি জনাকীর্ণ জায়গায় ২৬ বাংলাদেশিকে গুলি করে হত্যা করে জিম্মিকারীরা ।

সেখান থেকে অন্যান্য আহতরা জীবন বাঁচাতে দৌড়াতে থাকে। দৌড়ে পালিয়ে ভাগ্যক্রমে বেঁেচ যায় সাজিদ। সেখান থেকে জনৈক কয়েক বাংলাদেশী তাকে উদ্ধার করে ভর্তি করে বেনগাজীর একটি হাসপাতালে। মোবাইল ফোনে হাসপাতাল থেকে জানানো হয়, সাজিদ এখনও শংকামুক্ত নন। সাজিদের ভাই রাজিব জানান, লিবিয়ার বেনগাজী শহরে যাওয়ার পর জেলার নগরকান্দা উপজেলার আবু বক্কর, সালাম মিয়ার মাধ্যমে ত্রিপোলী থেকে সাগর পথে ইটালী যাওয়ার জন্য দালালদের সাথে চুক্তিবদ্ধ হয়। এরপর তাকে সহ বেশকিছু বাঙালীকে জিম্মি করে টাকা চাওয়া হয়। টাকা দিতে না পারায় তাদের উপর নির্মম নির্যাতন চালানো হয়।

কালামৃধা ইউ,পি চেয়ারম্যান লিটন মাতুব্বর বলেন, সংঘবদ্ধ দালালচক্র এলাকার যুবকদের প্রলোভন দেখিয়ে অবৈধভাবে সাগরপথে বিদেশে নিয়ে প্রানহানি ঘটাচ্ছে। অনিশ্চয়তায় পড়ে মূল্যবান জীবনহানির পাশাপাশি পরিবারগুলো নিঃস¦ হয়ে পড়েছে। এসব দালালচক্রের বিরুদ্বে অবিলম্বে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহন করার দাবী জানান তিনি । ভাঙ্গা থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃ শফিকুর রহমান বলেন, এ ঘটনার পর ভাঙ্গা থানা পুলিশের একটি দল পরিবারটির বাড়িতে গিয়ে সার্বিক খোঁজ-খবর নিয়েছে। আমাদের পক্ষ থেকে পরিবারটিকে সব ধরনের সহযোগিতা দেওয়া হবে। অন্যদিকে দালালচক্র যারা ঘটনায় জড়িত তাদের খুঁজে বের করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...