আজ ১০ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৪শে জানুয়ারি, ২০২১ ইং

মানসিক অসুস্থতা নিয়ে দেশে ফিরছেন অনেক প্রবাসী

ডেক্স নিউজ : সংসারে সচ্ছলতার আশায় জীবিকার তাগিদে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে পাড়ি জমান বাংলাদেশি শ্রমিকরা। এদের মধ্যে অনেকেই বিদেশে গিয়ে নানাভাবে প্রতারণার শিকার হচ্ছেন। বিশেষ করে নারী শ্রমিকরা বঞ্চনা আর শারীরিক নির্যাতন সইতে না পেরে হারিয়ে ফেলছেন মানসিক ভারসাম্য। ফলে প্রতিনিয়তই বাড়ছে মানসিক অসুস্থ হয়ে দেশে ফেরা প্রবাসী কর্মীর সংখ্যা। গত দুই দিনে মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে জর্ডান ও দুবাই থেকে ফিরেছেন দুই বাংলাদেশি কর্মী।

বিমানবন্দরের প্রবাসী কল্যাণ ডেস্ক ও অভিবাসন নিয়ে কাজ করা ব্র্যাকের হিসাব বলছে, মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে গত এক মাসে দেশে ফিরেছেন ১১ জন, যাদের মধ্যে ১০ জনই নারী গৃহকর্মী। এ ছাড়া গত দুই বছরে মানসিক অসুস্থ হয়ে দেশে ফেরত এসেছেন ৬৩ জন। এর মধ্যে নারীকর্মী ৫৮ জন, পুরুষ ৫ জন। বিমানবন্দর পুলিশের সহায়তায় তাদের পরিবারকে খুঁজে বের করে হস্তান্তর করেছে ব্র্যাক।

এ প্রসঙ্গে গবেষণা প্রতিষ্ঠান রিফিউজি অ্যান্ড মাইগ্রেটরি মুভমেন্ট রিসার্চ ইউনিটের (রামরু) চেয়ারপারসন এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক তাসনিম আরেফা সিদ্দিকী বলেন, বৈশ্বিক মহামারী করোনাকালে প্রবাসী শ্রমিকরা যে সংকটময় অবস্থা পার করছেন তাতে মানসিক ভারসাম্য হারানোটা খুবই স্বাভাবিক। করোনাকালে কাজ নেই, খাওয়া নেই, বাসা ভাড়া দিয়ে টিকে থাকারও সাধ্য নেই- এসব নানা কারণে প্রবাসীরা মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়ছে। এ সময়ে অবশ্যই রাষ্ট্র ও বিভিন্ন সামাজিক উন্নয়ন প্রতিষ্ঠানকে তাদের পাশে দাঁড়ানো উচিত। তাদের জন্য বিশেষ কাউন্সেলিং প্রোগ্রাম ও তাদের মোটামুটিভাবে স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরিয়ে আনতে সব ধরনের সেবা প্রদান করা প্রয়োজন। সরকারের ওয়েজ আর্নার্স ফান্ড থেকে তাদের নিয়ে কাউন্সেলিং সার্ভিস, সাইকো সোশাল কাউন্সেলিং করা প্রয়োজন।

ব্র্যাক অভিবাসন কর্মসূচির মনোসামাজিক সহায়তা কার্যক্রমের উপ-ব্যবস্থাপক সাইয়্যারা সুবাহ্ বলেন, অনেক প্রবাসী বৈধ উপায়ে বিদেশে যান না। আবার যারা বৈধ উপায়ে বিদেশ যান তারা সেখানে গিয়ে নানা ধরনের বৈষম্য ও পাশাপাশি শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনের শিকার হন। দিনের পর দিন এভাবে চলতে থাকলে তারা মানসিক চাপে পড়ে যান। একপর্যায়ে চাপটা যখন বাড়তে থাকে তখন তারা মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েন। এই অসুস্থতা মাত্রা ও ব্যক্তিভেদে কমবেশি হয়।

এই সমস্যার কারণ হিসেবে তিনি বলেন, যারা বিদেশে যাচ্ছেন তাদের অনেকেই জানেন না সেখানে তাদের কী কাজ। তারা বিদেশ গিয়ে কী কী সমস্যায় পড়তে পারেন, কী প্রস্তুতি নেয়া প্রয়োজন বা কোনো বিপদে পড়লে নিজেকে কিভাবে উদ্ধার করবেন- সেটাও জানা নেই তাদের। এই বিষয়গুলো না জানার ফলে এবং কাজের পরিবেশ মানসম্পন্ন না হওয়ায় তারা চাপের মধ্যে পড়ছেন। ধীরে ধীরে চাপ বেড়ে একসময় সমস্যা গুরুতর হয়। আর সমস্যা বেড়ে বেড়ে একসময় অসুস্থ হয়ে যান তারা। যখন অসুস্থতা কোনোভাবেই কাটিয়ে উঠতে পারেন না তখন তারা মানসিক বিপর্যয় বা ভারসাম্য হারিয়ে ফেলেন।

গত রবিবার রাত সাড়ে ১১টায় মানসিক অসুস্থতা নিয়ে জর্ডান থেকে দেশে ফিরে এসেছেন আম্বিয়া খাতুন (৩৪) নামে এক নারী গৃহকর্মী। আম্বিয়ার গ্রামের বাড়ি পাবনা জেলার ঈশ্বরদী উপজেলার মুলাডুলি গ্রামের ভেইকাপাড়ায়। গত বছরের জুলাই মাসে রিক্রুটিং এজেন্সি এম এইচ ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল (আরএল-১১৬৬) তাকে নারী গৃহকর্মী হিসেবে জর্ডানে পাঠায়। সেখান থেকে গত রবিবার তিনি মানসিক অসুস্থ হয়ে দেশে ফেরত আসেন।

এরপর বিমানবন্দরের ভেতর নিয়ন্ত্রণহীন চলাফেরা করতে দেখে বিমানবন্দর আর্ম পুলিশ সদস্যরা বিষয়টি প্রবাসী কল্যাণ ডেস্ককে জানান। পরে প্রবাসী কল্যাণ ডেস্ক থেকে তার পরিবারের সন্ধান ও আবাসনের জন্য গতকাল সোমবার ভোরে ব্র্যাকের কাছে তাকে হস্তান্তর করা হয়।
অপরদিকে আরেকজন প্রবাসী কর্মী ইয়ানুর রহমান গতকাল সকাল সাড়ে ৭টার দিকে মানসিক অসুস্থ হয়ে মধ্যপ্রচ্যের দেশ দুবাই থেকে দেশে ফিরেছেন। ইয়ানুরের বাড়ি যশোর জেলার শার্শা উপজেলার সোনাদিয়া গ্রামে। দুই বছর আগে ইয়ানুর ভারত হয়ে অবৈধভাবে দুবাই যান। প্রবাসীকল্যাণ ডেস্ক সূত্রে জানা যায়, ইয়ানুরের পরিবারের সঙ্গে প্রবাসী কল্যাণ ডেস্ক থেকে যোগাযোগ করার পর তার স্বজনরা ঢাকায় এসে তাকে নিয়ে গেছেন।

ব্র্র্যাকের অভিবাসন বিভাগের প্রধান শরিফুল হাসান বলেন, ‘মানসিক অসুস্থতা নিয়ে গত এক মাসে দেশে ফিরেছেন ১১ জন কর্মী। তাদের মধ্যে ১০ জনই নারী গৃহকর্মী। এ ছাড়া প্রবাসী কল্যাণ ডেস্ক ও বিমানবন্দরের পুলিশের সহায়তায় আমরা গত দুই বছরে মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে দেশে ফেরা ৬৩ জনকে পরিবার খুঁজে তাদের কাছে পৌঁছে দিয়েছি। এর মধ্যে নারী কর্মী ৫৮ জন, পুরুষ ৫ জন। এর বাইরেও বিদেশ ফেরত অন্তত তিন হাজার মানুষকে আমরা সাইকো সোসাল কাউন্সেলিং দিয়েছি। আমাদের ১৫ জন কাউন্সেলর ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লিনিক্যাল সাইকোলজি বিভাগের নাসিরউল্লাহ সাইকোথেরাপি ইউনিট এই কাজটি করছেন। আসলে বিদেশ ফেরতদের মানসিক সুস্থতার দিকে আমাদের আরো বেশি নজর দেয়া দরকার। সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো মিলে এই কাজটি করতে হবে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...