আজ ৫ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৯শে জুন, ২০২১ ইং

৩২১ বছর রাস্তায় রাজনৈতিক এতিম হয়ে ঘুরে বেড়াতে হবে আওয়ামীলিগকে- মোশারফ

আজ সোমবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ৯০’র ডাকসু ও সর্বদলীয় ছাত্র ঐক্য আয়োজিত এক মানববন্ধন কর্মসূচিতে তিনি এ হুঁশিয়ারি দেন।

‘বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের অবৈধ সাজা বাতিল এবং সকল মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবি’ উপলক্ষে এ কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়।

মোশাররফ বলেন, ‘আওয়ামী লীগকে স্মরণ করে দিতে চাই, গণতন্ত্র হত্যা করে বাকশাল প্রতিষ্ঠা করেছিল। কিন্তু বেশিদিন টিকে নাই। বাকশালের খেসারত দিতে গিয়ে ২১ বছর তাদের এতিম হিসেবে রাস্তায় ঘুরতে হয়েছে। আমি তাদের হুঁশিয়ার করে দিতে চাই, এখন অলিখিত বাকশাল পরিচালিত করছেন। এবার যখন আপনাদের বিদায় হবে, শুধু ২১ বছর কেন, ৩২১ বছর রাস্তায় রাজনৈতিক এতিম হয়ে ঘুরতে হবে।’

সরকারকে উদ্দেশ্য করে খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘সরকারের কোথাও নিয়ন্ত্রণ নেই। নিয়ন্ত্রণ কিভাবে থাকবে? যাদের দ্বারা নিয়ন্ত্রণ থাকবে তাদের ব্যবহার করে গত ৩০ ডিসম্বের নির্বাচন ২৯ তারিখ রাতে ভোট ডাকাতি করেছেন। তাহলে কেন আপনাদের নিয়ন্ত্রণে থাকবে? তাই আজকে দেখছেন, আওয়ামী লীগের নিজেদের দলে ও অঙ্গ-সংগঠনগুলোতে নিয়ন্ত্রণ নাই, সরকারি কর্মকর্তাদের উপরে নিয়ন্ত্রণ নাই।

৩০ ডিসেম্বের নির্বাচনে জনগণ ভোট দিতে পারে নাই- ক্ষমতাসীন জোটের অন্যতম শীর্ষ নেতা রাশেদ খান মেননের এই বক্তব্যের সমালোচনা করে তিনি বলেন, ‘তিনি যখন সাক্ষী দিয়েছেন তখন এই সরকারের আর ক্ষমতায় থাকার অধিকার নেই। আর এই সংসদের আর সংসদ হিসেবে কাজ করার অধিকার নেই।’

মোশাররফ আরও বলেন, ‘আমরা যখন বুয়েটের ছাত্র আবরার ফাহাদের কথা বলি, তখন সরকার থেকে বলা হয়- আমরা আবরারকে নিয়ে রাজনীতি করছি! কিন্তু আমরা আবরারের কথা বলতে চাই না। তবে এই ২০ জন ছাত্র যারা আজকে গ্রেপ্তার হয়েছে, তারা কারা? বুয়েটের মত জায়গায় মেধাবীরাই চান্স পায়। এই ২০জন ছাত্রও কিন্তু এইচএসসি পড়া পর্যন্ত তাদের পরিবারের কাছে সোনার ছেলে ছিল? তা না হলে তারা বুয়েটে ভর্তি হতে পারতো না। এই ২০টি সোনার ছেলেকে কারা দানবে পরিণত করেছে? দানবে পরিণত করেছে ছাত্রলীগ। যে ছাত্রলীগের অভিভাবক হচ্ছেন আজকের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।’

বিএনপির এই স্থায়ী কমিটির সদস্য বলেন, ‘এই ২০ জন ছাত্রের জীবন শেষ হয়ে গেল। ২০টি পরিবার রাস্তার নামল। এই ২০ জনের মধ্যে একজন রিক্সাওয়ালার সন্তান, আমরা পত্রিকায় দেখেছি। এতো কষ্ট করে তাদের মানুষ করেছেন। কিন্তু সেই ছেলেগুলো এক বছরের মধ্যে দানব হয়ে গেলো! কারা করলো? এর জবাব আজকে এই সরকারকে দিতে হবে। আর তাদের বিচার আমরা চাই।’

সরকারের অভিযানের প্রসঙ্গে খন্দকার মোশাররফ বলেন, ‘অভিযানে কিছু ধরা পড়েছে।তারা চুনোপুটি। তাদের পিছনে যে রাঘববোয়াল আছে, সেই রাঘববোয়ালদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য, তাদেরকে গ্রেপ্তার করে বিচারের আওতায় আনার জন্য দাবি করছি।’

খালেদা জিয়ার জামিনের প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘বেগম জিয়া অধিকার জামিন পাওয়া। তাই তাকে জামিন দেওয়া হোক। আর জামিন পাওয়ার পর তার ইচ্ছা মত তিনি উন্নত চিকিৎসা নেবেন। আর জামিন যদি না দেওয়া হয় তাহলে পিজি হাসপাতাল কিংবা কারাগারের ভিতরে যদি বেগম জিয়ার কিছু হয় তাহলে তার দায়-দায়িত্ব সরকারকে নিতে হবে। জনগণের কাছে একদিন তাদের জবাব দিতে হবে।’

মোশাররফ হোসেন আরও বলেন, ‘স্বাধীনতার ঘোষক শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের সহধর্মিণী তিন তিনবারের প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে অবৈধভাবে কারাগারে আটক করে রাখা হয়েছে। তিনি গুরুত্বর অসুস্থ। তার বয়স বিবেচনা করে উচ্চ আদালত যেকোনো সময় তাকে মুক্তি দিতে পারেন। কেবলমাত্র শেখ হাসিনার প্রতিহিংসাপরায়নতার কারণেই বেগম জিয়া মুক্তি পাচ্ছেন না।’

তিনি বলেন, ‘শেখ হাসিনা আমাদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন তারেক রহমানকে ইঙ্গিত করে বলেছেন, “সে য‌দি রাজনীতি নিয়ে বাড়াবাড়ি করে তাহলে তার মা কোনোদিনও মুক্তি পাবে না।” প্রধানমন্ত্রীর এ কথা থেকেই প্রমাণ হয়, খালেদা জিয়া সম্পূর্ণভাবে রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার। তার দোষ- তিনি দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করতে চান, দেশের মানুষ যেন শান্তিতে বসবাস করতে পারে সেই ব্যবস্থা করতে চান। যার কারণে তাকে অবৈধভাবে আটক করে রাখা হয়েছে।’

ডাকসুর সাবেক ভিপি ও বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমানউল্লাহ আমানের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে আরও বক্তব্য দেন হাবিবুর রহমান হাবিব, খায়রুল কবির খোকন, শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানি, নাজিম উদ্দিন আলম, এবিএম মোশারফ হোসেন, শহিদুল ইসলাম বাবুল, আসাদুর রহমান খান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...