আজ ৪ঠা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২০শে অক্টোবর, ২০২১ ইং

তামাকের ওপর উচ্চ কর আরোপ করা দরকার

২০১৮ সালে দেশে তামাকজনিত কারণে ১ লাখ ২৬ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছে। চলতি বছর এ সংখ্যা ১ লাখ ৬০ হাজারে দাঁড়াবে বলে আমরা ধারণা করছি। সরকার এ মৃত্যুর হার কমিয়ে নিয়ে আসতে তামাকের ওপর উচ্চ কর আরোপ করবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক এবং অর্থনৈতিক গবেষণা ব্যুরোর ফোকাল পারসন ড. রুমানা হক।

গতকাল শনিবার সকাল সাড়ে ৯টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কলাভবনে অর্থনৈতিক গবেষণা ব্যুরোর কনফারেন্স হলে বিভিন্ন গণমাধ্যমের সাংবাদকর্মীদের জন্য আয়োজিত এক কর্মশালা তিনি এ কথা বলেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনৈতিক গবেষণা ব্যুরোর আয়োজনে ‘ইকোনোমিক্স অব ট্যোবাকো অ্যান্ড ট্যোবাকো ট্যাক্সেশন : পাবলিক হেলথ পাসপেকটিভ’ শিরোনামে তামাক কর বিষয়ক বিশেষ এ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

কর্মশালায় অধ্যাপক ড. রুমানা হক বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০৪০ সালের মধ্যে তামাকমুক্ত দেশ গড়ার যে ঘোষণা দিয়েছেন এবং টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যমাত্রা হিসেবে তামাক মুক্তকরণের যে লক্ষ্যমাত্রা হাতে নিয়েছেন সেটার জন্য এখন থেকেই প্রস্তুতি নিতে হবে। একইসঙ্গে তামাকের কর বৃদ্ধি করাসহ জর্দা, গুলের ওপরও কর বাড়াতে হবে। তা নাহলে আমরা আমাদের লক্ষ্যে পৌছাতে পারব না। সাধারণ মানুষের নাগালের বাইরে তামাকজাত দ্রব্যের দাম চলে যায়। একইসঙ্গে তামাকসহ বিভিন্ন সিগারেট কোম্পানিগুলো যাতে বেশি মুনাফা লাভ করতে না পারে। এজন্য আমরা সিগারেটে চার স্তরে কর আরোপ পদ্ধতি থেকে সরে এসে দুই স্তরে করার আহ্বান জানাচ্ছি।

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশে প্রতিবছর তামাকের কারণে যে ক্ষতি হয় তার বিপরীতে এ খাত থেকে আসা রাজস্বের থেকে অনেক বেশি। দেশে প্রতি বছর তামাকজনিত রোগের চিকিৎসায় ৩০ হাজার কোটি টাকা ব্যয় হলেও রাজস্ব আসে মাত্র ২০ হাজার কোটি টাকা। ফলে অর্থের পাশাপাশি দেশের মানবসম্পদের অপরিসীম ক্ষতি হচ্ছে।

আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা দ্য ইউনিয়নের সহযোগিতায় অনুষ্ঠিত এ কর্মশালায় দ্য ইউনিয়নের কারিগরি পরামর্শক অ্যাডভোকেট সৈয়দ মাহবুবুল আলম বলেন, বাংলাদেশে মোট মৃত্যুর ৬৭ শতাংশই অসংক্রামক রোগের কারণে হচ্ছে। আর এ অসংক্রামক রোগের প্রধান কারণ তামাকের ব্যবহার। দেশে এমন কোনো মাদকসেবী নেই যারা সিগারেট খায় না। ফলে তামাকের কারণে মৃত্যুর হার আমাদের কমিয়ে নিয়ে আসতে হবে। কারণ সরকারের অসংক্রামক রোগের পেছনে প্রতি বছর প্রায় ৩০ হাজার কোটি টাকা ব্যয় হচ্ছে। শুধু তাই নয়, সম্প্রতি এক গবেষণায় দেখা গেছে বাংলাদেশে ৯৫ শতাংশ শিশু পরোক্ষভাবে ধূমপানের শিকার হচ্ছে।

ফলে দেশকে এগিয়ে নিতে হলে এবং যুবকদের রক্ষায় তামাক নিয়ন্ত্রণ ভীষণ জরুরি। অন্যদিকে তামাক নিয়ে উদ্বেগের মধ্যেই ই-সিগারেট আরেক মাথা ব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। আগামী তিন থেকে চার বছরের মধ্যে এটা দেশের জন্য বিশাল হুমকি। ই-সিগারেট নিয়ে নির্দিষ্ট আইন না থাকায় এটা আরও ভয়াবহ আকার ধারণ করছে। একই সঙ্গে অবৈধ পথে দেশে ই-সিগারেটের চালান আসা অব্যাহত রয়েছে।

তিনি আরও বলেন, কৃষক ধান, আলুসহ অনেক ফসলের দাম পাচ্ছে না কিন্তু এটা নিয়ে কারও মাথা ব্যথা নেই। অথচ তামাক নিয়ে অনেকের ভীষণ চিন্তা। তামক যদি লাভজনক ফসলই হতো তাহলে রংপুর এলাকায় কোনো মানুষের অভাব থাকতো না। ওই এলাকাকে মঙ্গা এলাকা হিসেবে অভিহিত করা হতো না।

কর্মশালায় তামাক কর বিষয়ে আলোচনার পর অংশগ্রহণ করা সংবাদকর্মীরা উন্মুক্ত আলোচনায় অংশ নেন। এ সময় বাংলাদেশকে টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যমাত্রায় পৌঁছাতে তামাকে কর বৃদ্ধির কোনো বিকল্প নেই বলে তারা ঐক্যমত পোষণ করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...