আজ ২রা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৭ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ ইং

কুয়াশার নষ্ট হচ্ছে ইরি-বোরো বীজতলা

জয়পুরহাটের পাঁচবিবিতে ঘন কুয়াশা ও তীব্র শৈত্যপ্রবাহের কারনে চলতি মৌসুমের ইরি-বোরো বীজতলা নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। বিগত আমন মৌসুমে আমন ধানের ফলন ভাল হলেও আশানুরুপ দাম না পাওয়ার কারনে এবার আগে ভাগেই ইরি-বোরো বীজতলা তৈরীর কাজটা সেরে ফেলেন।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানায়, উপজেলার ৮টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভায় এবার প্রায় ২০ হাজার হেক্টর জমিতে আসন্ন ইরি-বোরো চাষের লক্ষ্য নির্ধারণ করে ১ হাজার ২৬৫ হেক্টর জমিতে বোরো বীজতলা তৈরী করেছে। কিন্তু গত কয়েক দিনের ঘন কুয়াশা ও তীব্র শৈত্যপ্রবাহের কারনে ইরি-বোরো বীজতলা নষ্ট হওয়ার ফলে এবার উপজেলায় ইরি-বোরো চাষাবাদ নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন কৃষকরা। এতে কৃষকের বুকভরা আশা ক্রমশঃ হতাশায় নিমজ্জিত হচ্ছে।

কৃষকরা জানান, এ অঞ্চলে সিংহভাগ সময় ঘন কুয়াশার আচ্ছাদনে ঢাকা পড়ে যাচ্ছে প্রকৃতি। বৈরী আবহাওয়ার কারনে ইরি-বোরো বীজতলা স্যাঁতঁেসতে ও বিবর্ণ আকার ধারন করে মরে যাচ্ছে। সালুয়া গ্রামের পবন চন্দ্র বলেন, গত কয়েক দিন ধরে তীব্রশীত আর ঘন কুয়াশায় বীজতলা নষ্ঠ হয়ে যাচ্ছে। এসব বীজতলার ধানের চারা ইতিপূর্বে একই সময়ে ৫ থেকে ৭ ইঞ্চি লম্বা ও তরতাজা ধারন করলেও টানা শীতের কবলে পড়ে এবার ধানের চারাগাছের উপরিভাগে লালচে আকার ধারন করছে এবং ক্রমানয়ে লালচে আকার ধারনকারী চারা গুলো মরে যেতে শুরু করছে। অনেকেই ইরি-বোরো বীজতলার চারার রক্ষার্থে পলিথিন দিয়ে ঢেকে দিয়ে রাখছেন। ‘

উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ আশরাফুল ইসলাম বলেন, এরকম সমস্যায় থিওভিট নামক ঔষধ বীজতলা স্প্রে এবং সম্ভব হলে রাতে পলিথিন দিয়ে ঢেকে রাখার পরামর্শ দেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...