আজ ৪ঠা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২০শে অক্টোবর, ২০২১ ইং

আম বাগানের আগাম পরিচর্যা 

আমের রাজধানী নওগাঁর সাপাহার উপজেলা। বাগানে বাগানে এখন কিটনাশক সংগ্রহ করে অতিরিক্ত মজুরী দিয়ে কিটনাশক স্প্রে-করতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে চাষীরা। আগের দিনে দেশের চাঁপাই নবাবগঞ্জ জেলা ছিল আমের রাজধানী হিসেবে খ্যাত। বর্তমানে পর পর কয়েক বছর ধরে সাপাহার উপজেলার আম বহি:বিশ্ব সহ দেশের রাজধানী এবং প্রায় প্রতিটি জেলায় সুনামের সাথে স্থান করে নেয়ায় দেশের প্রতিটি প্রান্তের মানুষ এক নামে এখন সাপাহার উপজেলাকে চিনে ও জানে।

আমের মৌসুম আসলেই দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ব্যবসায়ীরা সাপাহারে এসে ভিড় জমায়। গতবছর উপজেলায় ৬হাজার ২০০শ’ হেক্টোর জমিতে আমের উৎপাদন হয়েছিল এবছর এর পরিধি আরোও ব্যাপকতা লাভ করে এখন ৮হাজার ২৫০হোক্টোর জমিতে উন্নত হয়েছে বলে উপজেলা কৃষিদপ্তর থেকে জানা গেছে। পর পর কয়েক বছর ধরে উপজেলায় আম চাষে এক বিপ্লব ঘটায় বাংলাদেশ সরকারের খাদ্য মন্ত্রী বাবু সাধন চন্দ্র মজুমদার ইতো মধ্যেই এই উপজেলায় অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার জন্য জায়গা নির্ধারণ সহ যাবতীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করেছেন।

গতবছর আমের মৌসুমে শুধু সাপাহার উপজেলা সদরে অবস্থিত আড়াই শতাধিক আমের আড়ৎ হতে প্রায় ৩০কোটি টাকার আম বিক্রি হয়েছে বলে আম আড়ৎ ব্যবসায়ীর সভাপতি শ্রী কার্তিক সাহা জানিয়েছেন।উপজেলা সহ আশেপাশের আমচাষীরা অচিরেই এখানে একটি অত্যাধুনিক আম সংরক্ষনাগার ও জুস জেলি তৈরীর কারখানা স্থাপনের জন্য সরকার ও দেশের বিত্তবানদের নিকট আকুল আবেদন জানিয়েছেন।কয়েকজন আমবাগান মালিকদের সাথে কথা হলে তারা জানান যে, সাপাহার উপজেলার সব জায়গার মাটি আম চাষের উপযোগী।

এজন্য এখানকার কৃষককুল ধানের বদলে আমচাষে ঝুঁকে পড়েছেন। বর্তমানে এক বিঘা জমিতে ধান চাষ করে সর্বচ্চ ১০হাজার টাকার ধান বিক্রি করতে পারা যায় পক্ষান্তরে ওই এক বিঘা জমিতে আম চাষ করে কম পক্ষে ১লক্ষ টাকার আম বিক্রি করা যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...