আজ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৫শে জুন, ২০২২ ইং

মন্দিরের জায়গা দখল করে বসতবাড়ি নির্মান

নওগাঁর ধামইরহাটের চকযদু নির্দয়া কালী মন্দিরের কোটি টাকার জায়গা-জমি দখল করে বসতবাড়ি নির্মান কাজ চলছে। নিজেকে উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারন সম্পাদক, হিন্দু বৌদ্ধ খ্রীষ্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি ও আওয়ামী লীগের নেতা পরিচয় দিয়ে রামজনম রবিদাস দম্ভের সঙ্গে এসব দেবোত্তর সম্পদ নিজে এবং তার আত্মীয় স্বজনদের নিয়ে দখল করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। বৃহস্পতিবার এসব জায়গা-জমি উদ্ধারের জন্য নওগাঁ জেলা প্রশাসক, ধামইরহাট উপজেলা চেয়ারম্যান, থানার ওসি, সহকারী কমিশনার (ভূমি) এবং নওগাঁ জেলা পূজা উদযাপন পরিষদ বরাবর অভিযোগ দায়ের করেছেন মন্দির কমিটির লোকজন। বাধা দেয়ার পর ওই জায়গায় ঘর তুলছে স্থানীয় প্রভাবশালীরা। ঘটনায় এলাকায় চরম উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়েছে।
লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, ধামইরহাট পৌর সদরের চকযদু মৌজার আরএস খতিয়ান নম্বর ৩১৪ এর ১ একর ৫৭ শতাংশ জমি ধামইরহাট বাজার নির্দয়া কালীমন্দিরের নামে রয়েছে। জমিটি ধামইরহাট হাটখোলার নিকটে এবং পাকা রাস্তা সংলগ্ন হওয়ায় অত্যন্ত মূল্যবান। কিন্তু দির্ঘদিন ধরে হিন্দু সম্প্রদায়ের একটি অংশ ওই জমি ধীরে ধীরে দখলে নেয়ার চেষ্টা করে। এই সম্পত্তি জবর দখল প্রক্রিয়ায় নেতৃত্ব দেন, ধামইরহাট উপজেলা হিন্দু বৌদ্ধ খ্রীষ্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি ও পুজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক দাবীদার  শ্রী রামজনম রবিদাস। তিনি নিজের দখল করার পর তার ছেলে রাজেন্দ্রনাথ রবিদাস, চাচাতো ভাই সন্দ্বীপ রবিদাস,ভাগনে দিলীপ রবিদাস,বিমল কর্মকার,আরতি কর্মকার,বাবু তেওয়ারী এবং শরিফ মন্ডলসহ অনেকেই টিন এবং ইট দিয়ে ঘর নির্মাণ করছে। কালীমন্দির কমিটির সেক্রেটারী সুমন সাহা বলেন, হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন নিয়ে অবৈধভাবে কালীমন্দিরের জায়গা দখলে বাধা দিতে গেলে উল্টো তাদেরকে মাদকের মামলা দিয়ে জেলে পাঠানোর হুমকি দেয়। বিষয়টি নিয়ে নির্দয়া কালীমন্দির কমিটির সভাপতি শ্রী রাজেন প্রসাদ গত ৫ ফেব্রুয়ারী ধামইরহাট পৌরসভায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। এ নিয়ে গত ৬ ফেব্রুয়ারী তারিখে পৌরসভায় সালিশী বৈঠক বসে। কিন্ত ওই বৈঠকে বিবাদীগণ উপস্থিত না হয়ে জমি দখলের চেষ্টা অব্যাহত রাখে। মন্দিরের জায়গা দখলকারী হিন্দু সম্প্রদায়েরর নেতা দাবীদার রামজনম রবিদাস জানান, আমি মন্দিরের কোন জায়গা দখল করিনি। বাড়ি আমার পৈত্রিক সম্পদের ওপর। তবে আমার চাচাতো প্রতিবন্দী ভাই এবং আত্মীয়-স্বজনরা সেখানে বাড়ি নির্মান করছে।
এব্যাপারে নওগাঁ জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি নির্মল কৃষ্ণ সাহা বলেন, রামজনম পূজা উদযাপন পরিষদের বৈধ কোন নেতা নয়। কারন ধামইরহাট উপজেলায় বর্তমানে পূজা উদযাপন পরিষদের অনুমোদিত কোন কমিটি নেই। কালীমন্দিরের জায়গাটি দখলমুক্তকরার জন্য তিনি সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...