আজ ৩০শে চৈত্র, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ১৩ই এপ্রিল, ২০২৪ ইং

আ.লীগের উপকমিটিতে ত্রাণ সক্রিয় স্বাস্থ্য নিষ্ক্রিয়

ডেক্স নিউজ : করোনা মোকাবিলায় ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক উপকমিটি সক্রিয় ভূমিকা রাখলেও অনেকটাই নিষ্ক্রিয় রয়েছে দলটির স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক উপকমিটি।সারা দেশে ত্রাণ কমিটির কার্যক্রম দেখা গেলেও চিকিৎসা নিয়ে স্বাস্থ্য উপকমিটির তেমন উদ্যোগ চোখে পড়েনি। তবে করোনায় ডাক্তারদের নিয়ে কাজ চলছে বলে দাবি করছেন স্বাস্থ্য বিষয়ক উপকমিটির সদস্য সচিব।

দলীয় সূত্রে জানা যায়, করোনা সংকটকালে সাধারণ ছুটি ঘোষণা হওয়ার পর থেকে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীরা ত্রাণ বিতরণ করছেন। তাদের মধ্যে রয়েছেন বিভিন্ন পর্যায়ের নেতা-কর্মী, দলীয় সংসদ সদস্যসহ নানা স্তরের জনপ্রতিনিধিরা।

দলীয় হিসাবে গতকাল রোববার পর্যন্ত সারা দেশে এক কোটির বেশি পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দেয়া হয়েছে। নগদ অর্থ সহায়তা করা হয়েছে ১০ কোটি টাকার বেশি। ত্রাণ উপকমিটির সদস্য সচিব সূত্রে জানা গেছে এ তথ্য।

এছাড়া পিপিই, চশমা, মাস্ক, সাবান, হ্যান্ড গ্লাভস, ফিনাইল, হ্যান্ড সেনিটাইজার, ব্লিচিং পাউডার, স্প্রে মেশিনসহ বিভিন্ন চিকিৎসা সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। মেডিকেল টিম ও টেলিমেডিসিন ব্যবস্থার মাধ্যমে বিভিন্ন স্থানে চিকিৎসার সেবা প্রদান করা হচ্ছে। বিভিন্ন জায়গায় ফ্রি অ্যাম্বুলেন্স সার্ভিসের ব্যবস্থা করেছে আওয়ামী লীগ।

জানা গেছে, ত্রাণ কমিটি সারা দেশের নেতাকর্মী ও জনপ্রতিনিধির মাধ্যমে ত্রাণ বিতরণের কাজ করছে। সরকারের পাশাপাশি আওয়ামী লীগের ত্রাণ কমিটির সক্রিয় ভূমিকা রয়েছে। তবে ডাক্তারদের দিয়ে সেমিনার, সভা, পিপিই পরা ও খোলা প্রশিক্ষণ ছাড়া বাস্তবে তেমন কোনো কাজ করতে দেখা যায়নি স্বাস্থ্য বিষয়ক উপকমিটিকে।

আওয়ামী লীগের এক সিনিয়র নেতা বলেন, ‘ত্রাণের বিষয়ে আমাদের নেত্রীর দৃষ্টি রয়েছে। তিনি সব জায়গার খোঁজখবর নিচ্ছেন। ত্রাণ বিতরণে অনিয়ম দেখলেই ব্যবস্থা নেয়ার নিদের্শনাও রয়েছে। তবে ত্রাণ উপকমিটির চেয়ে বেশি কাজ করার কথা ছিল স্বাস্থ্য উপকমিটির। কিন্তু তারা জেলার সাথে তেমন যোগাযোগ রাখছেন না।’ এখন কাজ না করলে স্বাস্থ্য বিষয়ক উপকমিটি কবে কাজ করবে- এমন প্রশ্নও রাখেন তিনি।

এ ছাড়া বিভিন্ন জেলা পর্যায়ে ব্যক্তি উদ্যোগে চিকিৎসা সেবার কার্যক্রম চালু করা হয়েছে। করোনা মোকাবিলায় জীবাণুনাশক টানেল তৈরি করা হয়েছে। অনেক জনপ্রতিনিধির উদ্যোগে ফ্রি অ্যাম্বুলেন্স সেবাও চালু হয়েছে। কিন্তু এই সেবাগুলো কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের উদ্যোগে জেলা পর্যায়ে নেতাদের কাজে লাগাতে পারতেন বলে জানান আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতারা। মানুষের স্বাস্থ্য সচেতনতার বিষয়ে জেলা নেতাদের কাজে লাগানো যেত বলে মনে করছেন রাজনৈতিক দলটির জেলা পর্যায়ের নেতারা। কেন্দ্রের নিদের্শনা না পেলেও অনেকেই কাজ করছেন বলে জানা যায়।

রাজশাহী, সিলেট ও চট্টগ্রাম বিভাগের বেশ কয়েকটি জেলার আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদকরা জানান, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেনি। করোনা ভাইরাস প্রাদুর্ভাবে পর থেকেই তারা নিজেরাই মানুষকে সচেতন করতে নিজ উদ্যোগে কাজ করে যাচ্ছেন। কিন্তু কেন্দ্র থেকে তেমন খোঁজখবর নেয়া হয়নি। জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি তাদের কাজ করতে উৎসাহিত করেছেন। তবে কেন্দ্র থেকে তেমন কিছু পাননি বলে জানান তারা।

ওই নেতারা আরো জানান, কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদকের কোনো কাজই নাই। কেন্দ্র থেকে কোনো কাজই দেয়া হয় না। দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনা জেলা পর্যায়ে জনপ্রতিনিধি, নেতা, চিকিৎসক, সিভিল সার্জন এবং প্রশাসনের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্স করেন। তিনি দিকনিদের্শনা দেন। কিন্তু ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির স্বাস্থ্য বিষয়ক উপকমিটি তেমনটা সক্রিয় নন। তারা জেলা সিভিল সার্জনের সঙ্গে কথা বললে জেলা পদের গুরুত্ব কী- সেটি তাদের বোধগম্য নয় বলে জানান ওই নেতারা।

ত্রাণ বিতরণের বিষয়ে জেলা নেতারা বলেন, করোনা প্রাদুর্ভাব শুরু হওয়ার পরপরই কেন্দ্র থেকে সাবান, মাস্ক, হ্যান্ড স্যানিটাইজার দেয়া হয়েছে। তারপর জেলা পর্যায়ে কিছু ত্রাণ পাঠানো হয়েছে। এছাড়া জনপ্রতিনিধিদের মাধ্যমে ত্রাণ বিতরণ করা হয়েছে। এখানে জেলা নেতারা সক্রিয় ভ‚মিকা রাখতে পারছেন।

এসব বিষয়ে জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক ডা. রোকেয়া সুলতানা মানবকণ্ঠকে বলেন, ‘করোনা বিষয়ে স্বাস্থ্যবিষয়ক উপকমিটির উদ্যোগে প্রথমে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের নিয়ে একটি কনফারেন্স করেছি। সেখানে চিকিৎসকদের মধ্যে যাদের করোনা নেই, যারা চেম্বারে যেতে পারছেন না; তাদের নিয়ে এই কনফারেন্স করা হয়। এর মাধ্যমে রোগীদের সেবা দেয়ার চেষ্টা করেছি। এছাড়া প্রতিটি করোনা হাসপাতালে কোথায় কী সংকট রয়েছে সেটা দলকে জানাচ্ছি। প্রশিক্ষণ অনুযায়ী যে যার জায়গা থেকে সেমিনারের ব্যবস্থা করছি।’

তিনি আরো বলেন, ‘আমরা কিছু হাসপাতালে কিভাবে পিপিই পরতে এবং খুলতে হয় সেই প্রশিক্ষণ দিয়েছি। এছাড়া ত্রাণ কমিটির সঙ্গে মিলেও কোথায় কী ত্রাণ লাগবে সে ব্যবস্থা করছি। প্রতিনিয়তই জেলা পর্যায়েও খোঁজখবর নিচ্ছি। প্রতিদিনই দলীয় অফিসে গিয়ে আট বিভাগের নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ করছি। মাঝে মধ্যে সিভিল সার্জনদের সঙ্গে কথা বলি। কোন জেলায় কী প্রয়োজন তা দায়িত্বরত বিভাগকে বলে থাকি। এভাবে আমরা ব্যক্তি ও সমষ্টিগতভাবে কাজ করছি।’

আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী মানবকণ্ঠকে বলেন, ‘আওয়ামী লীগের ত্রাণ কমিটি সমন্বয়ে দেশের সকল জেলা, থানা, সহযোগী সংগঠন ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনের মাধ্যমে অসহায় ও দরিদ্র পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণের কাজ চলছে। স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা উপকমিটি আমাদের সঙ্গে কাজ করছে। যৌথ উদ্যোগে আমরা কাজ করছি। টেলিমেডিসিন বিষয়ে যে হটলাইন আছে সেটা আমরা যৌথভাবে করছি। আমাদের ১০০ জন বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের টিমটি খুব ভালো কাজ করছে। অনেকেই এই টেলিমেডিসিন থেকে সেবা নিচ্ছেন। আর জেলা পর্যায়েও ত্রাণ বিতরণ কাজ করছে আওয়ামী লীগের ত্রাণ উপকমিটি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...