আজ ২৭শে আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১২ই অক্টোবর, ২০২১ ইং

আওয়ামী লীগের নেয়া পদক্ষেপগুলোর ভুল-ত্রুটি ধরতে মাঠে নেমেছে বিএনপি

ডেক্স নিউজ : করোনা মোকাবিলায় ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নেয়া পদক্ষেপগুলোর ভুল-ত্রুটি ধরতে মাঠে নেমেছে বিএনপি। এ নিয়ে কাজ করছে দলটির জাতীয় করোনা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ সেল। কোন কোন ক্ষেত্রে সরকারের গাফিলতি রয়েছে আর কোনো ক্ষেত্রে দায় এড়িয়ে যাচ্ছে সেসব বিষয় শিগগিরই দেশবাসীর সামনে তুলে ধরবেন সেলের দায়িত্বশীল নেতারা। এ ছাড়া কোথায় কোথায় সরকারের দুর্বলতা রয়েছে তা নিয়েও মাঠে কাজ করছে সংসদ ও রাজপথের বিরোধী দল বিএনপি।

এদিকে ‘সরকারের উদাসীনতায়’ করোনা সংক্রমণ ও মৃত্যু, ত্রাণ বিতরণে অনিয়ম-ত্রুটি এবং এ সংক্রান্ত ‘অব্যবস্থাপনা’ নিয়ে সারাদেশ থেকে তথ্য সংগ্রহ করে গণমাধ্যমে প্রচার করবে দলটির একটি বিশেষ সেল। সম্প্রতি অনুষ্ঠিত বিএনপির জাতীয় করোনা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ সেলের সভায় এ বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা হয়।

একই সঙ্গে সারা দেশে দলের সাংগঠনিক সম্পাদকদের প্রধান করে ১০টি বিভাগীয় সাংগঠনিক কমিটিও গঠন করেছে বিশেষ এই সেল। করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণের জন্য বিএনপির ১০ সাংগঠনিক বিভাগের সাংগঠনিক সম্পাদককে প্রধান করে বিশেষ সেল গঠন করা হয়েছে।

গত রবিবার রাতে দলটির কেন্দ্রীয় পর্যবেক্ষণ সেলের আহ্বায়ক ও স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু এই কমিটিগুলো গঠন করেন। বিএনপি চেয়ারপার্সনের মিডিয়া উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির খান মানবকণ্ঠকে সব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, সারাদেশের ১০টি সাংগঠনিক বিভাগের সাংগঠনিক সম্পাদককে আহ্বায়ক করে পর্যবেক্ষণ সেলের গঠিত কমিটি করা হয়েছে। দায়িত্বপ্রাপ্তরা হচ্ছেন ফজলুল হক মিলন (ঢাকা বিভাগ), মাহবুব রহমান শামীম (চট্টগ্রাম বিভাগ), রুহুল কবির তালুকদার দুলু (রাজশাহী বিভাগ), নজরুল ইসলাম মঞ্জু (খুলনা বিভাগ), ডা. এএম সাখাওয়াত হাসান জীবন (সিলেট বিভাগ), অ্যাডভোকেট বিলকিস জাহান শিরীন (বরিশাল বিভাগ), অধ্যক্ষ আসাদুল হাবিব দুলু (রংপুর বিভাগ), সৈয়দ ইমরান সালেহ প্রিন্স (ময়মনসিংহ বিভাগ), শামা ওবায়েদ (ফরিদপুর), মো. মোস্তাক মিয়া (কুমিল্লা বিভাগ)।

তিনি আরো জানান, করোনা ভাইরাস সংক্রমণের ফলে সংক্রমিত পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে বিভাগীয় কমিটি, জেলা, উপজেলা, থানা বা সমমনা কমিটি দ্রুততার সঙ্গে গঠন করে এবং অসহায় পরিবারের মধ্যে বিএনপিসহ সরকারের ত্রাণ কার্যক্রমের পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে কার্যকর ব্যবস্থার জন্য দেশবাসীর সামনে তথ্য ও সুপারিশ উপস্থাপন করা হবে।

অপরদিকে বিএনপির একাধিক সূত্র জানিয়েছে, সম্প্রতি বিএনপির জাতীয় করোনা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ সেলের সভা গুলশানে চেয়ারপার্সনের কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন জাতীয় করোনা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ সেলের উপদেষ্টা ও বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন। সভায় দেশব্যাপী বিভাগীয় পর্যায়ে করোনা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ সেল গঠন করা হয়। এই বিভাগীয় কমিটিকে করোনা পরিস্থিতি নিয়ে জেলা, উপজেলা পর্যায় থেকে রিপোর্ট সংগ্রহপূর্বক জাতীয় করোনা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ সেলের কাছে পাঠানোর সিদ্ধান্ত হয়।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সেলের আহ্বায়ক বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু বলেন, ‘গত বৃহস্পতিবার আমাদের সেলের প্রথম বৈঠক হয়েছে। আমাদের সেলের কার্যক্রম ও পদ্ধতি নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। আমরা ১০টি বিভাগীয় কমিটি গঠন করেছি, আমাদের দলের বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদকদের প্রধান করে। তিনি জানান, সামাজিক দূরত্ব কার্যকরভাবে প্রতিপালন করে সেলের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে।’

ইকবাল হাসান মাহমুদ বলেন, ‘করোনা মোকাবিলায় আমরা অনেক তথ্যবিভ্রাট দেখতে পাচ্ছি। গণমাধ্যমেও কিছু উঠে আসছে। সরকার যে তথ্য দিচ্ছে, অনেক ক্ষেত্রে মানুষের কাছে তা বিশ্বাসযোগ্য হচ্ছে না। যে কারণে গুজব ছড়াচ্ছে, নানা বিভ্রান্তি সৃষ্টি হচ্ছে। সেই বিবেচনায় দেশের প্রধান রাজনৈতিক দল হিসেবে বিএনপির দায়িত্ব এ বিষয়ে ভূমিকা রাখার। আমরা বিভাগীয় পর্যায়ে কিছু বিষয় উল্লেখ করে প্রশ্ন পাঠিয়ে দিয়েছি।’

কী কী বিষয়ে তথ্য সংগ্রহ করা হবে- এমন প্রশ্নের জবাবে সাবেক এই প্রতিমন্ত্রী বলেন, করোনা ভাইরাসে আক্রান্তদের সেবা নিশ্চিত হচ্ছে কি না, সরকারিভাবে বিতরণ করা ত্রাণে কোনো ত্রুটি আছে কি না, এসব বিষয়ে তথ্য সংগ্রহ করা হবে। বিশেষ করে দেশের বিভিন্ন এলাকায় ত্রাণ পায়নি অনেক মানুষ, অনেক স্থানে বিক্ষোভের খবরও আসছে।

ইকবাল হাসান বলেন, ‘করোনা ভাইরাস সংক্রমণের পর থেকে বিএনপির পক্ষ থেকে দলের নেতা-কর্মীরা তাদের সামর্থ্য অনুযায়ী ত্রাণ বিতরণ করেছে। এই বিতরণ আরো চলবে। এটাতেও মনিটরিং করা, ঠিকঠাক বিতরণ হচ্ছে কি না। করোনা আক্রান্তের সংখ্যা যা বলা হচ্ছে, তা নিয়ে সন্দেহ আছে মানুষের। এই মহামারী মোকাবিলায় যেন স্বচ্ছতা তৈরি হয়, সে কারণেই আমাদের এই উদ্যোগ। একই সঙ্গে সরকারি তথ্য সমৃদ্ধ করতেই মাঠ থেকে তথ্য নিয়ে আসব। গ্রাম পর্যায় থেকে তথ্য এনে আমরা তা প্রচার করব।’

অন্যদিকে গত বৃহস্পতিবার দুপুরে গুলশানে চেয়ারপার্সনের কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণকালে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরও অভিযোগ করেছেন, করোনা ভাইরাস সংক্রমণ নিয়ে সরকারের দেয়া তথ্য-উপাত্ত সঠিক নয়। এ বিষয়ে সরকার জনগণের সঙ্গে প্রতারণা করছে। সরকারের তরফ থেকে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত, অসুস্থ, সুস্থ এবং মৃত্যুর যে হিসাবগুলো দেয়া হচ্ছে, তাতে মনে হয়েছে বাংলাদেশের মানুষ তা বিশ্বাস করে না।

তথ্য নিয়ে অন্য কোনো বিভ্রাট সৃষ্টি হওয়ার আশঙ্কা আছে কি না এমন প্রশ্ন ছিল করোনাবিষয়ক কেন্দ্রীয় সেলের অন্যতম সদস্য বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেনের কাছে। তিনি বলেন, ‘আমরা তো তথ্য বানাব না। গ্রাম-ওয়ার্ড-ইউনিয়ন-উপজেলা পর্যায় থেকে সেগুলো সংগ্রহ করব। আমাদের সংগঠন তৃণমূল পর্যন্ত বিস্তৃত। সঠিক তথ্য দিয়ে আমরা কাজ করব। এতে বরং জনগণের সুবিধা হবে। এগুলোও ম্যানেজমেন্টের কাজে লাগবে এবং গাইডলাইন হিসেবে কাজে লাগাতে হবে। মোটকথা, ল্যাপস অ্যান্ড গ্যাপ কভার করা। সমন্বিতভাবে যেন চিহ্নিত করা যায়, দ্যাটস শুট বি দ্য টার্গেট।

এদিকে বিএনপির চেয়ারপার্সনের মিডিয়া উইং সদস্য শায়রুল কবির খান জানান, দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেনের নেতৃত্বে বিএনপির করোনাবিষয়ক জাতীয় সেলের সদস্যরা হলেন সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, ডা. হারুন উর রশিদ, ডা. আব্দুস সালাম, ডা. রফিকুল ইসলাম, সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, শফিউল বারী বাবু, আবদুল কাদির ভূইয়া জুয়েল, ফজলুর রহমান খোকন, ইকবাল হোসেন শ্যামল প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...