আজ ১৭ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৩১শে জানুয়ারি, ২০২৩ ইং

ফিলিং ষ্টেশন ছাড়াই ৩ কোটি টাকার সরকারী বিল

গণউত্তরন ডেক্স: ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি) মেসার্স গোমতি ফিলিং স্টেশন থেকে তিন কোটি টাকার গাড়ির জ্বালানি সিএনজি গ্যাস কেনার বিল দেখিয়েছে। বাস্তবে রাজধানীর যাত্রাবাড়ী এলাকায় এ নামে কোনো ফিলিং স্টেশনের অস্তিত্ব নেই। বিষয়টি ধরা পড়ার পর অধিকাংশ অর্থ ফেরত দেওয়ার দাবি করলে অডিট অধিদপ্তর জানিয়েছে, ‘আপত্তিতে বর্ণিত টাকা আদায়পূর্বক প্রমাণক প্রেরণ আবশ্যক।’

গত মঙ্গলবার জাতীয় সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত সরকারি হিসাব সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটিতে বিষয়টি আলোচনা হয়। কমিটি বিস্ময় প্রকাশ করে বলেছেন, বিষয়টা অবাক লেগেছে। তদন্তের জন্য একটি সাবকমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটি অনিষ্পন্ন অডিট আপত্তিগুলোর ক্ষেত্রে জড়িত অর্থ দুই মাসের মধ্যে আদায় করে কমিটিকে অবহিত করার নির্দেশ প্রদান করে।

কমিটির সভাপতি মো. রুস্তম আলী ফরাজী আমাদের সময়কে বলেন, সিএনজি স্টেশন নেই তার পরও সিএনজি স্টেশনের নামে বিল-ভাউচার! অধিকতর তদন্তের জন্য আমরা একটি কমিটি করে দিয়েছি। তদন্ত কমিটির রিপোর্ট পেলে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেওয়া হবে। অডিট আপত্তির বিবরণীতে উল্লেখ করা হয়েছে, ঢাকা দক্ষিণ সিটি

করপোরেশনের ২০১১-১২ সালের হিসাব নিরীক্ষায় পরিবহন বিভাগের জ্বালানি বিল ভাউচার ও লগবই যাচাই করে দেখা গেছে, কোনো ফিলিং স্টেশন না থাকা সত্ত্বেও ‘মেসার্স গোমতি ফিলিং স্টেশন অ্যান্ড সার্ভিস সেন্টার লি. যাত্রাবাড়ী ঢাকা’ এ নামের সিএনজি স্টেশন থেকে বিভিন্ন গাড়ির জন্য সিএনজি গ্যাস ক্রয় দেখিয়ে বিল পরিশোধ করায় সংস্থার ৩ কোটি ৪ লাখ ৯৪ হাজার ৬৫৬ টাকা আর্থিক ক্ষতি হয়েছে। এ নিয়েও যুক্তি দেখিয়েছে ডিএসসিসি।

এতে বলা হয়, করপোরেশনের নিজস্ব পেট্রল পাম্পটি ‘জে আর ট্রেডিং লিমিটেডকে’ ইজারা দেওয়া হয়েছে। ওই পাম্পটিতে কোনো সিএনজি ফিলিং মেশিন নেই। ইজারাপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান সরকার নির্ধারিত মূল্যে ইস্যুকৃত জ্বালানি  স্লিপের বিপরীতে নির্ধারিত দামে সংশ্লিষ্ট গাড়িচালকদের নগদ অর্থ দিয়ে থাকে। এর জন্য ইজারা প্রতিষ্ঠানকে কোনো অতিরিক্ত লভ্যাংশ দেওয়া হয় না। এ ক্ষেত্রে চালকরা নিকটবর্তী সিএনজি স্টেশন থেকে গ্যাস সংগ্রহ করে থাকে। তবে এর সুষ্ঠু সমাধানের প্রক্রিয়া চলমান।

ডিএসসিসির এমন বক্তব্যের বিষয়ে সরকারের নিরীক্ষা বিভাগের মন্তব্য-জবাব সন্তোষজনক নয়। কেননা অনুমোদিত সিএনজি ফিলিং স্টেশন থেকে গ্যাস ক্রয় না করে গোমতি ফিলিং স্টেশনের নামে কোনো সিএনজি ফিলিং স্টেশন না থাকা সত্ত্বেও তার নামে সিএনজি ক্রয়ের বিল পরিশোধ করায় সংস্থার আর্থিক ক্ষতি হয়েছে।

নিরীক্ষা মন্তব্যে আরও বলা হয়েছে, সরকারের আর্থিক ক্ষতির বিষয় উল্লেখ করে ২০১৩ সালের ১০ মার্চ স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সচিব বরাবর একটি প্রতিবেদন দেয় সরকারের নিরীক্ষা বিভাগ। পরবর্তী সময়ে ওই বছরের ১০ এপ্রিল তাগিদপত্র এবং সর্বশেষ ব্যবস্থা হিসেবে ২০১৩ সালের ২৩ জুন সচিব বরাবর আধা সরকারি পত্র জারি করা হয়। কিন্তু আজ পর্যন্ত বিষয়টির কোনো নিষ্পত্তি হয়নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...