আজ ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৪ই জুন, ২০২৪ ইং

ভারত এর সীমান্তে চীনের যুদ্ধবিমান, ধরা পড়ল উপগ্রহে

ডেক্স নিউজ : ফের ভারত-চীন সীমান্তে উত্তেজনা বাড়ছে। গত কয়েকদিন ধরেই ভারতের লাদাখ অঞ্চল ঘেঁষা সীমান্তে চীনা সৈন্যদের টহল দিতে দেখা যায়। আর এতে করেই ভারত সরকার নড়েচড়ে বসেছে। ফলে ১৯৯৯ সালের কারগিলের পর সীমান্ত নিয়ে সবচেয়ে বেশি চিন্তায় পড়েছে ভারত।

সাম্প্রতিক এক স্যাটেলাইট ছবিতে দেখা যায় প্যাংগং লেক থেকে মাত্র ২০০ কিলোমিটার দূরে বিশাল এক বিমান ঘাঁটি নির্মাণ করছে চীন। এই সীমান্তের কাছেই গত ৫ ও ৬ মে ছোটখাট এক দাঙ্গা বেধেছিল চীন ও ভারতের সৈন্যদের মাঝে। এর মধ্যেই সীমান্তে যুদ্ধবিমান মোতায়েন করে চীন ব্যাপক প্রস্তুতি নিচ্ছে, এমনটাই মনে করছে ভারত।

ভারত ও চীন সীমান্তের একটি উপগ্রহ চিত্র প্রকাশ করেছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি। ওই চিত্রে দেখা যায়, তিব্বতের গারি গুনশা বিমান ঘাঁটিতে বড় মাপের নির্মাণকাজ চালাচ্ছে চীন। ওই ছবির বিশ্লেষণে ভারতের দাবি, লাদাখের প্যাংগং লেক থেকে ২০০ কিমি দূরে গারি গুনশা ঘাঁটিতে অত্যাধুনিক যুদ্ধবিমান মোতায়েন করে রেখেছে চীন।

গারি গুনশার গত ৬ এপ্রিলের ছবিতে দেখা যাচ্ছে, তখনও ততোটা নির্মাণকাজের চিহ্ন নেই। কিন্তু তার পর ২১ মে পাঠানো একটি ছবি অনেকটাই ব্যতিক্রম। মাস দেড়েকের মধ্যে গারি গুনশায় যে বিপুল নির্মাণ হয়েছে তা স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছে ওই ছবি দেখে। ভারতের গবেষণায় গারি গুনশা বিমান ঘাঁটিতে জে ১১ অথবা জে ১৬ মডেলের যুদ্ধবিমান মোতায়েন করেছে চীনের পিপলস লিবারেশন আর্মি। ২০১৯-এর ডিসেম্বরে গারি গুনশায় প্রথম যুদ্ধবিমানের অস্তিত্ব টের পায় ভারতীয় উপগ্রহ।

এদিকে মঙ্গলবার (২৬ মে) চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং দেশের সেনাবাহিনীকে উদ্দেশ্য করে বলেছেন, যেকোনো যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত হতে হবে। দেশকে সুরক্ষা দিতে সবরকমভাবে প্রস্তুতি থাকা চাই। আর এ কথা তিনি তখনই বললেন, যখন ভারত সীমান্তে উত্তেজনা চলছে। আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম বলছে, অন্তত ১০০ তাঁবু বানিয়ে লাদাখের কাছে ঘাঁটি বসিয়েছে চীনা সেনাবাহিনী।

ভারতীয় সেনা সূত্রের খবর, উপগ্রহ চিত্রে দেখা যাচ্ছে, প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখার ওপারে প্রায় হাজার দশেক সেনা মোতায়েন করেছে চীন। এমন অবস্থায় মঙ্গলবার নয়াদিল্লিতে গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকে বসেছিলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন দেশটির জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল। এছাড়াও ছিলেন সংশ্লিষ্ট দপ্তরের শীর্ষ কর্মকর্তারা। ছিলেন তিন বাহিনীর প্রধানরাও। চিফ অব ডিফেন্স স্টাফ জেনারেল বিপিন রাওয়াতও অংশ নেন বৈঠকে।

ভৌগলিক দিক থেকে গারি গুনশা বিমান ঘাঁটির অবস্থান অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সেখান থেকে সামরিক ও অসামরিক ২ ধরনের বিমানই উঠানামা করে। এই মুহূর্তে ভারত-চীন সীমান্তের তিনটি সেক্টরেই উত্তেজনা জারি রয়েছে। গত ৫ মে থেকে পশ্চিমভাগ বা ওয়েস্টার্ন সেক্টরে লাদাখের প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখায় (এলএসি) সংঘাত চলছে।

‘ফিঙ্গার থ্রি’ ও ‘ফিঙ্গার ফোর’-এর মধ্যে রাস্তা তৈরির কাজে চিন প্রথম আপত্তি তোলে। একই সঙ্গে গালওয়ান উপত্যকার সঙ্গে সংযোগকারী রাস্তার কাজেও বেজিংয়ের আপত্তি রয়েছে। ৫ মে রাতে পূর্ব লাদাখের প্যাংগং লেকের কাছে চিন ভারতীয় সেনার নজরদারি বাহিনীকে বাধা দেয়।

পাশাপাশি পূর্ব ভাগে বা ইস্টার্ন সেক্টরের উত্তর সিকিমেও এ মাসের শুরুতে দুই সেনাবাহিনীর সংঘাত বাধে। সাধারণত সেন্ট্রাল সেক্টরের উত্তরাখণ্ড ও হিমাচল প্রদেশের অংশ শান্ত থাকে। কিন্তু সেখানেও বিক্ষিপ্ত ঘটনা ঘটেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...