আজ ৩রা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৯শে অক্টোবর, ২০২১ ইং

করোনা ভাইরাসের ভয়ের মধ্যেই খুলে যাচ্ছে সব অফিস

ডেক্স নিউজ : করোনা ভাইরাসের কারণে ঘোষিত ছুটি শেষে সীমিত আকারে খুলে দেয়া হচ্ছে দেশের সব সরকারি, আধা সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত এবং বেসরকারি অফিস। সারাদেশে যখন করোনার রোগী বৃদ্ধি পাচ্ছে, মৃতের সংখ্যা আগেরদিনকে ছড়িয়ে যাচ্ছে তখনই সব কিছু খুলে দেয়া হল। আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোও চলবে পুরোদমে। এমনকি সীমিত পরিসরে চলবে গণপরিবহন, যাত্রীবাহী নৌযান, ট্রেন ও বিমানও।

তবে এই সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করেছে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও সংশ্নিষ্ট বিশেষজ্ঞরা। তারা বলছেন, এমন সিদ্ধান্ত আত্মঘাতী। কিন্তু সরকারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে অর্থনীতি সচলের জন্য স্বাস্থ্যবিধি মেনেই এসব খোলা হবে। ১৫ জুন পর্যন্ত পরিস্থিতি দেখে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

তবে ততদিনে পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার অবস্থায় থাকবে কিনা, তা নিয়ে সংশয় রয়েছে বিশেষজ্ঞদের। কেননা, দেশে ‘লকডাউন’ও ঠিকভাবে করা যায়নি, যে কারণে ভাইরাস এখন ৬৪ জেলায়ই ছড়িয়ে পড়েছে।

করোনা প্রাদুর্ভাব এড়াতে গত ২৬ মার্চ থেকে শুরু হয় সাধারণ ছুটি। দফায় দফায় তা বাড়িয়ে সর্বশেষ গত ১৯ মে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের ঘোষণা অনুযায়ী ৩০ মে পর্যন্ত সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়। ৬৬ দিন বন্ধ থাকার পর শর্তসাপেক্ষে আজ থেকে সরকারি-বেসরকারি অফিস খুলে দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়।

এই সময় স্বাস্থ্য সুরক্ষায় স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ থেকে জারিকৃত ১৩ দফা নির্দেশনা কঠোরভাবে অনুসরণের পাশাপাশি সবাইকে অবশ্যই মাস্ক পরে অফিসে আসতে বলা হয়েছে। তবে বয়স্ক, অসুস্থ ও সন্তান সম্ভবাদের এ সময় অফিসে আসা মানা।

সরকারের পক্ষ থেকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার কথা বলা হলেও রবিবার থেকে যারা অফিস করবেন তাদের অনেকের মধ্যেই প্রাণঘাতী এই ভাইরাসে সংক্রমণের আতঙ্ক দেখা দিয়েছে।

সংক্রমণের ভয়ে আছেন সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারাও। নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন সরকারি কর্মকর্তা জানান, এখন দেশে করোনার প্রকোপ তুঙ্গে। এমন অবস্থায় অফিসে গিয়ে করোনায় আক্রান্ত হই কিনা তা নিয়ে ভয়ে আছি। আমাদের নির্দেশনার কথা বলা হলেও বাস্তবে কয়জন নির্দেশনা মেনে চলবেন তা নিয়ে দেখা দিয়ে সংশয়।

এবিষয়ে প্রিভেন্টিভ মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডা. এম এইচ চৌধুরী লেলিন বলেন, করোনার বিস্তার ঠেকাতে স্বাস্থ্য বিজ্ঞানের অনেক নিয়মনীতিই তোয়াক্কা করা হয়নি। প্রতিদিনই কোভিড-১৯ আক্রান্তের হার বৃদ্ধির মধ্যে ছুটি বা লকডাউন শিথিল করে দেয়ায় সংক্রমণের গতি আরও ঊর্ধ্বমুখি হওয়ার ঝুঁকি তৈরি হয়েছে। এই অবস্থায় স্বাস্থ্য বিজ্ঞানের নিয়মনীতিগুলো কঠোরভাবে পালন করতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...