আজ ২৬শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৯ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ ইং

পুলিশ বাহিনীতে সংক্রমণ, সুস্থ হয়ে জয়ী ও মৃত্যুর হার সবচেয়ে বেশি

ডেক্স নিউজ : চলমান বৈশ্বিক মহামারী করোনাযুদ্ধে জনগণের সুরক্ষা নিশ্চিত করতে গিয়ে সম্মুখযোদ্ধার খেতাব পাওয়া বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীতে সংক্রমণ, সুস্থ হয়ে জয়ী ও মৃত্যুর হার সবচেয়ে বেশি। এ বাহিনীতে গতকাল পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে প্রায় ৯ হাজার। প্রাণঘাতী নভেল করোনা ভাইরাসে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) ১৫ জনসহ সারাদেশে প্রাণ দিয়েছেন ৩১ জন পুলিশ সদস্য। আক্রান্তদের মধ্যে ইতোমধ্যে ৫ হাজার ১৩৩ সদস্য সুস্থ হয়ে কাজে যোগ দিয়েছেন। অনেকে বাড়ি ফিরেছেন। এ হিসেবে করোনা জয়ী সংখ্যা প্রায় ৫২ শতাংশ। সেক্ষেত্রে তুলনামূলকভাবে পুলিশে আক্রান্ত, সুস্থ ও মৃত্যুর হারে একক পেশা হিসেবে সর্বোচ্চ বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন।

পুলিশের দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা বলেছেন, করোনা মহামারীর শুরু থেকেই সারাদেশে সম্মুখযোদ্ধার কাজ করে যাচ্ছে পুলিশ বাহিনীর মাঠ পর্যায়ের সদস্যরা। জনগণের নিরাপত্তাকে অগ্রাধিকার দেয়া, করোনা উপসর্গ থাকা ও আক্রান্ত ব্যক্তিদের চিকিৎসা সেবায় সহযোগিতা প্রদান, এমনকি মৃত্যুর পর লাশ গ্রহণ ও দাফনে সহযোগিতা, মাঠ পর্যায়ে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা, কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করা, দরিদ্র ও নিম্ন-মধ্যবিত্ত গোষ্ঠীকে খাদ্য সরবরাহসহ জনগণকে সব ধরনের সেবা দিয়ে যাচ্ছে পুলিশ। সে জন্য হয়তো এ বাহিনীর সবচেয়ে বেশি সদস্য করোনা ভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছেন। করোনায় আক্রান্তের পরও দায়িত্ববোধ ও সেবার জন্য দেশবাসীর প্রশংসা কুড়িয়েছে পুলিশ বাহিনী।

ওই কর্মকর্তারা জানান, পুলিশ সদস্যদের মধ্যে করোনা সংক্রমণ ঝুঁকি কমাতে পুলিশের ইন্সপেক্টর জেনারেল (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ ও ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলামসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নির্দেশে বিভিন্ন ধরনের প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। একই সঙ্গে আক্রান্ত পুলিশ সদস্যদের জন্য সর্বোত্তম সেবা ও শুশ্রূষা নিশ্চিত করতে বেসরকারি হাসপাতাল ভাড়া করাসহ সকল পুলিশ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণ উন্নত চিকিৎসা সরঞ্জামাদি সংযোজন করা হয়েছে। এ কারণে পুলিশে সুস্থতার হারও সবচেয়ে বেশি।

এদিকে গতকাল সোমবার পুলিশ সদর দফতর থেকে জানানো হয়, করোনায় (কোভিড-১৯) আক্রান্ত প্রায় নয় হাজার পুলিশ সদস্যের মধ্যে গতকাল পর্যন্ত পুলিশের ৫ হাজার ১৩৩ সদস্য সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। সুস্থ হওয়া পুলিশ সদস্যদের অনেকেই জনগণের সেবায় নিজেকে নিযুক্ত করতে ফের কাজে যোগ দিয়েছেন।

পুলিশের তত্ত্বাবধানে পরিচালিত হাসপাতালগুলোর উন্নত ও মানসম্মত ‘চিকিৎসা ও সেবায় সুস্থতার হার দ্রততার সঙ্গে বাড়ছে। তবে এখন পর্যন্ত পুলিশের ৩১ জন গর্বিত সদস্য চলমান করোনাযুদ্ধে দেশের জন্য সর্বোচ্চ স্বীকার ত্যাগ করে জীবন উৎসর্গ করেছেন। সহকর্মী হারানোর শোককে শক্তিতে পরিণত করে দেশসেবায় কাজ করে যাচ্ছে পুলিশ।

ডিএমপি সূত্র জানায়, বাংলাদেশ পুলিশের সবচেয়ে বড় ইউনিট সব ইউনিটকে ছাড়িয়ে মহামারী করোনা প্রতিরোধ যুদ্ধে সবচেয়ে বেশি সংখ্যক আক্রান্ত ও মৃত্যুর রেকর্ড হয়েছে ঢাকা মহানগর পুলিশে (ডিএমপি)। এ পর্যন্ত ঢাকা মহানগর পুলিশে কর্মরতদের মধ্যে আক্রান্ত হয়েছেন দুই হাজার ১২০ জন সদস্য।

একই সূত্র মতে, কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতাল ও ইমপালস হাসপাতালের চিকিৎসকদের নিরলস পরিশ্রম ও আন্তরিক চিকিৎসায় ইতোমধ্যে ডিএমপির ১৬১২ জন সুস্থ হয়েছেন। আক্রান্ত বিবেচেনায় ডিএমপিতে সুস্থতার হার ৭৬.০৩ শতাংশ। প্রাণঘাতী এই ভাইরাসে ডিএমপির ১৫ জন পুলিশ জীবন উৎসর্গ করেছেন। আক্রান্ত বিবেচনায় ডিএমপিতে মৃত্যুর হার ০.৭ শতাংশ বলে জানা গেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...