আজ ২০শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৪ঠা জুলাই, ২০২০ ইং

তিস্তায় পানি কমলেও দূর্ভোগ কমেনি বানভাসিদের, ক্ষতি পুষিয়ে নিতে তৎপর সংশ্লিষ্টরা

রংপুর প্রতিনিধি: হঠাৎ করে রক্ষুসি রূপ ধারন করে মরা তিস্তা। টানা বৃষ্টি ও ওপারের ঢলে বৃহস্পতিবার (২৪ জুন) থেকে দু’কুল ছাপিয়ে নদীতে পানি বয়ে যায়। তিস্তা ব্যারেজ পয়েন্টে বিপদ সীমার ২০ কখনও বা ১৮ আবার কখনও ১৫সেন্টিমিটার ওপরে উঠে পানি। যদিও সোমবার (২৮ জুন) সকাল ৬টায় গর্জন থেমে যায় এই নদীর, কমে যায় পানিও। সকাল ৯টায় নদীতে পানির প্রবাহ থাকে ২ সেন্টিমিটার ওপরে। আর বেলা ১২ টার পর থেকে দ্রুতই পানি কমতে থাকে। সন্ধ্যা ৬টায় তিস্তা ব্যারেজ পয়েন্টে নদীর পানির প্রবাহ এসে দাড়ায় বিপদ সীমার ৮ সেন্টিমিটার নিচে। তবে গত পাঁচ দিন ধরে রংপুরের গংগাচড়া, কাউনিয়া, পীরগাছার তিন উপজেলার ২৪ ইউনিয়নের নিম্নাঞ্চল ও চরের প্রায় ৩০ হাজার মানুষের কস্টের সীমা ছিলোনা।

গংগাচড়ার কোলকোন্দ ইউনিয়ন চেয়ারম্যান সারোয়ার রাজু জানালেন, বন্যায় উপজেলার ৯ ইউনিয়ের মধ্যে তার ইউনিয়নে বেশি ক্ষয়ক্ষতি হয়। এবারো তাই হয়েছে। ইউনিয়নের চর চিলাখাল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বাঁধ ভেংগে ৬শ’ ফুট এলাকা বিধস্ত হয়েছে। চিলাখাল ঢাকের চর, উত্তর চিলাখাল, মধ্যে চিলাখাল সহ বিনবিনিয়া গ্রামের এলজিইডির করা নতুন পাকা সড়কের আধা কিলোমিটার সড়ক গিলে খেয়েছে তিস্তা। নিজ উদ্যোগে এলাকাবাসীর সহযোগিতায় প্রাথমিকভাবে ভাংগনরোধে কাজ করছেন তিনি। পানিবন্দি মানুষদের যতটুকু পেয়েছেন খাদ্য সহযোগিতা দিয়েছেন। চিলা খালের বাসিন্দা সফিকুল ইসলাম (৬৫) জানালেন, ঘুম ভেঙে দেখেন বাড়ির ভেতরে কোমর পানিতে ভরে গেছে। কিছু বোঝার আগেই সব তলিয়ে গেছে। ঘোড়ার গাড়ি চালিয়ে নির্ভর ৫ জনের সংসারে হঠাৎ বন্যার মতো অন্ধকার। চার দিক থই থই পানিতে ঘরবন্দি সবাই। সোমবার পানি কমায় সূদের ওপর টাকায় চাল কিনে তা রান্না করে তিনদিন পর খেতে পরেছেন। একই গ্রামের বেলাল(৩০), মকবুল হোসেন (৫৫) সহ অনেকেই অভুক্ত আছেন। জলজটে তারও এক বেলা খেলেও পরের বেলায় ছিলেন উপোস।  টানা পাঁচদিনের পানিযুদ্ধে টিকতে না পেরে অনেকেই আশ্রয় নিয়েছেন উচু স্থানে। বিচ্ছিন্ন হয়েছে যোগাযোগ ব্যাবস্থাও। কষ্টের ফসল ঘরে তুলতে না পেরে অসহায় তারা। বানের পানিতে তলিয়ে গেছে কষ্টের ফসল। ভেসে গেছে পুকুরে থাকা স্বপ্নের মাছ। সবহারা মানুষরা এখন অনেকটাই দিশেহারা। জেলা প্রশাসক আসিব আহসান  জানিয়েছেন, পানি বন্দি মানুষদের সহযোগিতা দিতে প্রস্তুত প্রশাসন। বিতরনের অপেক্ষায় ২শ’ ৩০ টন চাল ও সাড়ে ১০ লাখ টাকা। ইতোমধ্যে সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাহী অফিসারের দপ্তরে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। দ্রুত সময়ে তা বিতরনের আশ্বাষ দেন তিনি।

আর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মেহদী হাসান জানিয়েছেন, জলবায়ুর পরিবর্তনের কারনে এক সপ্তাহের ব্যাবধানে এই দুই বন্যা ছিলো হঠাৎ বন্যা। যদিও এ বন্যায় তিস্তা নদীর প্রধান বাঁধের বড় ক্ষতি না হলেও অতি বৃষ্টির কারনে বিছিন্নভাবে ৭শ’ মিটার নদীর প্রতিরক্ষা বাঁধের ক্ষতি হয়েছে। সেগুলোও জরুরি ভিত্তিতে মেড়ামতের কাজ চলছে। আগামী ১৫ দিনের মধ্যে তিস্তায় নতুন করে আর বন্যা না হওয়ার আশা প্রকাশ করেন তিনি।

এদিকে কৃষি অঞ্চলের নীলফামারী, লালমনিরহাট, কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধা ও রংপুরসহ ৫ জেলায় যে ৯ হাজার ৩শ’ হেক্টরের ফসল নস্ট হয়েছে তা পুষিয়ে নেয়ার সব উদ্যোগ নিয়েছে কৃষি অধিদপ্তর। বিভাগীয় কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের অতিরিক্ত পরিচালক মোহাম্মদ আলী জানিয়েছেন, চলতি মৌসুমে আমন চাষের লক্ষমাত্রা ধরা হয়েছে ৬ লাখ ৯ হাজার হেক্টর জমি। বানের পানিতে যেসব এলাকায় বীজতলা নস্ট হয়েছে সেইসব এলাকার কৃষকের জন্য ২শ’ ২২ একরে লাগানো সরকারি বীজ প্রনোদনা হিসাবে দেয়া হবে। এজন্য মাঠ পর্যায়ে দিনরাত কাজ করছে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...