আজ ২৩শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৬ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ ইং

স্বাক্ষর জাল করে বিল উত্তোলনের চেষ্টা করায় ‘আত্ন উন্নয়ন সংস্থার’ নির্বাহী পরিচালক ফরহাদ হোসেনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের

ফুলছড়ি (গাইবান্ধা) প্রতিনিধি: গাইবান্ধার ফুলছড়িতে উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরোর
আওতায় পরিচালিত মৌলিক সাক্ষরতা প্রকল্পের কেন্দ্র মালিকদের স্বাক্ষর জাল করে বিল উত্তোলনের চেষ্টা।

এবিষয়ে সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছে ভুক্তভোগীরা।

উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরোর আওতায় ৬৪ জেলায় কার্যক্রমের অংশ হিসেবে গাইবান্ধার
ফুলছড়ি উপজেলায় ২০১৯ সালের জানুয়ারী থেকে জুন পর্যন্ত মৌলিক সাক্ষরতা কার্যক্রম
বাস্তবায়ন করা হয়।

প্রকল্পটি বাস্তবায়নে দায়িত্ব পায় সাঘাটার উপজেলার আত্ম উন্নয়ন সংস্থা নামে একটি বে-সরকারি সংগঠন। প্রকল্পের শুরু থেকে সংস্থাটি বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির সাথে জড়িয়ে পড়ে। সর্বশেষ শিখন কেন্দ্রের মালিকদের জ্বালানি বিল, ঘরভাড়া ও সভার খরচ প্রদান না করে জাল স্বাক্ষরের মাধ্যমে ভুয়া বিল ভাউচার দাখিল করেছেন।

ফুলছড়ি উপজেলায় ৩০০টি শিখন কেন্দ্রের প্রতিটির মাসিক সভা খরচ ১৫০ টাকা হিসেবে ছয় মাসে দুই লক্ষ ৭০ হাজার টাকা এবং ১৫০টি শিখন কেন্দ্রের ঘরভাড়া ও জ্বালালি বাবদ মাসিক এক হাজার টাকা হিসেবে ছয় মাসে ৯ লক্ষ টাকা মালিকদের প্রদান না করেই আত্মসাতের চেষ্টা করছেন সংস্থাটির নির্বাহী পরিচালক ফরহাদ হোসেন। প্রকল্পটি ২০১৯ সালের জুন মাসে শেষ হলেও শিখন কেন্দ্রের মাসিক জ্বালানি বিল, ঘরভাড়া ও সভার খরচ এখনও প্রদান করা হয়নি। প্রকল্প শেষে জ্বালানি বিল, ঘরভাড়া ও সভার খরচের টাকা উত্তোলনের জন্য শিখন কেন্দ্রের মালিকদের স্বাক্ষর জাল করে তৎকালীন সময়ে ফুলছড়ি উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে বিল ও ভাউচার দাখিল করেন সংস্থাটির নির্বাহী পরিচালক ফরহাদ হোসেন। বিষয়টি জানতে পেরে শিখন কেন্দ্রের মালিকরা উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল হালিম টলষ্টয়ের কাছে লিখিত অভিযোগ দাখিল করলে তিনি একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে দেন। কমিটি সরেজমিন তদন্ত করে অভিযোগের সত্যতা পায়। এ সময় আত্ম উন্নয়ন সংস্থার পরিচালক ফরহাদ হোসেন কেন্দ্র মালিকদের সমুদয় টাকা বুঝিয়ে দিয়ে পুনরায় বিল দাখিল করবেন বলে প্রতিশ্রæতি দেন। এর কিছুদিন পরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবদুল হালিম টলষ্টয় বদলী হয়ে অন্যত্র চলে যান। সম্প্রতি সংস্থাটির পরিচালক ফরহাদ হোসেন শিখন কেন্দ্রের মালিকদের পাওনা টাকা না দিয়ে সংশ্লিষ্টদের স্বাক্ষর জাল করে ভুয়া মাষ্টারোলের মাধ্যমে অত্যন্ত গোপনে ফুলছড়ি উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবু রায়হান দোলনের কাছে বিল প্রদানের জন্য দাখিল করেন। উপজেলা নির্বাহী অফিসার যাচাই-বাছাই না করে তার দাখিলকৃত বিল প্রদানের জন্য উর্ধতন কর্তৃপক্ষের নিকট সুপারিশ করেন।

বিষয়টি জানাজানি হলে শিখন কেন্দ্রের মালিক ও সুপারভাইজাররা গাইবান্ধা জেলা প্রশাসক সহ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছেন। অভিযোগের বিষয়ে আত্ম উন্নয়ন সংস্থার নির্বাহী পরিচালক ফরহাদ হোসেন বলেন, কেন্দ্র মালিকদের টাকা প্রদান করা হয়েছে। স্বাক্ষর জাল করার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি মোবাইলের লাইন কেটে দেন।

এবিষয়ে জানতে চাইলে ফুলছড়ি উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবু রায়হান দোলন বলেন, বিলটি শেষ মুহুর্ত্তে দাখিল করায় যাচাই-বাছাই করার সুযোগ হয়নি। তাছাড়া মৌলিক সাক্ষরতা প্রকল্পের সাঘাটা উপজেলা কর্মকর্তা বিলটিতে স্বাক্ষর করে দাখিল করায়
বিলটি প্রদানের জন্য উর্ধতন কর্তৃপক্ষের নিকট প্রেরন করেছি।

উল্লেখ্য, প্রকল্পের শুরু থেকে আত্ম উন্নয়ন সংস্থার নির্বাহী পরিচালক ফরহাদ হোসেন নিয়মনীতি উপেক্ষা করে কেন্দ্র সহায়ক-সহায়িকা নিয়োগ প্রদান করেন। তৎকালীন উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার তার অনিয়মের প্রতিবাদও করেছিলেন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...