আজ ২২শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৫ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ ইং

 বন্যা কবলিত এলাকায়  মাইকিং ও লিফলেট বিতরণ করল পল্লিবিদ্যুৎ সমিতি

ফুলছড়ি প্রতিনিধি : গাইবান্ধার ফুলছড়ি উপজেলার বন্যা কবলিত এলাকায় সচেতনতামূলক মাইকিং ও লিফলেট বিতরণ করেছে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি। ভারী বৃষ্টিপাত ও পাহাড়ি ঢলের কারণে নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় ফুলছড়িতে বন্যা পরিস্থিতি দেখা দিয়েছে। বন্যার পানিতে পোল এবং বৈদ্যুতিক সরঞ্জামাদি ভিজে গিয়ে বিদ্যুৎ পরিবাহী হয়।

 

এ সময় কোন মানুষ কিংবা গবাদি পশু বৈদ্যুতিক খুঁটি কিংবা অন্যান্য সরঞ্জামাদির সংস্পর্শে আসলে বিদ্যতায়িত হয়ে দুর্ঘটনার শিকার হতে পারেন। এমনকি এ সকল দুর্ঘটনায় মৃত্যুও ঘটতে পারে। এ পরিস্থিতিতে কিছু সতর্কতা অবলম্বনের জন্য জনসাধারণকে অনুরোধ করেছে গাইবান্ধা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি।

 

সমিতির পক্ষ কালিরবাজার সাব-জোনাল অফিসের জুনিয়ার ইঞ্জিনিয়ার তৌহিদুল ইসলাম ও লাইনম্যান শফিউল আলম মঙ্গলবার (১৪ জুলাই) সারাদিনব্যাপী ফুলছড়ি উপজেলার কাতলামারী, গজারিয়া, রতনপুর, সিংড়িয়া, গুনভরি, মশামারী, উড়িয়া, কেতকিরহাট, ঘোলদহ, কঞ্চিপাড়া সহ বন্যা কবলিত বিভিন্ন এলাকায় মাইকিং ও গ্রাহকদের বাড়ি বাড়ি ঘুরে সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ করেন।

 

গাইবান্ধা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির সহকারী জেনারেল ম্যানেজার আলহাজ উদ্দিন সেখ জানান, বন্যার সময় বৈদ্যুতিক খুঁটি ও বৈদ্যুতিক সরঞ্জামাদি ভিজে গিয়ে বিদ্যুৎ পরিবাহী হয়। একারণে মানুষ ও গৃহপালিত জীবজন্তু যাতে এসব সরঞ্জামাদির স্পর্শে না আসে সে ব্যাপারে সতর্ক থাকতে হবে। বন্যার কারণে পানির উচ্চতা বৃদ্ধি পেয়ে বৈদ্যুতিক তারের দূরত্ব কমে গিয়ে নৌকার ছই কিংবা লগি বৈঠার সংস্পর্শে এসে দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

 

কেউ বৈদ্যুতিক তারে আটকে গেলে তাকে মুক্ত করার জন্য খালি হাতে স্পর্শ না করে শুকনো কাঠ বা বাঁশ ব্যবহার করতে হবে। এছাড়া কোনও বৈদ্যুতিক খুঁটি হেলে পড়লে, তার ছিঁড়ে গেলে কিংবা কোনও দুর্ঘটনা ঘটলে সঙ্গে সঙ্গে পল্লী বিদ্যুৎ অফিসকে অবহিত করার জন্য অনুরোধ করেন তিনি।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...