আজ ১৭ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৩১শে জানুয়ারি, ২০২৩ ইং

মাতৃ সদন থেকে বিতাড়িত হয়ে রাস্তায় সন্তান প্রসব করলেন প্রসুতী

গাইবান্ধা প্রতিনিধি :গাইবান্ধায় মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রে ঠাঁই না পাওয়ায় রাস্তায় সন্তান প্রসব করেছেন এক প্রসূতি। গতকাল দিবাগত গভীর রাতে মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র থেকে বিতাড়িত হয়ে শহরের ডিবি রোডে সন্তান প্রসব করেন তিনি। পরে পুলিশের সহযোগিতায় অসুস্থ অবস্থায় মা ও নবজাতককে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এর আগেও এই কেন্দ্র থেকে প্রসূতিকে তাড়িয়ে দেওয়ার ঘটনা ঘটেছে। পরে সেই প্রসূতিও অটোরিক্সায় সন্তান প্রসব করেন।

ভুক্তভোগীর স্বজন ও পুলিশ জানায়, মঙ্গলবার গভীর রাতে সাঘাটা উপজেলার বোনারপাড়া গ্রামের গৃহবধু জেমি বেগম প্রসব বেদনা নিয়ে সিনএনজিতে করে মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রে আসেন। কিন্তু সেখানে কোনো চিকিৎসক ছিলেন না। পরে কেন্দ্রের পরিদর্শক সেলিনা আক্তার প্রসূতিকে ভর্তি না করিয়ে তাদের অন্যত্র যেতে বলেন। এ সময় তারা ভর্তি করার জন্য কাকুতি-মিনতি করলে পরিদর্শকসহ কেন্দ্রে থাকা স্বাস্থ্যকর্মী ও আয়ারা মিলে প্রসূতিসহ তার স্বজনদের জোরপূর্বক বের করে দেয়। সেখান থেকে বিতাড়িত হয়ে শহরের ডিবি রোডের পরিত্যাক্ত একটি ঘরে ওই প্রসূতি মেয়ে সন্তান প্রসব করেন। পরে এলাকাবাসী ও পুলিশের সহযোগিতায় অসুস্থ্য অবস্থায় মা ও শিশুকে গাইবান্ধা সদর হাসপাতালে ভর্তি হয়।

প্রসূতির স্বজনদের অভিযোগের বিষয়ে মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রের পরিদর্শক সেলিনা আক্তার বলেন, ‘ডাক্তার রাতে ফোন ধরেন না, তাই তাকে ফোন দেওয়া হায়নি। আর যেহেতু আমি একা ছিলাম সেহেতু তাকে ডেলিভারি কারানোর মতো ঝুঁকি নিতে পারিনি। তবে তাদের ওপর কোনো মারধরের ঘটনা ঘটেনি। গাইবান্ধা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শাহরিয়ার বলেন, ‘প্রসূতি মা চিকিৎসা না পেয়ে রাস্তায় সন্তান প্রসব করেছে- এমন খবর পেয়ে তাকে সন্তানসহ উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে ভর্তি করে দিয়েছি। তার চিকিৎসার সার্বিক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।’

উল্লেখ্য, গত ৬ এপ্রিল সদর উপজেলার লক্ষীপুর ইউনিয়নের গোবিন্দপুর গ্রামের প্রসূতি মিষ্টি আকতারকে মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র থেকে তাড়িয়ে দেন কেন্দ্রের সিনিয়র স্বাস্থ্যকর্মী তৌহিদা বেগম। সেই প্রসূতিও কেন্দ্রের কয়েকশ’ গজ দূরেই অটোরিক্সায় সন্তান প্রসব করেন। এর মাত্র চার মাস পরে আবারও একই ধরনের ঘটনা ঘটল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...