আজ ১লা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৬ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ ইং

সুন্দরবনের জেলেদের চোখে জল, সংসার অচল

সুন্দরবন  প্রতিনিধি: আমাদের কথা কেউ শোনে কেউ শোনে না। যাবো কোথায়। যাদের নুন আনতে পানতা ফুরাই তাদের আবার বেঁচে থাকা। এই আছি কোন রাকম। কেমন আছেন প্রশ্ন করতেই বয়োবৃদ্ধ শ্যামনগর উপক‚লের জেলে রজমান আলী এভাবেই জানালেন তার ভালো থাকার কথা। তিনি আরো জানান, করোনা ভাইরাস নিয়ে আতঙ্ক চলছে। তাই নদীতে মাছ ধরতে যেতে নিষেধ করেছে কোস্টগার্ড। এদিকে ঘরে কোন খাবার নেই। বয়সের ভারে শরীরটাও ভালো যাচ্ছে না। ডাঙায় কাজ কাম করে খাব সে উপায়ও নেই। করোনার কারণে কোথাও কেউ কাজে ডাকে না। আমার মতো জেলে বাউয়ালীদের জীবন কাটছে অতি কষ্টে। জেলার সর্বদক্ষিণে সুন্দরবনের কোল ঘেঁষা উপক‚লীয় উপজেলা শ্যামনগর। উপজেলার হরিনগর ও কৈখালী গ্রামের আবু বক্কার, জমাদ্দার আলীসহ অনেকেই জানান, করোনা ভাইরাস প্রতিরোধের চেয়ে তাদের কাছে তিনবেলা খাবার খেয়ে জীবন বাঁচানোটাই এখন দায় হয়ে পড়েছে। তারা সুন্দরবন সংলগ্ন নদীতে মাছ ধরতে পারছেন না। নদীতে থাকার কারণে তারা কোনো রাজনীতি করারও সুযোগ পান না। সে ভাবে খায় খাতিরও তৈরি হয় না স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সাথে। যে কারণে কোন নেতা বা জনপ্রতিনিধির সহযোগিতা তারা পাচ্ছেন না। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে জনসমাগম ও চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। এতে কর্মহীন হয়ে পড়েছে কর্মজীবী মানুষ। বিশেষ করে কাজ হারিয়ে বিপাকে পড়েছেন উপক‚লীয় জেলেপল্লীর এসব জেলেরা। সংসার চালাতে গিয়ে হিমশিম খাচ্ছেন তারা। সবমিলিয়ে গত কয়েক দিনে তাদের জীবন হয়ে উঠেছে দুর্বিষহ। যথাসময়ে শ্যামনগরের জেলেরদের কাছে খাদ্য সহায়তা না পৌঁছানোর কারণে ২৩ হাজার জেলে পরিবারে কাটছে মানবেতর জীবন। জেলেরা জানান, অন্য পেশার মানুষ বারো মাস আয় রোজগার করতে পারেন। তারা শৈশব থেকেই জাল, নৌকা আর নদীকেই ভালোবেসে এসেছেন। ফলে অন্য পেশায় তারা ফিরে যেতে পারছে না। অন্যদিকে বছরে কয়েক দফা মাছ শিকারে নিষেধাজ্ঞা দেয় সরকার। এজন্য সঞ্চয় বলতে তাদের হাতে অবশিষ্ট কিছু থাকে না যা আপদ কালীন সময়ে খেয়ে পড়ে বেঁচে থাকবে। ক্ষুধার তাড়নায় নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে মাঝেমধ্যে পেটের দায়ে কেউ মাছ ধরতে নদীতে নামলে ভ্রাম্যমাণ আদালত আটক করে জেল-জরিমানা, জাল-নৌকা জব্দ করে। এতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন অনেক জেলে। এর কারণে এখন করোনার এই সময়ে কেউ ঝুঁকি নিয়ে মাছ ধরতেও নামছেন না। উপজেলার গাবুরা ইউপি চেয়ারম্যান মাসুদুল আলম জানান, করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে জেলেদের নদীতে মাছ ধরতে যাওয়া বন্ধ থাকলেও তাদের জন্য আলাদাভাবে কোন খাদ্য সহায়তা বরাদ্দ নেই। তবে তারা সরকারের খাদ্য বান্ধব কর্মসূচী (ফেয়ার প্রাইজ) কেজি প্রতি ১০ টাকা দরের চাউল ক্রয় করতে পারবে। তিনি গত দুই দিনে সরকারী ভাবে বরাদ্দ পাওয়া শতাধিক গরীব ও অসহায় পরিবারের মাছে খাদ্য সহায়তা প্রদান করেছেন। এর মধ্যে জেদেরকে দেয়া হয়নি। উপজেলার জেলে পল্লীগুলোতে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বিশাল এ জেলে পরিবারকে কোনো জি আর চালসহ সরকারি সহযোগিতাও দেওয়া হয়নি। ঝড়, জলোচ্ছ¡াস কিংবা দস্যু, সবকিছুই মোকাবিলা করে সুন্দরবন সংলগ্ন নদ-নদীতে এসব জেলেরা মাছ শিকার করে থাকেন। জীবিকার জন্য জীবন বাজি রেখে প্রকৃতির সঙ্গে যুদ্ধ করে অনেক সময় তাদের অথৈই সাগরে যেতে হয় মাছ শিকারে। বর্তমানে করোনার কারণে তারা কাজে যেতে পারছেন না। এর কারণে তিন বেলা খাবারও জুটছে না এসব কর্মহীন জেলেদের। উপজেলার মুন্সিগঞ্জ গ্রামের মাছ শিকারি একরামুল হোসেন, সাব্বির রহমানসহ কয়েকজন বলেন, পরিবার নিয়ে এখন বেঁচে থাকায় কষ্টের হয়ে গেছে। নদীতে মাছ ধরতে দিচ্ছে না। গ্রামেও কোনো কাজ নেই। দুই মুঠো ভাতের জোগাড় করতেই হিমশিম খেতে হচ্ছে। সুন্দরবন সংলগ্ন পদ্মপুকুর গ্রামের (জেলে পল্লী) জেলে সামছুর রহমান বলেন, জেলেদের এখন খারাপ দিন। নৌকা নিয়ে নদীতে মাছ ধরতে যেতে দিচ্ছে না। স্ত্রী পুত্র নিয়ে খুব কষ্টের মধ্যে আছি। মাছের ধরেই সংসার চলে। তিনি আরও বলেন, এই পল্লিতে প্রায় আড়াই হাজার মানুষ থাকে। অন্যান্য এলাকা থেকে মাছের মৌসুমে আরও ৫ হাজার মানুষ আসে। করোনায় ভয়ে এখন কোথাও মাছ ধরতে দেয় না। তাই জাল, দড়ি, লগি, বৈঠা, নৌকা ঠিক করে সময় কাটছে। সুন্দরবন তীর ঘেঁষা ইউনিয়ন পদ্মপুকুর ইউপি চেয়ারম্যান ভবতোষ কুমার মন্ডল জানান, করোনা ভাইরাস সচেতনতায় জেলে সমাজসহ তার এলাকায় সাধারণ মানুষও ঘরবন্দি। কাউকেই বাইরে বাড়ির বাইরে যেতে দেয়া হচ্ছে না। এ অবস্থায় জেলেসহ শ্রমিক শ্রেণির মানুষেরা বেশি সমস্যায় আছে। তিনি আরো জানান, আদিবাসী, মুন্ডা সম্প্রদায়, আশ্রয়ণ প্রকল্পে ও গুচ্ছ গ্রামের গরীব ও অসহায়দের জন্য খাদ্য সহায়তা প্রদান করা হয়েছে। জেলেদের জন্য আলাদা কোন বরাদ্দ না থাকায় তাদের জন্য কিছু করা সম্ভব হয়নি। তার এলাকার জেলে শ্যামসুন্দর বলেন, নদীতে স্ত্রীকে নিয়ে তিনি পোনা ও সাদা মাছ ধরে সংসার চালাতাম তাও এখন বন্ধ। তিনি বলেন, এলাকার সব জেলেরা করোনার কারণে সবাই কর্মহীন হয়ে পড়েছেন। যাদের অনেকের চুলা এখন জ্বলছে না। সাতক্ষীরার তালা, আশাশুনি, শ্যামনগর ও কালিগঞ্জ এলাকার প্রায় লক্ষাধিক জেলে-মাঝির এভাবেই দুর্বিষহ জীবন চলছে। মাছ ধরতে পারছেন না। শ্যামনগর উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা তুষার কুমার মজুমদার বলেন, করোনা সতর্কতায় জেলেরা এখন কর্মীহীন হয়ে পড়েছেন। শুধু শ্যামনগর উপজেলায়ই ২৩ হাজার ১৭৮ জন জেলে রয়েছে। কর্মহীন এসব জেলেদেরকে ও সরকারি-বেসরকারি সাহায্য সহযোগিতা প্রদান করা জরুরী। এদিকে কোস্টগার্ডের মংলা জোনাল অফিসার হাবিবুল আলম জানান, ১৪ টি স্টেশন থেকে জেলেদেরকে কিছু কিছু সহায়তা দেয়ার চেষ্টা চলছে। ইতি মধ্যে মংলার করমজল এলাকায় ২০০ জন জেলেকে খাদ্য সহায়তা দেয়া হয়েছে। পর্যায়ক্রমে সব এলাকায় লোক সমাগম এড়িয়ে জেলেদের সহায়তা দেয়ার চিন্তাভাবনা আছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...