আজ ১২ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৬শে মে, ২০২০ ইং

অসহায় এক প্রসূতির দায়িত্ব নিলেন জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক বিমান

 নওগাঁ প্রতিনিধ : অসহায়, দু:স্থ, গৃহ নির্মান শ্রমিক সনি। দিন মজুরের কাজ করে খেতেন তিনি। করোনা ভাইরাসের কারণে সেই কাজও করতে পারছে না। ঘরে নেই খাবার, স্বামী নেয় না কোন খোঁজ খবর। তার উপর জন্ম দিয়েছেন সদ্য ফুটফুটে এক সন্তান। নিজের দুবেলা দুমুঠো খাবার জোগাতে যখন হিমশিম খেতে হচ্ছে তখন সদ্য ভুমিষ্ঠ সন্তান নিয়ে পরেছে বিপাকে। তখনই পাশে দাড়ালেন নওগাঁ জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক বিমান কুমার রায়। তাদের খাবারসহ চিকিৎসার দায়িত্ব নিলেন তিনি। এ ঘটনায় এলাকায় বেশ চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। প্রশংসায় ভাসছেন যুবলীগ নেতা বিমান।গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে শহরের আনন্দনগর এলাকার সরদারপাড়া মহল্লার বাসিন্দা নির্মাণ শ্রমিক সনি খাতুন ও তার ৩ দিনের সদ্য ভূমিষ্ঠ কন্যা সন্তানের দায়িত্ব নিয়েছেন। তাৎক্ষনিক সন্তান ও প্রসূতির চিকিৎসার ব্যবস্থা গ্রহন করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন নওগাঁ পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মোজাম্মেল হক মজনু।
জানা যায়, পাশের চাপাইনবাবগঞ্জ জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার বাসিন্দা সনি। ধর্মান্তরিত হয়ে বিয়ে করেছেন এক ছেলেকে। সম্প্রতি সনি খাতুনকে ছেড়ে চলে যায় তার স্বামী। এদিকে ধর্মান্তরিত হওয়ার কারনে বাবার বাড়িরও কেউ খোঁজ নেয়না তার। এই অবস্থায় সনি খাতুন নির্মাণ শ্রমিকের কাজ করে কোন রকমে দিন যাপন করে আসছিলেন। বর্তমানে করোনা ভাইরাসের কারনে কর্মহীন হয়ে পড়ে সনি খাতুন। ঘরে তার কোন খাবার নাই। স্বামীও খোঁজ খবর নেয়না। এই অসহায অবস্থায় গত তিনদিন আগে সনি খাতুন কন্যা সন্তানের জন্ম দেয়। এক রকম অভূক্ত অবস্তায় সন্তানের জন্ম দেওয়ায় মা ও সন্তান অসুস্থ্হয়ে পড়ে। প্রতিবেশীদের সহায়তায় একবেলা খাবার খেয়ে কোনভাবে দিনযাপন করছিলেন সনি খাতুন। বিনা চিকিৎসায় ও না খেয়ে সনি খাতুন মানবেতর জীবন যাপন করছেন এমন খবর পাওয়ার পরেই যুবলীগের নের্তৃবৃন্দদের সাথে বিমান কুমার রায় ওই প্রসূতির ভাড়া ভাসায় গিয়ে তার ও সন্তানের দায়িত্ব গ্রহন করেন। এসময় স্থানীয় কাউন্সিলর মোজাম্মেল হক মজনুও ওই প্রসূতিকে আর্থিক সহায়তা প্রদান করেন।
নওগাঁ জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক বিমান কুমার রায় বলেন, মানুষ মানুষের জন্য। মানুষের বিপদে মানুষই এগিয়ে আসবে এটাই স্বাভাবিক। সেই মানবিক দিক থেকেই আমি এগিয়ে এসেছি। তাছাড়া জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, এই দেশে একটি মানুষও না খেয়ে থাকবে না এবং বিনা চিকিৎসায় কেউ মারা যাবে না। আমি প্রধানমন্ত্রী ও যুবলীগের একজন কর্মি হিসেবে আমার সাধ্যমত ওই মহিলার ও সন্তানের দায়িত্ব নেওয়ার চেষ্টা করেছি মাত্র। এতে আমার খুব ভাল লাগছে। তিনি আরো বলেন, আমরা সবাই যদি সবার প্রতি মানবিক হই এবং অসহায়দের প্রতি সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিই তবেই সম্ভব স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ গড়া। তাই তিনি সরকারের পাশাপাশি সমাজের সকল বিত্তবানদের নিকট তাদের সামর্থ অনুযায়ী অসহায় দু:স্থ মানুষেরদের সাহায্যে এগিয়ে আসার জন্য অনুরোধ জানান ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...