আজ ৭ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২১শে জুন, ২০২১ ইং

মেহেদুল  হত্যার অভিযোগে জনতার হাতে আটক ৩

গাইবান্ধা  প্রতিনিধি: সড়ক দূর্ঘটনা নাকি হত্যা এ নিয়ে চলছে নানা জল্পনা কল্পনা স্থানীয়দের সহ জেলা জুড়ে শুরু হয়েছে ধুম্রজাল।

এ বিষয়ে গোবিন্দগঞ্জ থানা অফিসার ইনচার্জ জানান, দিনের বেলায় পলাশবাড়ী থানা এলাকার ঢোলভাঙ্গা এলাকায় সড়ক দূর্ঘটনায় আহত হয় মেহেদুল ইসলাম।   পলাশবাড়ী হাসপাতাল হতে রংপুর চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয় তার।

পরিবার বিষয়টি সড়ক দূর্ঘটনা বললেও মরদেহসহ বাড়ীতে ফিরেই ঘটনাটি হত্যা বলে প্রচার করে এরপর স্থানীয় ৩ জন কে আটক করে। আটককৃতদের উদ্ধার করে পলাশবাড়ী থানা পুলিশের হাতে হস্তান্তর করা হয়েছে । যেহেতু ঘটনাটি পলাশবাড়ী থানা এলাকায় সেহেতু তদন্ত করে ব্যবস্থা নিবে পলাশবাড়ী থানা পুলিশ।

গাইবান্ধা জেলার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলায় মেহেদুল ইসলাম শাশিত (৩৬) নামে এক ব্যক্তি গতকাল ২ জুন বিকালে পলাশবাড়ী উপজেলায় গাইবান্ধা পলাশবাড়ী সড়কে ঢোলভাঙ্গার পাশে সাকোয়া বিজ্রের নিকটে খড়ের উপর স্লিপ করে পড়ে গিয়ে সড়ক দূর্ঘটনায় আহত হয়ে রংপুরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় মৃতদেহ বাড়ীতে নিয়ে আসার পর পরিবারে দাবী হত্যা আর এ হত্যার অভিযোগে স্থানীয় জনগন ৩ জনকে আটক করে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার তালুককানুপুর ইউনিয়নের তাজপুর গ্রামের শাহজাহান আলী প্রধান সাজুর ছেলে শাশিতকে গত ২ জুন মঙ্গলবার বিকেলে বাড়ী থেকে ডেকে নিয়ে যায় তার সহপাঠি একই ইউনিয়নের দেবত্তর রামনাথপুর গ্রামের আব্দুর রহমানের ছেলে জহুরুল ইসলাম (৩০), সুন্দইল গ্রামের আব্দুল মতিনের ছেলে আব্দুল ওয়াদুদ (২৮) ও পলাশবাড়ীর দুবলাগাড়ী গ্রামের সামছুল হকের ছেলে মিঠু মন্ডল (৪০) সু-পরিকল্পিত ভাবে হত্যা করে সড়ক দুর্ঘটনা বলে প্রচার করেছে মর্মে সন্দেহ করে ।

এ ঘটনায় আজ ৩ জুন বুধবার সকাল ১০ টার দিকে স্থানীয় জনগন ওই ৩ ব্যক্তিকে বালুয়া বাজার বনিক সমিতিতে আটক করে রাখে। খবর পেয়ে থানার এসআই জাকিরুল ইসলাম লাশের সুরতহাল রিপোর্ট তৈয়ার করে ময়না তদন্তের জন্য গাইবান্ধা জেলা মর্গে প্রেরন করেন। এবং আটককৃতদের পলাশবাড়ী থানা পুলিশের হাতে হস্তান্তর করে।

নিহত শাশিতের পিতা সাজু মিয়া বলেন, আমার ছেলের সাথে জহুরুল, ওয়াদুদ, মিঠুর সাথে ব্যবসায়ীক ভাবে টাকার লেনদেন আছে। এ কারনে শাশিতকে বাড়ী থেকে ডেকে নিয়ে গিয়ে সু-পরিকল্পিত ভাবে হত্যা করে সড়ক দূর্ঘটনা বলে চালায়। এ ব্যাপারে শাশিতের পরিবার থেকে মামলার প্রস্তুতি চলছে।

এ বিষয়ে পলাশবাড়ী থানা অফিসার ইনচার্জ মাসুদুর রহমান জানান,ঘটনাটি আমরা যতদূর জানি সড়ক খড়ের মধ্যে পড়ে দূর্ঘটনায় হয় পরে আহত কে রংপুরে নিলে সেখানে তার মৃত্যু হয় তারপর পরিবার মরদেহ বাড়ীতে নিলে আজ এঘটনায় স্থানীয়রা তিনজন কে আটক করে গোবিন্দগঞ্জ থানা পুলিশের হাতে দিলে পরে তাদের পলাশবাড়ী থানায় হস্তান্তর করে। বর্তমানে মরদেহ গোবিন্দগঞ্জ থানা পুলিশের হেফাজতে থাকলে আটককৃতরা পলাশবাড়ী থানায় রয়েছে আমরাও বিষয়টি তদন্ত করছি। তিনি আরো বলেন পরিবারের পক্ষ হতে অভিযোগ এখনো কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...