আজ ২০শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৪ঠা জুলাই, ২০২০ ইং

বর্ষা মৌসুমের আগেই গাইবান্ধার ৩৩ টি পয়েন্ট নদী ভাঙ্গন শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক: নদী বেষ্টিত জেলা গাইবান্ধা । এ জেলার উপর দিয়ে বৈয়ে চলেছে তিস্তা ব্রহ্মপুত্র
যমুনা, কাটাখালি, ঘাঘট, বাঙ্গালী, করতোয়া, আলাইসহ কয়েকটি নদ-নদী ।

প্রতিবছর প্রাকৃতিক দুর্যোগে এই নদীগুলো এ জেলার মানুষের গলার কাটা হয়ে দাড়ায় । গত ১৫ দিন আগেও এই নদী বেষ্টিত বেশীর ভাগ চরাঞ্চল ছিল ধু,ধু মরুভুমির মতো । কয়েকদিন ব্যবধানে ঘুর্নিঝড় আম্ফানের প্রভাবে এই নদীগুলোতে পানি বৃদ্ধির ফলে গত এক সপ্তাহে এই জেলার প্রায় ৩৩ টি পয়েন্টে নদী ভাঙ্গণ দেখা দিয়েছে । তবে পানি উন্নয়ন বোর্ড জানান, ১৪ টি পয়েন্ট পরিদর্শন করা হয়েছে ভাঙ্গন প্রতিরোধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে ।

সরেজমিনে গিয়ে ও বিভিন্ন সুত্রে জানা যায়, গাইবান্ধার তিস্তা ব্রহ্মপুত্র যমুনা, কাটাখালি, ঘাঘট, বাঙ্গালী, করতোয়া, আলাই নদী বেষ্টিত সুন্দরগঞ্জ, সদর, ফুলছড়ি, সাঘাটা, গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার প্রায় ৩৩ পয়েন্টে নদী ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে ।

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার তিস্তা নদী বেষ্টিত বেলকা ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায় নদী ভাঙ্গন শুরু হয়েছে । এ উপজেলার ১০ টি পয়েন্টে গত ২ মাস থেকে নদী ভাঙ্গনের ফলে ইতোমধ্যে শতাধিক বসতভিটা নদী গর্ভে বিলিয় হয়েছে ।

বেলকা ইউনিয়নের আব্দুল মালেক জানান, “ভাঙ্গন প্রতিরোধে নাম মাত্র বালিভর্তি ফেলানো হয় । আর শান্তনা দেয়া হয় । এভাবে নদী ভাঙ্গনের ফলে আমরা দিশেহাড়া হয়ে পরেছি ।”

গাইবান্ধা সদর উপজেলার কামারজানী ইউনিয়েনের ৫ টি পয়েন্টে নদী ভাঙ্গন শুরু হয়েছে । ঘুর্নিঝড় আম্পানের প্রভাবে ব্রহ্মপুত্র নদে হঠাৎ পানি বৃদ্ধির ফলে এই ভাঙ্গন দেখা দেখ । তবে ভাঙ্গন প্রতিরোধে এখনো পানি উন্নয়ন বোর্ড কোন কাজ শুরু করেনি ।
কামারজানী ইউনিয়নের কলেজ ছাত্র শামীম মিয়া জানান, “কামারজানী ইউনিয়নে গত ২ বছরে সরকারি স্কুল, মসজিদ, মাদরাসাসহ কয়েক হাজার পরিবারের বসতভিটা নদী গর্ভে বিলিন হয়েছে । সরকার যদি প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ না নেয় আগামীতে এই ইফনিয়নটি সম্পুর্ন নদী গর্ভে বিলিন হবে
।”ফুলছড়ি উপজেলার কাতলামারী ও খাটিয়ামারি এলাকায় নদী ভাঙ্গন দেখা
দিয়েছে । গত কয়েক বছরে এ উপজেলার মানচিত্র পাল্টে গিয়ে ব্রহ্মপুত্র নদে
মিশে গেছে । ফজলুপুর ইউনিয়নের খাটিয়ামারি চরে ভাঙ্গন তীব্র আকার
ধারন করেছে । দ্রুত ব্যবস্থা না নিয়ে এই চরটি নদী গর্ভে বিলিন হবে । এতে হাজারের বেশী পরিবার গৃহহীন হবে ।

ফজলুপুর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য আলমগীর হোসেন জানান, “ ২ বছরে খাটিয়ামারি বাজারের শতাধিক স্থাপতা নদী গর্ভে বিলিন হয়েছে । ফুলছড়ি উপজেলার দুর্গম চরের কারনে এই স্থানে পানি উন্নয়ন বোর্ড কোন কাজ করে না । চরে থাকি বলে আমরা মানুষরা । ”সাঘাটা উপজেলার ভরতখালী ইউনিয়নের বড়নতাইড় গ্রামে যমুনা নদীর পানি বাড়তে শুরু করায় ¯্রতের তীব্রতা বেড়ে তীব্র ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে । গত ১ সপ্তাহে এ ইউনিয়নের প্রায় ৫ একর ফসলী জমি নদী গর্ভে বিলিন হয়েছে ।
সাঘাটার ভরতখালী ইউপি চেয়ারম্যান শামসুল আজাদ শীতল জানান, “যখন শুকনো মৌসুম তখন বাধ রক্ষায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের কোন কাজ চোখে পরেনা । যখন বর্ষা মৌসুম আসে বা নদী ভাঙ্গন দেখা দেয় ঠিক তখননি শুরু হয় পনি উন্নয়ন বোর্ডের দৌড়-ঝাপ ।”নদী ভাঙ্গনের স্বীকার সাবেক কৃষি কর্মকর্তা ও মুক্তিযোদ্ধা নজরুল ইসলাম
জানান, “মুক্তিযুদ্ধের সময় সাঘাটা ও ফুলছড়ি উপজেলার যে গ্রাম গুলোতে আমরা অবস্থান করি সেই গ্রামগুলো নদী গর্ভে হাড়িয়ে যাচ্ছে । বড়নতাইড় গ্রামে জন্মগ্রহনের স্মৃতি হাড়িয়ে নিজেকে নদীর কাছে পরাজিত সৈনিক মনে হচ্ছে ।”
অপর দিকে এই উপজেলার বাঙ্গালী নদীর উপর দিয়ে গুরত্বপুর্ন সেতু মেলান্দহ । এই
সেতুর দক্ষিনে বাঙ্গলী নদীর ভাঙ্গনের কবলে চর পাড়া গ্রাম নদী গর্ভে বিলিনের পথে ।

এ গ্রামের নদী ভাঙ্গনের হুমকিতে স্থানীয় রাজু মিয়া অভিযোগ করেন “এই স্থানে ভাঙ্গন ঢেকাতে বার বার কাজ করার কথা বললেও কোন কাজ করছেন না পানি উন্নয়ন বোর্ড । ”
সাঘাটা হলদিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ইয়াকুব আলী জানান, এ উপজেলায় গত ২ বছরে হলদিয়া ইউনিয়নের ২ টি মসজিদ, একটি কবর স্থান ৫ কিমি পাকা রাস্তাসহ ৩ শতাধিক পরিবারের বসতভিটা যমুনা নদী গর্ভে বিলিন হয়েছে । ভিটেমাটি হাড়িয়ে অসহায় মানুষগুলো অনেক কষ্ট করে জীবন যাপন করছে । এখনো হুমকির মুখে ১ টি ত্রি-তলা মাদরাসা , ৪ টি সরকারি শিক্ষা প্রতিষ্টান, ২টি ঈদগাহ মাঠসহ আরো কয়েক হাজার পরিবার।

ভাঙ্গনের কবল থেকে ঘর-বাড়ী আসবাস পত্র সড়াতে ব্যস্ত মানুষ গুলো এখন অসহায় হয়ে তাকিয়ে আছে সরকারের দিকে ।

স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা মহিউদ্দিন জানান, “বাঙ্গালী নদী বেষ্টিত গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার মহিমাগঞ্জ, রাখাল বুরুজ, আদর্শগ্রাম ও সাঘাটা উপজেলার কচুয়া, রামনগর, গুজা এলাকায় নদী ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে । গত ২ বছরেও এইসব এলকার ৫ শতাধিক বসত ভিটা নদী গর্ভে বিলিন হয়েছে ।”

গাইবান্ধা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোকলেছুর রহমান জানান, নদী ভাঙ্গন প্রতিরোধে গাইবান্ধা জেলায় পানি উন্নয়ন বোর্ডেও কাজ অব্যহত আছে । নদীতে পানি বৃদ্ধিও ফলে যে সব এলাকায় ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে সে সব এলাকায় বালি ভর্তি জিও ব্যাগ ফেলানোর ব্যবস্থা নেয়া হবে ।
পানি উন্নয়ন বোর্ডের রংপুর বিভাগের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী জনাব মো: আব্দুস শহিদ জানান, ‘ গাইবান্ধা জেলার বিভিন্ন স্থানে নদী ভাঙ্গন কবলিত এলাকা গুলো পরিদর্শন করা হয়েছে । ভাঙ্গনের বাস্তব চিত্র নীতি নির্ধারক মহলে প্রেরন করে ভাঙ্গন প্রতিরোধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা
হবে ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...