আজ ৭ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২১শে জুন, ২০২১ ইং

হতদরিদ্রদের উপহারের তালিকায় চেয়ারম্যানের পরিবারের সদস্যরা

গাইবান্ধা প্রতিনিধি: হতদরিদ্রদের জন্য ঈদ উপহার হিসাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেয়া ২,৫০০ টাকার তালিকা নিয়ে  গাইবান্ধার সাদুল্লাপুরে এক ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ব্যাপক অনিয়ম ও স্বজনপ্রীতির অভিযোগ উঠেছে।
ওই ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান তালিকায় তার স্ত্রী, আপন মেয়ে ও ভাবীসহ পরিবার এবং নিকট আত্মীয়দের মধ্যে একাধিক নাম অন্তর্ভুক্ত করেছেন। এছাড়াও উপকারভোগীর নিকট থেকে অনৈতিকভাবে চাপ দিয়ে টাকা নেয়ার অডিও রেকর্ড ভাইরাল হয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।
জানা গেছে, করোনাভাইরাসের প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্ত এবং হতদরিদ্র দেয়া প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহারের তালিকায় গাইবান্ধা ৭টি উপজেলার হাজার হাজার পরিবার রয়েছে। এতে স্থান পেয়েছে সাদুল্লাপুর উপজেলার খোর্দ্দকোমরপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আরিফুর রহমান চৌধুরী শামীমের করা ৬০০ জনের নাম। যেখানে চেয়ারম্যান আরিফুর রহমান চৌধুরী শামীম নিজের স্ত্রী, আপন মেয়ে  ও ভাবিসহ পরিবার এবং নিকট আত্মীয়দের নাম অন্তর্ভুক্ত করেছেন। তালিকায় দেখা যায় বিভিন্ন অসংগতি ২৫০ নং ক্রমিক নম্বরে রয়েছে হাইস্কুলের দপ্তরীর নাম, ২৬৭, ৩০৪, ৩০৮, ৩০৩, ৩১০, ৩১১, ২৮৩, ২০০, আটটি ক্রমিক নম্বরে একই মোবাইল নম্বর। এছাড়া ৩৬৫, ৪৮১, ৫৮২, ৩০৭, ৪৫৯, ৩০২, ৪৮৩, ১৯৫, ১৮২, ৩৭৩, ২৪৬, নম্বরে ভিন্ন ব্যক্তির নাম থাকলেও দেয়া হয়নি তাদের মোবাইল নম্বর পরিকল্পিতভাবে দেয়া হয়েছে চেয়ারম্যানের আস্থাভাজনদের মোবাইল নম্বর। ৩১২ ও ১৮২ নম্বরে ভিন্ন ব্যক্তি নাম থাকলেও মোবাইল নম্বর রয়েছে চেয়ারম্যানের স্ত্রী ও মেয়ের। ৪২৮, ৩৫৭, ৩৫৮ ব্যক্তিরা একই খানা ভুক্ত। এছাড়া তালিকায় একই ব্যক্তির নামে একাধিকবারও রয়েছে ভিন্ন মোবাইল নম্বর। ৩৫২ নম্বরে মহিলা মেম্বরের নাম এবং ২২৭ ও ২২৯ নম্বরে রয়েছে মহিলা মেম্বরের দুই ছেলের নাম। ৪২৮ নম্বরে কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক এর নাম ও ১৯৪ ভিন্ন ব্যক্তির পাশে রয়েছে তার মোবাইল নম্বর। তালিকায় বিভিন্ন অসংগতিসহ রয়েছে অবসরপ্রাপ্ত সরকারি চাকরি জীবি ও ধনাঢ্য ব্যক্তির নাম।
অভিযোগ উঠেছে, নিজ পরিবার ও আত্মীয়-স্বজন ছাড়াও চেয়ারম্যান আরিফুর রহমান চৌধুরী শামীম তার পছন্দ অনুযায়ী নাম অন্তর্ভুক্ত করেছেন প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহারের তালিকায়। পুরো ইউনিয়নের জন্য করা ৬০০ জনের তালিকায় নিজ এলাকা ১নং ওয়ার্ড খোর্দ্দকোমরপুর গ্রাম থেকেই দিয়েছেন ১৫০ জনের নাম। লঙ্কায় গেলে আর কেউ যেন হনুমান না হয়। সেই জন্য দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির আওতায় নেয়ার দাবি সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষ নিকট ইউনিয়ন বাসীর।
অভিযোগ অস্বীকার করে চেয়ারম্যান আরিফুর রহমান চৌধুরী শামীম বলেন, আমার বিরুদ্ধে গভীর ষড়যন্ত্র চলছে। তাছাড়া কে বা কারা আমার পরিবারের মোবাইল নম্বর ব্যবহার করেছে সে বিষয়েও আমি জানিনা।
উপকারভোগীর নিকট মোবাইলে অনৈতিক ভাবে টাকা নেয়ার বিষয়টি অস্বীকার করে তিনি বলেন, ডিজিটাল যুগে কারা কিভাবে এডিট করছে তা বুঝা মুসকিল।
এ বিষয়ে সাদুল্লাপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার নবীনেওয়াজ বলেন, অনিয়ম তদন্তপূর্বক উক্ত চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...