আজ ১৭ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৩১শে জানুয়ারি, ২০২৩ ইং

৯৩ বছরেও মেলেনি  তবে আর কত বয়স হলে জুটবে বয়স্ক ভাতার কার্ড

বিশেষ প্রতিনিধি: “অর্থই অনর্থের মূল” তাই  হয়ত   ৯৩ বছরেও মেলেনি সাদুল্যপুরের গেন্দলী মাইয়ের কপালে বয়স্ক ভাতার কার্ড।

পায়নি কোন সরকারী বেসরকারী সুযোগ সুবিধা। এমনকি ১৯৯০ সালে স্বামী মারা গেলেও ৩০ বছরেো ভাগ্যে জোটেনি কোন বিধবা ভাতার কার্ড।

এভাবেই  ধুকে ধুকে  চলছে গাইবান্ধার সাদুল্লাপুর উপজেলার বনগ্রাম ইউনিয়নে বদলাগাড়ী গ্রামের ৯৩ বয়োর্ষধ গেন্দলী মাই।

সরেজমিনে জানা যায়- বদলাগাড়ী গ্রামের মৃত জেনাত শেখের স্ত্রী গেন্দলী মাই এর বিয়ের অল্প কিছুদিন পরেই স্বামী মারা যায়। অন্যের বাড়িতে কাজ করে দুই ছেলেমেয়েকে নিয়ে খেয়ে না খেয়ে অতিকষ্টে জীবন অতিবাহিত করে আসছিলেন। কিছুদিন পর মেয়েটিও  অসুখে মারা যায়। ছেলেটিকে নিয়ে একটু সুখের আশ্রয় খুজে পেতে না পেতেই সেও এখন বয়স্ক। অন্যের জমিতে দিন মজুরের কাজ করতো। সে নিজেই এখন চলতে পারেনা মাকে কিভাবে দেখবে?

বয়সের ভারে গেন্দলী মাই নুয়ে পড়েছে। তাই জ্বরাজীর্ণ কুড়ে ঘরে অনাদর আর অবহেলায় মৃত্যুর প্রহর গুণছে।

তবুও মৃত্যুর পূর্বে সরকারের দেওয়া বয়স্ক ভাতার কার্ড দেখে যেতে চান এটাই তার প্রত্যাশা। বর্তমান করুণ পরিণতি দেখে মনে হচ্ছে এমন অসহায় লোকের পৃথিবীর বুকে জন্ম নেওয়ায় পাপ।

অঝোর নয়নে আধা ভাঙ্গা কণ্ঠে গেন্দলী মাই বলেন– “বাবা কি খাম কিচ্ছু নাই, সরকার সবাক দেকে, মোক দেকে না অভাগা কপাল, মরণও অয়না”।

এলাকার  ছমির শেখ বলেন- গেন্দলী দাদী গ্রামের মধ্যে সবচেয়ে বয়স্ক মহিলা। আর কত বয়স হলে বয়স্ক ভাতা পাবেন? তার দেখাশুনা করার মত কেউ নেই। এক ছেলে সেও বয়স্ক। তবুও কেন বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা হয়না। কেন হয়না? আমার বুঝে আসেনা।

গেন্দলী মাইয়ের ছেলে মেনাজ উদ্দিন এক প্রশ্নের জবাবে বলেন- চেয়ারম্যান, মেম্বরসহ বিভিন্ন অফিসে ধরনা দিয়েও কাজ হয়নি। আমার টাকা নাই তাই কাজ হয়না। ৪/৫ হাজার টাকা থাকলে ঠিকে মায়ের বয়স্ক ভাতার কার্ড হতো।

“এখন কাজ নেই, ভাইরাসের কারনে সব বন্ধ।অনেক সময় নিজে না খেয়ে থাকি, তাই বয়স্ক মাকেও না খেয়ে থাকতে হয়। যদি তার বয়স্ক ভাতা কার্ড হয় তাহলে অনেক উপকার হতো মা আমার একটু খেতে পারতো” কথা গুলো ছলছল নয়নে কান্না ভেজা কণ্ঠে বলছিল মেনাজ।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বনগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাহিন সরকার বলেন- আমার কাছে গেন্দলী মাই কিংবা তার পরিবারের কেউ আসেনি। এত বেশী বয়সের কেউ বয়স্কবাদ আছে এটা আমার জানা নাই। তবে জুন/২০২০ এর পরে কোন নাম পরিবর্তন হলেই তার নাম দিয়ে দিব।

যেখানে মহিলার বয়স ৬২ বছর হলেই সরকারী নিয়মে বয়স্ক ভাতার কার্ড হওয়ার কথা সেখানে ৯৩ বছরেও বয়স্ক কার্ড হয়নি। কেন হয়নি? তা নিয়ে জনমতে নানা কৌতূহল আর জ্বলপনা সৃষ্টি হয়েছে।

তাই গেন্দলী মাই এর বয়স্ক ভাতার কার্ড দ্রুত বাস্তবায়ন করে উপজেলা প্রশাসন এই কৌতূহল আর জ্বলপনার অবসান ঘটাবেন এমন আশাবাদ  এলাকাবাসীর।।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...