আজ ২৬শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৯ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ ইং

বন্যায় পুড়ছে কপাল উত্তরের লাখো মানুষের

রংপুর প্রতিনিধি:উত্তরের  স্রোতষ্ণীনি তিস্তার ভয়াল রুপে কিছুটা ভাটা পরেছে। উজানে নদীর পানি কমে যাওয়ায় সোমবারের তিস্তা অনেকটাই শান্ত এক নদীতে পরিণত হয়েছে। যদিও ব্যারেজ পয়েন্টে নদীর পানি বিপদ সীমা বরাবর বয়ে যাচ্ছে। কিন্তু অশান্ত হয়ে উঠেছে ধরলা, ব্রন্মপুত্র, করতোয়া, ঘাগট, দুধকুমার ও যমুনা নদী। টানা বৃষ্টি আর উজানের ঢলে বিভাগের ৫ জেলায় বানের জলে দিশেহারা হয়ে পরেছেন প্রায় পৌনে তিন লাখ মানুষ। বসতবাড়ি ছেড়ে আশ্রয় নিয়েছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ নিরাপদ স্থানে। তাদেও যোগাযোগের প্রধান মাধ্যম পরিনত হয়েছে কলার ভেলা। পানিতে ডুবে থাকা এলাকায় দেখা দিয়েছে পানিবাহিত রোগ সহ বিষাক্ত পোকা-মাকড়ের চলাফেরা।

রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডেও প্রধান প্রকৌশলী জ্যোতি প্রসাদ ঘোষ জানিয়েছেন, গত শুক্রবার (১০ জুলাই) সকাল ১০টায় ভারতের গজলডোবা ব্রীজের সবক’টি গেট খুলে দেয়ায় তিস্তা ব্যারেজ ও নদীর ক্ষয়ক্ষতি নিয়ে শঙ্কায় ছিলেন তারা। ৬০ কিলোমিটার এলাকজুওে নদী তিরবর্তী বসবাসকারীদেও নিরাপদ স্থানে সওে যাওয়ার নির্দেশ দেয়া হয়। শনিবার রাত আট টায় ব্যারেজ বাঁচাতে জারি করা হয় রেডএলার্ট। রোববার সকাল থেকে নদীর পানি কমতে থাকে। এই বন্যায় ব্যারেজ ঝুকিমুক্ত থাকলেও তিস্তার বামতীর বাঁদ ও কিছু ব্যাড়ি বাঁধের বিভিন্ন অংশ ভেঙে যাওয়ায় পানি ঢুকে পরে লালমনি, নীলফামারী ও রংপুরের লোকালয়ে। অথই পানিতে তলিয়ে যায় পথঘাটসহ বসতবাড়ি। এখন নুতন করে শঙ্কায় আছেন ধরলা, ব্রন্মপুত্র, করতোয়া, ঘাগট, যমুনা নদীকে নিয়ে। এই নদীগুলোতে অস্বাভাবিক ভাবে পনি বাড়ছে।

নীলফামারী জেলা প্রশাসক হাফিজুর রহমান চৌধুরী  জানান, চলতি বন্যায় জেলার ডিমলা উপজেলার ৫ ইউনিয়নে হু হু কওে পানি ঢুকে। তলিয়ে যায় সব কিছু। পানি বন্দি হয়ে পরেন প্রায় ৫০ হাজার মানুষ। অনেককেই নিরাপদ স্থানে নিয়ে আসা সম্ভব হয়েছে। দেয়া হয়েছে সব ধরনের খাদ্য সহযোগিতা। এখনও অনেক বাড়ি হাটু পানিতে ডুবে আছে।

 

যদিও তিস্তার পানি রোববার বিকাল থেকে পানি কমতে শুরু করেছে। সোমবার (১৪ জুলাই) সকাল ৯টায় ব্যারেজ পয়েন্টে পানি বিপদ সীমার ২৫ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে বয়ে যেতে শুরু করলেও এখনও লালমনিরহাটের ৫ উপজেলার এক লাখ মানুষ পানি বন্দি। তিস্তার ভাটির এলাকা কুড়িগ্রামে ২০ দিন ধরে বানের পানির সাথে ঝীবন ধারন কওে বেঁচে আছেন ৯ উপজেলার ১ লাখ মানুষ। অভাবী এই জেলার মানুষের বানের জলে ভেসে গেছে তাদেও আশা ভরসা। খেয়ে না খেয়ে দিন পার করছেন। চারদিক জলজটের কারনে উচুনিচু এলাকা হয়েছে সমতল। ভেঙ্গে পরেছে যোগাযোগ ব্যবস্থা। ভরসা তাদেও এখন কলাগাছের ভেলা।

 

নিচু এলাকার জেলা গাইবান্ধায় ভোগান্তির শেষ নেই। একই ভাবে এই জেলাতেও বন্যা যেন স্থায়ী বাসা বেঁধেছে। কখনও কমছে ব্রন্মপুত্র আবার কখনও বাড়ছে ঘাগট ও করতোয়া নদীর পানি। বানের জলে ভেসে গেছে এই জেলার বেশির ভাগ নি¤œাঞ্চলের মানুষের সম্পদ। নদী গিলে খেয়ে কয়েক শ’ হেক্টর আবাদী জমি।

 

রংপুরের তিন উপজেলার ১২ ইউনিয়নের এবার জোওে হানা দিয়েছে তিস্তা। অতিতের সব রেকর্ড ভেঙে নদী যায়গা করে নিয়েছে পানির প্রবাহ। আর এতেই গংগাচড়ার ৫ ইউনিয়নের বিস্তৃন এলাকা পানিতে ছয়লাভ হয়ে যায়। নদী ঘেষা কোলকোন্দ ইউনিয়নের ৬ গ্রামের মানুষের বাড়িতে ছিলো হাটু কোথাও বা বুক সমান পানি। মধ্যরাতে ফুসে ওঠা তিস্তার বরফ গলা পনিতে নিমিষেই ডুবে যায় সব কিছু। বিনবিনিয়ার চরে ১ হাজার ফুট ব্যাড়ি বাঁধ ভেঙ্গে পনি প্রবেশ করে লোকালয়ে। অথই পানিতে তলিয়ে যায় গ্রামের পর গ্রাম।

 

চরের বাসিন্দা, আজিজুল আলম, আব্দুল মতিন, আব্দুল কাদের ওয়াহেদ ও রোকেয়া খাতুন কান্না ভরা চোখে জানালেন, তিস্তা তাদেও সব কিছু কেড়ে নিয়েছে। তাদের একজীবনে কমপক্ষে ৩০ থেকে ৪০ বার বাড়ি সরিয়েছেন। এই বন্যায় যে টুকু ছিলো বাঁধ ভেঙ্গে আশ্রয়ের শেষ সম্বলটুকু কেড়ে নিয়েছে তিস্তা। চাষাবাদ যোগ্য জমিগুলো বালুতে ঢেকে গেছে। চারদিন ধওর অভুক্ত আছেন এই গ্রামের সাড়ে পাঁচ হাজার মানুষ।

স্থানীয় ইউনিয়ন চেয়ারম্যান, সোয়ারব হোসেন রাজু জানিয়েছেন, তার ইউনিয়নের বানভাসিদেও কাছে তিনি যেুতে পারছেননা। দুই বন্যার ক্ষতি পুষিয়ে নেয়া সম্ভব নয় বলেও তিনি মনে করেন। জেলা প্রশাসক আসিব আহসান জানিয়েছেন, বন্যা দূর্যোগ মোকাবেলায় তারা প্রস্তুত আছেন। মানুষ, শিশু ও পশুদের খাদ্য সহায়তায় মজুদ আছে টাকা, চাল ও শুকনা খাবার। কোন ধরনের অসহযোগিতা পাবেনা বানভাসিরা। বানের জলে ভেসে আসা বিষাক্ত পোকা-মাকর থেকে সাবধানতা অবলম্বন, করোনাসহ সাধারন স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করতে বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ডা. আমিন আহমেদ খান  জানিয়েছেন, বন্যা দূর্যোগ মোকাবেলায় ইউনিয়ন, উপজেলা ও জেলা পর্যায়ে গঠন করা হয়েছে ৭৮টি মেডিকেল টিম। প্রস্তুত রাখা হয়েছে ১৫টি রোগীবাহি এ্যাম্বুলেন্স। স্বাস্থ্যকর্মীরাও অনবরত মাঠে কাজ করছেন বলে দাবি তার।

 

বিভাগীয় কমিশনার কেএম তারিকুল ইসলাম  জানিয়েছেন, করোনা দূর্যোগের মহা সংকটে বন্যায় সজাগ আছেন প্রশাসনিক কর্মকর্তারা। পানিবন্দি মানুষদের খাদ্য সহায়তাসহ সব ধরেনর সহযোগিতা করার নির্দেশও দিয়েছেন তিনি। আরো অতিরিক্ত বরাদ্দ চেয়ে মন্ত্রনালয়ে চিঠি পাঠানোর কথাও বলেন তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...