আজ ২২শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৫ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ ইং

ভাগনে বউকে ধর্ষনের অভিযোগ চেয়ারম্যান প্রার্থী মামা সহ গ্রেফতার ২

লালমনিরহাট প্রতিনিধি: লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার গড্ডিমারী ইউনিয়নের আক্তার খন্দকার নামে এক চেয়ারম্যান প্রার্থী নিজের ভাগনে বউকে ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার হয়েছেন। এ সময় তার ভাগিনা আতিয়ার রহমানকেও গ্রেফতার করা হয়।

মঙ্গলবার (১৫ সেপ্টেম্বর) দুপুরে পাটগ্রাম থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সুমন কুমার মোহন্ত ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

আক্তার খন্দকার উপজেলার মধ্য গড্ডিমারী (মিলনবাজার) এলাকার নেহার উদ্দিনের ছেলে ও বুড়িমারী স্থলবন্দরে খন্দকার হোটেলের মালিক । আতিয়ার রহমান ওই এলাকার নুর হোসেন অরফে দুলার মিয়ার ছেলে।

প্রাপ্ত অভিযোগে জানা যায়, বুড়িমারী স্থলবন্দর এলাকার একটি ভাড়া বাসায় খন্দকার হোটেলের ম্যানেজার আতিয়ার রহমানের পরিবার ও মালিক আক্তার খন্দকার দির্ঘদিন থেকে বসবাস করে আসছেন। আতিয়ার রহমান সম্পর্কে আক্তার খন্দকারেরর ভাগিনা। তাই তারা এক সাথেই থাকতেন। একই বাসায় থাকার সুযোগে হোটেল মালিক আক্তার খন্দকার প্রায়দিন ভাগিনে বউ আর্জিনা বেগমকে দৈহিক সম্পর্ক করার জন্য বিভিন্ন প্রলোভন দেখাতো। এতে কোন ভাবেই ভাগনে তার প্রলোভনে সাড়া না দিলে গত ৮ সেপ্টেম্বর রাতে আক্তার খন্দকার তার ভাগ্নী বউকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে এবং ধর্ষনের বিষয়টি কাউকে না বলার জন্য হুমকি দেয়।

এরপর আর্জিনা বেগম তার স্বামী আতিয়ার রহমানকে বিষয়টি জানালে সে কিছুতেই বিশ্বাস না করে উল্টো তাকেই সাবধান করে দেয় এবং ভবিষ্যতে তার পরিবারের কারো সাথে এবিষয়ে আলোচনা না করার জন্যও হুমকি দেন। অতঃপর কোন উপায়ন্তর না পেয়ে আর্জিনা বেগম (১৪ সেপ্টেম্বর) সোমবার বিকালে হোটেলের সামনে গিয়ে আক্তার খন্দকারকে আটক করে তাকে বিয়ে করার জন্য চিল্লাচিল্লি করতে থাকেন। এসময় স্বামী আতিয়ার রহমান মামা আক্তার খন্দকারের পক্ষ নিয়ে কথা বললে ঝামেলা আরও বাড়তে থাকে। এসময় উপস্থিত শত শত মানুষ আক্তার খন্দকার ও আতিয়ার রহমানকে আটক করে বুড়িমারী ইউনিয়ন পরিষদে জমা দিয়ে চেয়ারম্যানকে বিষয়টি জানান।

বুড়িমারী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাহনেওয়াজ নিশাত বলেন, স্থানীয় লোকজন আক্তার খন্দকার ও আতিয়ার রহমানকে ইউনিয়ন পরিষদে জমা দিয়ে বিষয়টি আমায় জানায়। আমার স্ত্রী করোনা পজেটিভ এবং আমি লক ডাউনে থাকায় তিনি বাসা থেকে বাহির হতে পারেন না। তাছাড়া এ রকম বিচার করার এখতিয়ার তার নেই। তাই তিনি পাটগ্রাম থানা পুলিশকে বিষয়টি অবগত করলে পুলিশ এসে আক্তার খন্দকার ও আতিয়ার রহমানকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।

ওইদিন রাতেই আর্জিনা বেগম বাদী হয়ে মামা শ্বশুর আক্তার খন্দকার ও তার স্বামী আতিয়ার রহমানকে আসামী করে থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেন। পাটগ্রাম থানা পুলিশ ওই মামলায় তাদের গ্রেফতার দেখিয়ে মঙ্গলবার সকালে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরন করে।

এদিকে আক্তার খন্দকার আগামীতে গড্ডিমারী ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসাবে মাঠে প্রচার প্রচারনাও করছেন বলে অনেকে জানান।

পাটগ্রাম থানার অফিসার্স ইনচার্জ (ওসি) সুমন কুমার মহন্ত ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, বাদীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে মামা শ্বশুর আকতার খন্দকার ও স্বামী আতিয়ার রহমানকে আজ সকালে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...