আজ ২রা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৭ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ ইং

টঙ্গীবাড়ীতে স্বামী স্ত্রীকে পিটিয়ে চেয়ারম্যান লিটন মাঝি ও তার গার্লফ্রেন্ড সুমাইয়ার বিরুদ্ধে মামলা

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি: মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ী উপজেলা শ্রমিক লীগের সাবেক সভাপতি শাহিন মুন্সী ও তার স্ত্রীকে মারধর করে এলাকা হতে বের করে দেওয়ার ঘটনায় টঙ্গীবাড়ী থানায় এক ইউপি চেয়ারম্যান এর বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। মামলার পর হতে সোনারং টঙ্গীবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বেলায়েত হোসেন লিটন মাঝি ও তার একান্ত গার্লফ্রেন্ড সুমাইয়া পলাতক রয়েছে।
স্থানীয় সূত্র জানাগেছে, উপজেলার সেগুনতলা গ্রামের বালুর মাঠের স্বামী পরিত্যক্তা মাহমুদা বেগমকে গত ৮ মাস যাবত কুপ্রস্তাব দিয়ে আসছে প্রতিবেশী স্থানীয় লম্পট সন্ত্রাসী আবু বক্কর সিদ্দিক। এই আবু বক্কর হচ্ছে চেয়ারম্যান সাহেবের গার্লফ্রেন্ডের আপন বোনের জামাই ,তার কুপ্রস্তাবে রাজি না হয়ে স্বামী পরিত্যাক্তা মাহমুদা নিজের নিরাপত্তার কথা ভেবে পাশ্ববর্তী বাড়ির শাহীন রানা মুন্সীকে বিয়ে করেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে লম্পট আবু বকর সিদ্দিক। পরে মাহমুদা ও তার স্বামী শাহীন রানার কাছে৫০ হাজার টাকা চাঁদ দাবী করে সন্ত্রাসী আবু বকর সিদ্দিক। দাবীকৃত চাঁদার টাকা না পেয়ে গত বৃহস্পতিবার শাহীন এর বাড়িতে হামলা চালিয়ে মাহমুদা ও শাহীনকে মারধর করে সিদ্দিক।
ওই ঘটনায় শাহিন টঙ্গীবাড়ী থানায় অভিযোগ দায়ের করলে চাঁদাবাজ আবু বকর সিদ্দিক এর পক্ষ নিয়ে সোনারং টঙ্গীবাড়ী ইউনিয়ন চেয়ারম্যান বেলায়েত হোসেন লিটন মাঝি তার সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে তার গার্লফ্রেন্ড সুমাইয়ার মন রক্ষাতে দ্বিতীয় দফায় শাহিন ও তার স্ত্রীকে মারধর করে বাড়ি হতে বের করে দেয়। গুরুতর আহত শাহীন রানা মুন্সী(৫২), স্ত্রী জিয়াসমিন বেগমকে (৩৫) টঙ্গীবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।
আহত শাহীন রানা বলেন, আমি মাহমুদাকে বিয়ে করাতে ক্ষিপ্ত হয়ে চাঁদা দাবী করে সন্ত্রাসী আবুবক্কর সিদ্দিক। সেই চাঁদা না দেয়াতে দুই বার হামলা ও মারধরের শিকার হয়েছি আমি। ২য় বার চেয়ারম্যান নিজে পিটিয়ে আমি ও আমার স্ত্রীকে বাড়ি হতে বের করে দিয়েছে। পরে আমি টঙ্গীবাড়ী থানায় মামলা দায়ের করেছি। এদিকে বেলায়েত হোসেন লিটন মাঝিকে ফোনে যোগাযোগ করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি। টঙ্গীবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ শাহ মোঃ আওলাদ হোসেন জানান, মারামারি ঘটনায় চেয়ারম্যান লিটন মাঝিসহ কয়েকজনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। ঘটনার পর হতে চেয়ারম্যানসহ অন্যান্য আসামীরা পলাতক রয়েছে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...