আজ ১লা আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৫ই জুন, ২০২১ ইং

ইউনাইটেড হাসপাতালে আগুনের ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন

ডেক্স নিউজ : রাজধানীর গুলশানে ইউনাইটেড হাসপাতালে অগ্নিকাণ্ডে পাঁচ রোগীর মৃত্যুর ঘটনায় সাত সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স। তদন্তে আগুনের কারণ, হাসপাতালের অগ্নিনিরাপত্তা ব্যবস্থা, দায়বদ্ধতা ও ব্যর্থতা তুলে ধরা হবে।

বৃহস্পতিবার (২৮ মে) সকালে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের মহাপরিচালক (ডিজি) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সাজ্জাদ হোসাইন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। গতকাল বুধবার (২৭ মে) রাতেই এই কমিটি গঠন করা হয়েছে।

ফায়ার সার্ভিসের ডিজি জানান, তদন্ত কমিটিকে সাত কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। কমিটির সদস্যদের বিষয়ে বিস্তারিত না জানা গেলেও এতে বারিধারা ফায়ার স্টেশনের সিনিয়র স্টেশন অফিসারসহ ঘটনাস্থলে আগুন নির্বাপণে কাজ করা সদস্যরা রয়েছেন বলে জানা গেছে।

উপ পরিচালক দেবাশীষ বর্ধনের নেতৃত্বে গঠিত এই কমিটিতে সদস্য হিসেবে আছেন ফায়ার ব্রিগেড ট্রেনিং সেন্টারের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ বাবুল চক্রবর্তী, উপ সহকারী পরিচালক নিয়াজ আহমেদ এবং বারিধারার জ্যেষ্ঠ স্টেশন অফিসার মো. আবুল কালাম আজাদ।

কমিটির অন্যতম সদস্য আজাদ বলেন, তদন্তের কাজ এরইমধ্যে শুরু হয়েছে। কোনো আলামত যেন না সরানো হয়, সে ব্যাপারে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে বলা হয়েছে। ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী, রোগীর আত্মীয়-স্বজন, ওই ওয়ার্ডের ডাক্তার, নার্স, ওয়ার্ড বয়, যিনি ফায়ার ব্রিগেডে প্রথম ফোন করেছিলেন- তাদের সবার বক্তব্য নেয়া হবে। তারপর সবকিছু সমন্বয় করে প্রতিবেদন দেবেন।

ঢাকার গুলশানের ইউনাইটেড হাসপাতালে করোনাভাইরাসের রোগীদের ইউনিটে বুধবার রাতে আগুন লেগে পাঁচ রোগীর মৃত্যু হয়েছে। ঢাকার গুলশানের ইউনাইটেড হাসপাতালে করোনাভাইরাসের রোগীদের ইউনিটে বুধবার রাতে আগুন লেগে পাঁচ রোগীর মৃত্যু হয়েছে। গুলশানের ওই বেসরকারি হাসপাতালটির নিচের প্রাঙ্গণে করোনাভাইরাসের রোগীদের জন্য স্থাপিত আইসোলেশন ইউনিটে বুধবার রাত পৌনে ১০টার দিকে আগুন লাগে। ফায়ার সার্ভিসের তিনটি ইউনিট আধা ঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে পাারলেও ততক্ষণে ভেতরের একটি কক্ষে পাঁচ রোগীর মৃত্যু ঘটে।

মৃত ব্যক্তিরা হলেন— রিয়াজুল আলম (৪৫), খোদেজা বেগম (৭০), ভেরুন এন্থনি পল (৭৪), মো. মনির হোসেন (৭৫) ও মাহাবুব এলাহী চৌধুরী (৫০)। তাদের মধ্যে তিনজন করোনা পজিটিভ ছিলেন আর দু’জন করোনা উপসর্গ নিয়ে ভর্তি হয়েছিলেন।

পুলিশ উপ-কমিশনার সুদীপ চক্রবর্তী বলেন, “সেখানে এসি ছিল এবং এসির স্পার্ক থেকে দ্রুত আগুন ছড়িয়ে পড়ে। তাছাড়া এখানে যেসব উপাদান ছিল, সবই দাহ্য পদার্থ। এখানে স্যানিটাইজার ছিল, সেগুলোও দাহ্য পদার্থ। সে কারণে খুব অল্প সময়ে আগুন একটা বড় রূপ নেয় এবং পাঁচজন রোগী মৃত্যুবরণ করেন। অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় একটা তদন্ত কমিটি গঠন করা হবে। তদন্ত কমিটি ঠিক করবে, এখানে কোনো গাফিলতি ছিল কি না, অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা ছিল কি না? তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনের ভিত্তিতেই এখানে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...