আজ ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৪ই জুন, ২০২১ ইং

ঢাকায় দুশতাধিক এলাকায় করোনা

ডেক্স নিউজ : দেশের মধ্যে সবচেয়ে বেশি করোনা আক্রান্তের সংখ্যা রাজধানী ঢাকায়। গত ২৪ ঘণ্টায় সারাদেশে করোনা আক্রান্ত রোগীর অর্ধেকেরও বেশি রাজধানীর বাসিন্দা। সেই সঙ্গে রাজধানীর মৃত্যুর হারও অন্যান্য সব জেলা থেকে বেশি।

মঙ্গলবার (২ জুন) পর্যন্ত সারাদেশে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৪৯ হাজার ৫৩৪ জনে দাঁড়িয়েছে। এখন পর্যন্ত মারা গেছেন ৬৭২ জন। এছাড়া রাজধানীর ২১৬টি স্থান ও এলাকায় করোনা রোগী শনাক্ত করা হয়েছে। এর মধ্যে ৯টি এলাকায় শনাক্ত হয়েছে দুই শতাধিক। একশ’র বেশি রোগী শনাক্ত হয়েছে ১২টি এলাকায়। রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইডিসিআর) দেয়া তথ্যে এ চিত্র উঠে এসেছে।

রাজধানীতে এককভাবে সবচেয়ে বেশি করোনা রোগী মহাখালীতে। ঘনবসতিপূর্ণ এলাকাটিতে এখন ৪০৮ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। ৮৬তম দিনে এসে বলা হচ্ছে সারা দেশকে ঝুঁকি বিবেচনায় তিনটি জোনে ভাগ করা হবে। প্রশ্ন এই জোন কতটুকু কার্যকর হবে করোনার সামাজিক সংক্রমণ ঠেকাতে?

ঢাকায় করোনা সংক্রমণ আলোচনায় আসে উত্তর টোলারবাগে পরপর দুটি মৃত্যুর ঘটনায়। লকডাউন করা হয় এলাকাটি। পর্যায়ক্রমে এখন তা ছড়িয়েছে পুরো ঢাকায়। দেশে করোনাভাইরাসের ভরকেন্দ্র রাজধানী ঢাকা। ঢাকা মহানগরীর ২১৬টি এলাকায় করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। এরমধ্যে সবচেয়ে বেশি মহাখালীতে। বৃহত্তর মিরপুর এলাকায় প্রতিদিনই বাড়ছে করোনা রোগীর সংখ্যা। এখন পর্যন্ত এ এলাকায় দেড়শতাধিক করোনা রোগীর সন্ধান মিলেছে।

ঢাকার ৯টি এলাকায় ২০০’র বেশি করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। যাত্রাবাড়ীতে ৩৪০, মুগদায় ৩২৭, মোহাম্মদপুরে ৩১৩, মিরপুরে ৩৪৫, কাকরাইলে ২৯৯, মগবাজারে ২১৯, রাজারবাগে ২১৪, উত্তরায় ২৮৩ এবং তেজগাঁওয়ে ২০৫ জন রোগী শনাক্ত হয়েছে।

১০০’র বেশি রোগী আছে ১২টি এলাকায়। এর মধ্যে আছে ধানমন্ডি, লালবাগ, খিলগাঁও, মালিবাগ, গুলশান, বাড্ডা, বাবুবাজার, বংশাল, বাসাবো, গেন্ডারিয়া, রামপুরা এবং ওয়ারি।

করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে টোলারবাগ মডেল অনুসরণের পরামর্শ জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের। তারা বলছেন, সংক্রমণের ঝুঁকি বিবেচনায় সারাদেশকে তিন ধরনের জোনে ভাগ করার যে সিদ্ধান্ত তা বাস্তবায়ন করতে পারলে সুফল পাওয়া যাবে। দ্রুত জোন ভাগ করে সবাইকে কঠোর স্বাস্থবিধির আওতায় নিয়ে আসার তাগিদ তাদের। আর স্বাস্থ্য অধিদফতর বলছে, জনসংখ্যার অনুপাত এবং করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা বিবেচনা করে জোন ভাগ করার কাজ চলছে।

এ বিষয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা বলেন, করোনাভাইরাস দেশের বাইরে থেকে আসা মানুষের মাধ্যমে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। তাই ঢাকাতে এ ভাইরাসের প্রকোপ বেশি থাকাটা স্বাভাবিক। বিদেশ থেকে আসা অনেকেই রাজধানীতে বসবাস করেন। ঢাকার বাইরেও যেসব প্রবাসী থাকেন, তাদের অনেকেই বিমানবন্দরে নেমে প্রথমে কিছুদিন ঢাকাতে ছিলেন। তাদের সংস্পর্শে সংক্রমণ ঘটেছে বলে আমাদের ধারণা।

আইইডিসিআরের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা এ এস এম আলমগীর মনে করেন, ঘনবসতির কারণে রাজধানীতে করোনা রোগী বেশি। তিনি বলেন, ঢাকার মতো জনবহুল ও ঘনবসতিপূর্ণ এলাকায় খুবসহজেই মানুষ থেকে মানুষের মধ্যে করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে। সেই সঙ্গে এক জায়গা থেকে আরেক জায়গায় যাওয়ার সুবিধা দেশের অন্যান্য জায়গার তুলনায় ঢাকায় বেশি, সেটিও একটি কারণ। এছাড়া ঢাকার হাসপাতালগুলোর মাধ্যমেও ভাইরাস ছড়াতে পারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...