আজ ১০ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৪শে জুন, ২০২১ ইং

ব্রিটিশ পোশাক ক্রেতাকে যে জন্যে হুমকি দিলো বাংলাদেশ

ডেক্স নিউজ : দেশের পোশাক খাতের মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ ও বিকেএমইএ যুক্তরাজ্য-ভিত্তিক পোশাক ক্রেতা প্রতিষ্ঠান এডিনবার্গ উলেন মিল ইডব্লিউএম ও কয়েকটি ব্র্যান্ডকে কালো-তালিকাভূক্তির হুমকি দিয়েছে। হুমকি দিয়ে পাঠানো চিঠিতে প্রতিষ্ঠানগুলোর কাছে পাওনা অর্থ পরিশোধের জন্য একটি সময় বেধে দেয়া হয়েছে। এ সময়সীমা পেরিয়ে গেলে তাদের কালো-তালিকাভুক্ত করা হবে বলে জানানো হয়েছে।

বিবিসি বাংলার প্রতিবেদনে প্রকাশ, গত ২১শে মে যুক্তরাজ্য-ভিত্তিক পোশাক ক্রেতা প্রতিষ্ঠান এডিনবার্গ উলেন মিল ইডব্লিউএম এবং এর অধীন পিকক, জ্যাগার, বনমারশে, জেন নরম্যান, অস্টিন রিডসহ কয়েকটি ব্র্যান্ডকে এ চিঠি দেয়া হয়।

এ ব্যাপারে বিজিএমইএ বলছে, বাংলাদেশে ইডব্লিউএম ও তাদের ব্র্যান্ডগুলোতে যারা পোশাক সরবরাহ করে এমন কয়েকটি পোশাক কারখানার কাছ থেকে কয়েকদফা অভিযোগ পাবার প্রেক্ষাপটে, এই চিঠি পাঠিয়েছে সংগঠনটি। করোনাভাইরাসের কারণে অনেকেই কার্যাদেশ বাতিল করেছে, কিন্তু এই ব্র্যান্ডগুলোর সঙ্গে ব্যবসা করার অভিজ্ঞতা ভালো নয়। এই প্রতিষ্ঠান ও তার ব্র্যান্ডগুলোর কাছে ২১ মিলিয়ন ডলারের বেশি অর্থ বকেয়া রয়েছে আমাদের কয়েকটি কারখানার। এই প্রতিষ্ঠানটি আগেও মাঝপথে অর্ডার ক্যানসেল করে, বাংলাদেশেরই অন্য কারখানার সাথে আবার কাজ করতে যায়, এমন অভিযোগ আছে। এসব বিবেচনা করেই আমরা (বিজিএমইএ) বকেয়া পরিশোধ করার চিঠি দিয়েছি, অন্যথায় তাদের কালো-তালিকাভুক্ত করা হবে সেটা বলা হয়েছে।

বিবিসি বাংলার প্রতিবেদনে আরও জানানো হয়েছে, এই ক্রেতা প্রতিষ্ঠানগুলো করোনাভাইরাসের কারণ দেখিয়ে মাঝপথে কার্যাদেশ বাতিল বা স্থগিত করেছে, কিন্তু ইতিমধ্যেই এখানকার প্রতিষ্ঠানগুলো কার্যাদেশের অনেকটাই সম্পন্ন করেছে। কিন্তু সেজন্য কোন ধরণের অর্থ শোধ করেনি বাংলাদেশের কারখানাগুলোকে। যার ফলে বড় ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে বাংলাদেশের পোশাক ব্যবসায়ীরা। কোন ব্র্যান্ডকে কালো তালিকাভুক্ত করার মানে হচ্ছে বাংলাদেশের অন্য কোন পোশাক উৎপাদন ও রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠান ওই ব্র্যান্ডের জন্য কাপড় তৈরি করবে না।

এ বিষয়ে ইডব্লিউএমের বক্তব্য জানা সম্ভব হয়নি।

বিজিএমইএ সূত্রে জানা গেছে, করোনাভাইরাসের কারণে বিদেশি ক্রেতারা বাংলাদেশের পোশাক খাতে ইতিমধ্যে তিনশো কোটি ডলারের বেশি কার্যাদেশ বাতিল করেছে। করোনাভাইরাসের কারণে অন্য বিদেশি ক্রেতাদের মধ্যেও একটি বড় অংশ তাদের পাওনা পরিশোধ করেননি। ফলে শ্রমিকদের মজুরি পরিশোধসহ নানা ধরণের ঝামেলায় পড়ছেন উদ্যোক্তারা। এদিকে চিঠি পাবার পর ইডব্লিউএম অনানুষ্ঠানিকভাবে তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করে সমস্যা সমাধান করার আগ্রহ দেখিয়েছে। তবে এখনো আনুষ্ঠানিক কোন প্রস্তাব কিংবা বকেয়া অর্থ পরিশোধের কোন কথা বলা হয়নি। বিজিএমইএ এবং বিকেএমইএ দুইটি সংস্থাই বিষয়টি নিয়ে আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থাসহ অন্যান্য সংস্থাকে কার্যকর পদক্ষেপ নেবার আহ্বান জানিয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...