আজ ৪ঠা আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৮ই জুন, ২০২১ ইং

                      রাণীনগরে রক্তদহ বিল ও খাল থেকে কচুরিপানা অপসারন ॥তলিয়ে যাওয়া থেকে রক্ষা পাবে কয়েক হাজার বিঘা জমির বোরো ধান

  নওগাঁ প্রতিনিধি :  নওগাঁর রাণীনগরে অবস্থিত ঐতিহ্যবাহি বিল রক্তদহ। এই বিলের নিচু ও আশেপাশের কয়েক হাজার বিঘা জমিতে চাষ করা হয়েছে অধিক ফলনশীল বোরো ধান।  বৃষ্টির পানি ঠিকমতো নিষ্কাশন হতে না পেরে প্রতিবছরই  কৃত্রিম জলাবদ্ধতার কারণে তলিয়ে যেতো হাজার হাজার বিঘা জমির ধান। বর্ষা মৌসুমের আগেই এই সমস্যা থেকে উত্তরনের জন্য চলতি বছর বৃষ্টির পানি সহজেই নিষ্কাশনের জন্য স্থানীয় সাংসদের নির্দেশে উপজেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় ও কৃষি কর্মকর্তার নেতৃত্বে বিলের পানি নিষ্কাশনের লক্ষ্যে বিলের মাঝে থাকা কচুরিপানা পরিস্কার করা হয়েছে।

 

দিনব্যাপী স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান, মেম্বার ও স্থানীয় কৃষকদের সহযোগিতায় বিলের পানি নিষ্কাশনের প্রধান নালা রতনডারী খাল থেকে অবৈধভাবে পেতে রাখা মাছ ধরার খাড়ি ও বানা অপসারনের মাধ্যমে কচুরিপানাগুলো পরিস্কার করা হয়। এতে করে বিলের জমে থাকা অতিরিক্ত বৃষ্টির পানি সহজেই এই খাল দিয়ে নেমে যাবে এবং পানিতে তলিয়ে যাওয়ার হাত থেকে রক্ষা পাবে হাজার হাজার বিঘা জমির পাকা বোরো ধান। যদি এই নালাগুলো পরিস্কার রাখা না হয় তাহলে বিল জমে থাকা আকাশের বৃষ্টি বের হতে না পেরে কৃত্রিম জলাবদ্ধতায় তলিয়ে যেতো এই ধানগুলো।

কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে চলতি বোরো মৌসুমে রক্তদহ বিলের নিচু ও আশেপাশের প্রায় ২-৩হাজার হেক্টরসহ উপজেলায় লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ১৮হাজার ৮শত ৮৫হেক্টর জমিতে বিভিন্ন জাতের অধিক ফলনশীল বোরো ধান চাষ করা হয়েছে। প্রতিনিয়ত এই কচুরিপানা পরিস্কারের কাজ পর্যবেক্ষনের জন্য স্থানীয় মেম্বার ও গ্রাম পুলিশের একটি দল গঠন করে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। কৃষকের ধান পুরোপুরি ঘরে না ওঠা পর্যন্ত এই দল মাঠে কাজ করবেন বলে জানিয়েছেন কৃষি কর্মকর্তা।

স্থানীয় কৃষক আলী হোসেন জানান প্রতিবছর এইসব খালে কচুরিপানা জমে থাকার কারণে বিলের পানি সময়মতো বের হতে পারে না। যার কারণে পানিতে তলিয়ে যায় শত শত বিঘা জমির পাকা বোরো ধান। কিন্তু এবছর একটু আগেই প্রশাসনের সহযোগিতায় খাল ও বিল থেকে কচুরিপানাগুলো পরিস্কার করা হলো। এই কচুরিপানা পরিস্কার করার কারণে আশা রাখি এবার বৃষ্টির পানি যতই হোক না কেন তা সহজেই বের হয়ে যাওয়ার কারণে এবার আর পানিতে ধান তলিয়ে যাবে না।

সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান পিন্টু বলেন স্থানীয় সাংসদের নির্দেশে উপজেলা প্রশাসন ও কৃষি অফিসের সহযোগিতায় পরিষদের গ্রাম পুলিশ ও স্থানীয় কৃষকদের সহযোগিতা নিয়ে খাল ও বিল থেকে কচুরিপানা পরিস্কার করা হয়েছে। পরিস্কার করা খাল দিয়ে সহজেই বিলে জমে থাকা অতিরিক্ত পানি নেমে যাবে আর তলিয়ে যাবে না জমির কোন ধান। আশা রাখি এতে করে কৃষকরা অনেক লাভবান হবেন।

কৃষি কর্মকর্তা শহীদুল ইসলাম জানান যদি আর কোন প্রাকৃতি দুর্যোগ হানা না দেয় ও বর্তমান আবহাওয়া ধানের অনুক’লে থাকে এবং কৃষকরা যদি সঠিক সময়ে ধান ঘরে তুলতে পারেন তাহলে এবার উপজেলায় বোরো ধানের বাম্পার ফলনের আশা করা হচ্ছে। এছাড়াও কৃষি অফিসের পক্ষ থেকে মাঠ পর্যায়ে এই সময়ে করনীয় বিষয়ে কৃষকদের সার্বক্ষনিক পরামর্শ প্রদান করা হচ্ছে।

নওগাঁ-৬ (আত্রাই-রাণীনগর) আসনের সংসদ সদস্য মো: ইসরাফিল আলম বলেন প্রতিবছরই কৃত্রিম জলাবদ্ধতার কারণে এই বিলের নিচু ও আশেপাশের হাজার হাজার বিঘা জমির ধান পানিতে তলিয়ে নষ্ট হয়ে যায়। কিন্তু বর্তমানে করোনা ভাইরাসের এই মহামারির সময়ে কোন জমির ধান বিন্দুমাত্র নষ্ট হতে দেওয়া যাবে না। তাই আমি অগ্রিম কি ব্যবস্থা গ্রহণ করলে পানিতে ধান তলিয়ে যাবে না এবং সহজেই কৃষকরা তাদের ধান ঘরে তুলতে পারবেন সেই জরুরী পদক্ষেপ গ্রহণ ও তা সঠিক ভাবে বাস্তবায়ন করার জন্য প্রশাসনকে কঠোর নির্দেশনা প্রদান করেছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...